IMG-LOGO

শুক্রবার, ২রা ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ১৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

× Education Board Education Board Result Rajshahi Education Board Rajshahi University Ruet Alexa Analytics Best UK VPN Online OCR Time Converter VPN Book What Is My Ip Whois
নিউজ স্ক্রল
‘বিএনপি আবারও জ্বালাও-পোড়াও করতে চায়’মণিরামপুরে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে হোটেলে কাভার্ডভ্যান, নিহত ৫রাজশাহীতে এনজিও ফাউন্ডেশন দিবস উদযাপনরাজশাহীতে আরএমপি পুলিশের অভিযানে আটক ১২বাগাতিপাড়ায় মসজিদে নামাজ পড়াতে গিয়ে ইমামের সাইকেল চুরিবাঘায় আনসার ভিডিপির সমাবেশমোহনপুরে বিস্ফোরক মামলায় বিএনপির নেতা আটকবিএনপির দেশবিরোধী ষড়যন্ত্রের প্রতিবাদে রাজশাহীতে আ.লীগের বিক্ষোভ মিছিলরাণীনগরে জনতার হাতে দুই চোর আটক, পরে পুলিশে সোপর্দআবাদপুকুর-আদমদীঘি সড়কের মেরামত কাজের উদ্বোধননাচোলে সাংবাদিক সাজিদের পিতার ইন্তেকালমোহনপুরে ইউপি সদস্য পদে ৭ জনের মনোনয়নপত্র দাখিলমোহনপুরে মাদক সেবীর কারাদন্ডমোহনপুরে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে বেঞ্চ বিতরণধামইরহাটে আদর্শ কিন্ডার গার্টেন স্কুলে শিশু শিক্ষার্থীদের বিদায়
Home >> >> ফেসবুকে পরিচয়ে বিয়ে, স্বামীকে ব্লাকমেইলের অভিযোগ

ফেসবুকে পরিচয়ে বিয়ে, স্বামীকে ব্লাকমেইলের অভিযোগ

ধূমকেতু নিউজ ডেস্ক : প্রেম করে বিয়ে। অতঃপর কিছুদিন যেতে না যেতেই টাকার জন্য চাপাচাপি। তারপর শুরু হয় রেষারেষি। স্বামী পরে বুঝতে পারেন, তিনি খপ্পরে পরেছেন। পেছনে আছে কোনো চক্র। কাছাকাছি সময়ে স্বামী স্ত্রী দু’জনই একে অপরের বিরুদ্ধে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পাল্টাপাল্টি অভিযোগ করেছেন।

সম্প্রতি সংসার ভেঙ্গে যাওয়া তানভীর কামাল তন্ময় নামের এক যুবকের সঙ্গে এমনই এক ঘটনা ঘটেছে। তার স্ত্রী দাবিদার রামিসা তাবাসসুম আলিনাও অভিযোগ করে ফেসবুকে পোস্ট দিয়েছেন। তবে পুলিশের সূত্র বলছে, প্রাথমিকভাবে মনে হচ্ছে এটি একটি চক্র। বিয়ে করে টাকা দাবিদার চক্র বেশ সক্রিয় রাজধানীতে। এদের টার্গেট উচ্চবিত্ত ঘরের যুবক, ব্যবসায়ী ও বিত্তবান মানুষ। এ ঘটনা তারই অংশ কি না অনুসন্ধানের পর জানা যাবে।

ইতোমধ্যে স্ত্রীর নির্যাতনে স্বামী তানভীর কামাল তন্ময় রাজধানীর আদাবর থানায় গেল ১২ আগস্ট মামলাও করেছেন। কথা বলার জন্য খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না আলিনাকে। ফেসবুকে তিনি দাবি করেছেন, তিনি আত্মগোপনে আছেন।

স্ত্রীর বিরুদ্ধে তথ্য গোপন এবং প্রতারণার মাধ্যমে বিয়েসহ নানা অভিযোগে সাধারণ ডায়েরি করার কথা স্বীকার করেছেন আদাবর থানা প্রশাসন। ম্যাপললিফ ইন্টারন্যাশনাল স্কুলের শিক্ষার্থী দাবি করে রামিসা তাবাস্সুম আলিনাও তানভীর কামালের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেছে।

ঘটনা অনুসন্ধানে জানা যায়, এ বছরের মার্চ মাসে রামিসা তাবাস্সুম আলিনার সঙ্গে আনুষ্ঠানিকভাবে বিয়ে হয় তানভীরের। কিন্তু বিয়ের পরে তিনি জানতে পারেন তার স্ত্রী আলিনা নিজেকে ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী দাবি করলেও তিনি দশম শ্রেণি পর্যন্ত পড়ালেখা করেছেন। বিয়ের আগে পরিচয় দিয়েছিলেন তার বাবা ও মামা এদেশের বিশিষ্ট শিল্পপতি। এমনকি প্রতিষ্ঠিত এক শিল্পগোষ্ঠীর নামও বলেছিলেন।

বিয়ের সময় মিথ্যা বাবা-মা সাজিয়ে উপস্থাপন করা, উচ্ছৃঙ্খল জীবন-যাপন, একাধিক নামে পাসপোর্ট, জন্ম সনদ ব্যবহার করে নানাভাবে প্রতারণা করেছেন বলে দাবি করেন তানভীর।

ফেসবুকে আলিনা দাবি করেছেন, তিনি আত্মগোপনে আছেন

তানভীর কামাল জানান, তার সন্দেহ ঘণীভূত হয় তখন, যখন আলিনার ব্যাংক একাউন্টে অস্বাভাবিক লেনদেন দেখতে পায়। পরবর্তীতে খোঁজ নিয়ে জানতে পারেন, ধনী ও ব্যবসায়ীদের ছেলেদের ফাঁদে ফেলা আলিনার এক ধরণের পেশা।

এ বিষয়ে আদাবর থানার উপ-পরিদর্শক এবং তদন্ত কর্মকর্তা মতিউর রহমান বলেন, তানভীর কামাল তন্ময় নামে এক ব্যক্তি তার স্ত্রীর বিরুদ্ধে প্রতারণাসহ বিভিন্ন অভিযোগ এনে জিডি করেন। ১২ আগস্ট মামলাও করেন। অভিযুক্ত নারীর সঙ্গে কথা বললে প্রকৃত বিষয়টি জানা যাবে বলে জানান এই কর্মকর্তা।

তানভীর ও তার আত্মীয়স্বজনকে চাপে রাখতে, তাবাসসুম আলিনা (১৯) ভিডিও বার্তায় এরইমধ্যে নানান অভিযোগ করেছেন। যৌতুকের দাবিতে স্বামী নির্যাতন করেছে তাকে এমনও দাবি ঐ ভিডিও বার্তায় তিনি করেছেন।

তবে সাবেক স্বামী তানভীর কামাল তন্ময় জানান, তার (আলিনার) এসব অভিযোগ প্রতারণা ছাড়া আর কিছুই না। এটা নিছক স্টান্টবাজি ও প্রতারণার কৌশলমাত্র। কারণ আলিনা সবসময় জোরগলায় বলেন যে, তিনি যাই করুন না কেনো আইন তার পক্ষেই যাবে।

গেল ১০ আগস্ট ফেসবুকে এক ভিডিও বার্তা ছড়িয়ে দেয় আলিনা। সেখানে তিনি জানান, ফেসবুকে পরিচয়ের পাঁচ মাসের মাথায় চলতি বছরের ১২ মার্চ তন্ময়ের সঙ্গে তার বিয়ে হয়। পরে ২০ মার্চ তাকে আনুষ্ঠানিকভাবে তার স্বামী রাজধানীর আদাবরের একটি বাসায় নিয়ে যায়। বিয়ের তিন দিনের মাথায় তার ব্যাংক অ্যাকাউন্ট থেকে আট লাখ টাকা দেনা শোধের কথা বলে নিয়ে নেয় তন্ময়।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, মা-বাবার মধ্যে বিবাহ বিচ্ছেদ হয়ে যাওয়ায় আলিনা শ্যামলীতে নানার বাড়িতে বেড়ে উঠেছেন। চলতি বছর তার ‘ও’ লেভেল পরীক্ষা দেওয়ার কথা ছিল।

আলিনার বিষয়ে আরও জানা গেছে, নানুর বাসা তার স্থায়ী ঠিকানা হওয়ায় সংশ্লিষ্ট থানায় অভিযোগ করতে গিয়েছিলেন তিনি। কিন্তু তার দাবি, পুলিশ সেই অভিযোগ নেয়নি। এ বিষয়ে আলিনার বক্তব্য জানতে তার ব্যবহার করা দুটি মোবাইল নম্বরে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে সেগুলো বন্ধ পাওয়া যায়।

অন্যদিকে তন্ময় জানান, ফেসবুকের মাধ্যমে আলিনার সঙ্গে তার বন্ধুত্ব হয়। বন্ধুত্বের এক পর্যায়ে তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে। এই সম্পর্কের সূত্র ধরে আলিনাকে তানভীর কামাল তন্ময় বিয়ে করবেন বলে তার পরিবারকে জানায়। তখন তন্ময়কে তার পরিবার বলেন, আলিনার বায়োডাটা এনে দিতে। আলিনার সেই বায়োডাটায় লিখা ছিল তার বাবা একজন পিএইচডিধারী, মামা শিল্পপতি। এছাড়াও আলিনা বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় ব্র্যাকের শিক্ষার্থী।

তন্ময় আরও জানান, বিবাহিত জীবনের কয়েক মাস চলে যাওয়ার পর তিনি লক্ষ্য করেন আলিনা তার বিশ্ববিদ্যালয়ের কোনো অনলাইন ক্লাস করছেন না। পরে এ বিষয়ে তন্ময় খোঁজ খবর নিয়ে দেখেন, আলিনা কোনো বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী নয়। তাকে মিথ্যা তথ্য দিয়েছে।

এসব বিষয় নিয়ে তার সঙ্গে দূরত্ব বাড়ে তন্ময়ের। এক পর্যায়ে আলিনার প্রতি তিনি বিশ্বাস হারিয়ে ফেলেন। ভাবতে বাধ্য হন তার স্ত্রী নিছকই একজন প্রতারক।

তন্ময়ের দাবি, বিয়ের আগে রাজধানীর আদাবর এলাকায় বাসা নেন তিনি। বিয়ের পর আলিনাকে নিয়ে তিনি ওই বাসায় উঠেন। কিন্তু বিয়ের কিছু দিন পরই তন্ময় জানতে পারেন, মা-বাবার যে পরিচয় আলিনা তাকে দিয়েছিলেন তা সত্য নয়। বাবার পরিচয় ঠিক থাকলেও তার মায়ের পরিচয় আলিনা লুকিয়েছে।

তন্ময় এসব বিষয়ে আলিনাকে জিজ্ঞাসা করলে আলিনা জানায়, তার মা-বাবার মধ্যে বিবাহ বিচ্ছেদ হয়েছে অনেক দিন আগে। তার মা এখন যুক্তরাষ্ট্রে থাকেন। তার নানার বাড়িতে সে বড় হয়েছে। তন্ময় তার স্ত্রীর বিভিন্ন ফাইল ঘেঁটে একটি জিডির কপি পান। সেই জিডি আলিনার বিরুদ্ধে তার নিজের মা আগেই করেছিলেন। যাতে আলিনার বেসামাল জীবনযাপনের ইঙ্গিত ছিল। এ বিষয়ে আলিনাকে প্রশ্ন করলে কোন সদুত্তর দিতে পারেনি-এমনটাই দাবি করেন তানভীর কামাল তন্ময়।

আলিনার ব্যাংক একাউন্টে ৮৬ লাখ টাকার একটি লেনদেন হয়েছিল। এটি দেখে তো তানভীর কামাল তন্ময়ের সন্দেহ আরও দানা বাঁধে। এত বিশাল অংকের টাকা কোথায় থেকে এসেছে -জানতে চাইলে আলিনা কোনো উত্তর দিতে পারেনি। পরে আলিনা যেখানে চাকরি করতেন সেখানে যোগাযোগ করেও কোনো সদুত্তর পান না তন্ময়। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে গত ১৭ জুন আলিনা ও তন্ময়ের মধ্যে তুমুল ঝগড়া হয়।

তন্ময় বলেন, গত ১৭ জুন রাতের ঘটনার পর আলিনার সঙ্গে বিষয়টি পারিবারিকভাবে মিটমাট করার চেষ্টা করি। তখন আলিনা আমার কাছে তাৎক্ষণিকভাবে ৫৪ লাখ টাকা দাবি করে। এত টাকা আমার পক্ষে দেওয়া কোনোভাবেই সম্ভব না। এছাড়া সে এখন আমার পরিবারকে জড়িয়ে নানা ধরনের মিথ্যাচার করছে। এই বিয়ের সঙ্গে আমার পরিবারের কোনো সম্মতি না থাকায় সেখানেও আমি হেয় হচ্ছি।

তন্ময় বলেন, আমার ধারণা আলিনা একটি চক্রের সদস্য। সে ওই চক্রের মাধ্যমে আমাকে ব্ল্যাকমেইলিং করে টাকা হাতিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করছে। তার এই অপচেষ্টা ও প্রতারণার কারণে গত ১১ আগস্ট আমি আদাবর থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করি। পরে মামলা করতে বাধ্য হই।

জানতে চাইলে তেজগাঁও বিভাগের উপ-পুলিশ কমিশনার (ডিসি) মো. শহীদুল্লাহ বলেন, ভুক্তভোগী ওই নারী তেজগাঁও বিভাগের কোনো থানায় সুনির্দিষ্ট কোনো অভিযোগ করেননি। তিনি অভিযোগ করলে এ বিষয়ে ব্যবস্থা নেয়া হবে। তবে তন্ময়ের মামলার ব্যাপারটি পুলিশের বিভিন্ন স্তরের কর্মকর্তারা জানেন। ইতোমধ্যে তদন্তও শুরু হয়েছে বলে জানান এক কর্মকর্তা।

ফেসবুক পোস্টে বিস্তারিত ঘটনা তুলে ধরে নিজেকে ব্লাকমেইলের শিকার বলে দাবি করেছেন তানভীর কামাল

ফেসবুকে তানভীর কামাল তন্ময়ের আবেগী পোস্ট:
আমি তানভীর কামাল। গত কয়েকদিন ধরে আমার স্ত্রী আলিনা রামিসা যৌতুক এবং নারী নির্যাতনের মত গুরুতর এবং স্পর্শকাতর অভিযোগ আমার বিরুদ্ধে এনে ফেসবুকে আলোড়ন সৃষ্টির চেষ্টা করে। আমি জানি, তার ছবিগুলো দেখে সবাই তার অভিযোগগুলোকে প্রবলভাবে বিশ্বাস করছেন কিন্তু প্রকৃত পক্ষে দিনের পর দিন মানসিক নির্যাতন এবং প্রতারণার শিকার হয়েছি আমি।

আপনাদের সবার মনে প্রশ্ন আসতে পারে যে আমি কেনো এতদিন কিছু বলিনি বা করিনি। আসলে আমি ১৭ ই জুনের ঘটনার পরে মানসিকভাবে অত্যন্ত ভেঙে পরি এবং আতঙ্কিত হয়ে যাই। আমি আমার বাসা থেকে খালি হাতে বের হয়ে যাই। যার কারণে আমি বারবার আলিনার কাছে সময় চাই পুনরায় সংসার শুরু করার পূর্বে। কিন্তু আলিনা আমাকে প্রচণ্ডভাবে চাপ প্রয়োগ করতে থাকে, আমার মানসিক অবস্থা বিবেচনা না করেই বারবার হুমকি দিতে থাকে আমার এবং আমার পরিবারের সম্মান হানি করার জন্য। যা এখন সে করছে আসলে।

গত বছরের সেপ্টেম্বর মাসে ফেসবুকের মাধ্যমে আমাদের পরিচয় হয়। আমি MBA শেষ করে ৪ বছর যাবত চাকরিরত ছিলাম। এবং বেশ কিছু দিন যাবত আমি বিয়ের জন্য মানসিকভাবে প্রস্তুতি নিচ্ছিলাম। তখন আলিনা নিজেকে খুবই আকর্ষণীয় এবং গ্রহণযোগ্য বায়োডাটার মাধ্যমে আমার কাছে বিয়ের প্রস্তাব দেয়। আমাদের মধ্যে একটি গভীর প্রেমের সম্পর্ক সৃষ্টি হয়। এবং তাকে বিয়ে করার বিষয়ে সে আমাকে প্রলুব্ধ করতে থাকে।
পরবর্তীতে আমার পরিবারের কাছে আমি আলিনা কে বিয়ের বিষয়ে জানালে তারা বিস্তারিত জানতে চায়। এবং ফেইসবুকের মাধ্যমে এত অল্প সময়ের পরিচিত একটি মেয়েকে বিয়ের বিষয়ে তীব্র আপত্তি করে।

আলিনা আমাকে এতটাই মোহগ্রস্ত করে তুলেছিল যে আমার অসম্ভব পীড়াপীড়ি এবং জেদ এর কারণে বাধ্য হয়ে আমার পরিবার এই বিয়েতে মত দেয়। আমি যেহেতু আমার পরিবারের অনাগ্রহে ও ইচ্ছার বিরুদ্ধে এই বিয়ে করছি সেজন্য আলিনা আমাকে বিয়ের আগে থেকেই আলাদা বাসা নেয়ার জন্য ভীষণভাবে পীড়াপীড়ি করতে থাকে। আলিনার চাপাচাপির কারণেই আমি বিয়ের পর থেকে আলাদা বাসায় থাকতে শুরু করি।

কিন্তু তার সাথে সংসার শুরু হওয়ার পর থেকেই তার মিথ্যা ও প্রতারণাগুলো আমার সামনে ধরা পরতে শুরু করে। সে ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ে আর্কিটেকচার এ পরে, যথেষ্ট পর্দানশিনভাবে একটি সম্ভ্রান্ত মুসলিম পপরিবারের রক্ষণশীল পরিবেশের মধ্য দিয়ে সে বড় হয়ে উঠেছে, তার আপন মামা একজন বিখ্যাত শিল্পপতি এসব তথ্য যা সে বিয়ের আগে আমাকে দিয়েছিল সেগুলো যে সব মিথ্যা তার প্রমাণ আমি হাতে পাই। এক পর্যায়ে তার কিছু মিথ্যা সে নিজেই স্বীকার করে নেয় যার প্রমাণ আমার কাছে আছে। আমার সন্দেহ গুরুতর হয় যখন আমি তার ফোনে তার ব্যাংক অ্যাকাউন্টের লক্ষ লক্ষ টাকার লেনদেন গুলো দেখতে পাই। আমি তাকে এ নিয়ে বারবার জানতে চাইলে সে উত্তেজিত হয়ে পরে। এক পর্যায়ে আমার ল্যাপটপ ভেঙে ফেলে এবং ছুরি নিয়ে এসে আমাকে হুমকি দিতে থাকে যেনো এসব নিয়ে কথা না বাড়াই আর বাইরে প্রচার না করি। আমি তার হাত থেকে ছুরিটা ফেলে দিতে সক্ষম হই। এরপরে সে বটি নিয়ে আসে। তখন বটি টা ফেলানোর জন্য আমাদের মধ্যে হাতাহাতি হয় এবং আমরা দুইজনই আলমারির উপর পরে যাই এবং আলমারির গ্লাস ভেঙে আমরা ২ জনই আঘাত পাই, যেটাকে সে পরিকল্পিতভাবে এখন নারী নির্যাতন বলে সবার দৃষ্টি এবং সহানুভূতি আদায় করছে। আমাদের এসব হাতাহাতি ও হইচই এর শব্দ প্রতিবেশীরা পেয়ে পুলিশ ডেকে আনে কিন্তু পুলিশ এসে আমাদের ২ জনকেই আহত অবস্থায় দেখেন এবং ২ জনের বক্তব্যই শুনে এটাকে নিজেদের মধ্যেই মিটিয়ে ফেলতে বলে কাউন্সেলিং করে চলে যান।

আমি তার বিরুদ্ধে কোনো আইনানুগ ব্যাবস্থা তখনও পর্যন্ত নেই নাই। এমন কি বিষয়টি আমি পরিবারকেও জানাতে সাহস পাচ্ছিলাম না। কারণ এই বিয়েতে আমার পরিবারের স্বতস্ফুর্ত মত ছিলোনা। এবং আমি মানসিকভাবে এতটাই হতবিহ্বল হয়ে পরি যে তখনও পর্যন্ত আমি কোনো সিদ্ধান্ত নিতে পারছিলাম না। আমি তার কাছে শুধু সময় চেয়েছিলাম আমার আতঙ্ক এবং মানসিক চাপ কাটানোর জন্য। কিন্তু বাসা ছাড়ার পরেও সে প্রতিনিয়ত আমাকে চাপ প্রয়োগ করতে থাকে তার কাছে ফেরার জন্য। আমি বাসায় ফিরে না গেলেও তার অনুরোধে তার সাথে আমি একাধিক দিন বাইরে গিয়েছি, দেখা করেছি, তার সাথে সময় কাটিয়েছি। তবে সে ওইসব দেখা-সাক্ষাতে আমাকে সরাসরি ৫০ লক্ষ টাকা দেয়ার জন্য দাবি করে এবং এই টাকা দিতে না পারলে সে আমার বিরুদ্ধে নারী নির্যাতন ও যৌতুকের মামলা ও নানাবিধ আইনি এবং সামাজিক হয়রানি করবে বলে হুমকি দিতে থাকে। আমি তার এই অব্যহত অনৈতিক হুমকিতে আরো ভীতুগ্রস্ত হয়ে পরি। একটি পর্যায়ে এসে লক্ষ করি যে সে ফেসবুকের মাধ্যমে আমাকে এবং আমার পরিবারকে অসম্মানিত করার জন্য কল্পিত কাহিনী তৈরি করে তার আহত হওয়ার ছবি দিয়ে মানবিক আবেদন সৃষ্টি করার ঘৃণ্য প্রয়াস চালায়। এবং সে আমাকে আবার দেখা করার জন্য অনুরোধ করতে থাকে এবং আমি দেখা করলে একই ভাবে ৫০ লক্ষ টাকা দেয়ার জন্য আরো বেশি চাপ প্রয়োগ করতে থাকে। এই টাকা দেয়ার সামর্থ্য আমার নাই সে ভালো করেই জানে। সে আমাকে কুপরামর্শ দেয় যে, “তোমার বাবা অত্যন্ত সম্মানজনক একটি চাকরি করে, তোমাদের পরিবারের অনেক সামাজিক সম্মান রয়েছে, আমি যে তোমাকে ব্লাকমেইল করতে পারি এটা জানলে নিঃসন্দেহে তারা এই টাকাটা দিতে বাধ্য হবে”। কিন্তু এই কুপরামর্শে আমার মন সায় দেয়নি এবং আমার পরিবারকেও আমি কিছু জানাইনি।

গত ২৪ এ জুলাইতেও আমরা একসঙ্গে ঘুরেছি ফিরেছি, সে আমার সঙ্গে অত্যন্ত হাসি খুশি হয়ে মিশেছে, ফেসবুকে সে আমাদের বিভিন্ন সময়ের আনন্দঘন ছবিগুলো পোস্ট করেছে। আবার সে ভয়ানক কঠিনভাবে পেশাদার প্রতারকের মত আমাকে দ্রুত ৫০ লক্ষ টাকা দেয়ার জন্য হুমকি প্রদান করেছে। নাহলে সে তার আহত হওয়ার ছবি এবং বিভিন্ন কল্পিত কাহিনী দিয়ে সামাজিক মাধ্যম সহ বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলক্ট্রনিক মিডিয়াতে ব্যাপকভাবে ভাইরাল করার হুমকি দেয়। আমি তার কাছে বারবার আকুতি করে জানাই যে এই টাকা দেয়ার সামর্থ্য আমার নাই এবং আমার পরিবারকেও এটা জানানো সম্ভব না। আমি জানতে চাই তার এত টাকা কেনো প্রয়োজন। সে আমাকে জানায় তার বিভিন্ন সময়ে প্রচুর অর্থ লোন করা আছে, যা শোধ করার জন্যই এই টাকাটা প্রয়োজন।

সে আমাকে ৮ লক্ষ টাকা দেয়ার যেই কথাটা মিডিয়াতে বলছে সেটি – সত্য। সে আমার ব্যাংক একাউন্টে ৮ লক্ষ টাকা ট্রান্সফার করেছিল। তবে এর পিছনে যে ঘটনা সেটি হলো আলিনা বিয়ের পরপরই আমাকে বলে যে, বিয়ের অনুষ্ঠানের ব্যয় নির্বাহের জন্য তার বাবাকে তার স্বাক্ষর করা কিছু ব্লাঙ্ক চেক দেয়া আছে। তার বাবার উপর তার কোনো বিশ্বাস নাই। তার বাবা তার একাউন্ট থেকে সব টাকা তুলে আত্মসাৎ করতে পারে সেজন্য সে আমার অ্যাকাউন্টে ৮ লক্ষ টাকা ট্রান্সফার করে। এই টাকা পরবর্তীতে তার চাহিদা অনুযায়ী পর্যায়ক্রমে তাকে দিয়েও দেয়া হয়।
তার কাছে যে আমি ৭০ লক্ষ টাকা যৌতুক চেয়েছি, এটি সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন, বানোয়াট ও দুরভিসন্ধিমূলক বক্তব্য। সেই দাবি করছে যে তার পরিবার বলতে তেমন কেউ নেই, সেখানে তার কাছে ৭০ লক্ষ টাকা আমি চেয়েছি এই বক্তব্য সম্পূর্ণ অসংগতিপূর্ণ। তাছাড়া আমার যদি অর্থলোভ থাকতো, অনেক ধণাঢ্য পরিবারে বিয়ে করার সুযোগ আমার ছিলো, কিন্তু আমি কখনোই সেদিকে প্রলুব্ধ হয়নি। এছাড়া যারা সচেতন তারা সবাইই জানেন ইউকেতে পড়তে যাওয়ার জন্য ৭০ লাখ টাকার প্রয়োজন হয়না।

একজন নারী যখন তার অসহায়ত্ব, তার কষ্ট আকুল আবেদন আকারে তুলে ধরে তখন বিবেকবান মানুষ সবাই সহানুভূতিশীল হয়। কিন্তু এই মেয়েটি জঘন্য প্রতারণা করে আমাকে বিয়ে করেছে এবং মানসিক ও শারীরিকভাবে যে প্রচণ্ড কষ্ট ও যন্ত্রণা আমাকে দিয়েছে এবং এখনও দিচ্ছে সেটি ভাষায় অবর্ণনীয়। আমার পরিবারের মান সম্মান নিয়ে সে প্রচণ্ডভাবে ধ্বংসাত্মক কাজে লিপ্ত হয়েছে। কিন্তু তার এসব কার্যকলাপ কেউ না জানার কারণে উল্টো তার প্রতিই সহানুভূতিশীল হচ্ছে।

যেই মেয়ের জন্মদাতা পিতা মেয়ের সম্পর্কে প্রচণ্ডভাবে ক্ষুব্ধ এবং তাকে তিনি স্বীকারও করতে চান না; যেই মেয়ের গর্ভধারিনী মা গত বছর তার উশৃঙ্খল জীবন যাপন ও বখে যাওয়ার প্রেক্ষিতে নিজে থানায় জিডি পর্যন্ত করেছেন; যে মেয়ে তার একাধিক জন্ম সনদ, পাসপোর্ট ও বিভিন্ন ডকুমেন্টে ভিন্ন ভিন্ন জন্ম তারিখ ও নাম ব্যাবহার করেছে; দশম শ্রেণী পর্যন্ত পড়ালেখা করে যে নিজেকে ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের আর্কিটেকচারের ছাত্রী হিসেবে পরিচয় দিত, আইডি ব্যবহার করতো, ফেসবুকে এই পরিচয় দিয়ে সে O’level ও A’level এর শিক্ষার্থী পড়ানোর জন্য টিউশনি খুঁজতো। সে এখন নিজেকে নিষ্কলুক দাবি করে আমাকে বিভিন্নভাবে হয়রানি ও নিপীড়ন করার অব্যাহত প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। আমার চরিত্র হরণ করার চেষ্টা করছে, আমার পরিবারের সুনাম ভূলুন্ঠিত করার চেষ্টা করছে। আমি আইনের প্রতি অত্যন্ত শ্রদ্ধাশীল। তার এসকল প্রতারণা ও ঘৃণ্য প্রচেষ্টার জন্য আমি আইনি সহায়তা চেয়েছি।

আমি বিবেকবান মানুষের কাছে আকুল আবেদন জানাচ্ছি, এই ঘৃণ্য প্রতারক আলিনা তাবাসসুম রামিসার কথা সরল বিশ্বাসে বিশ্বাস না করে অনুসন্ধানী দৃষ্টি দিয়ে দেখবার জন্য। আমার মত যেনো আর কোনো মানুষ এরূপ ভয়ানক প্রতারক ও জঘন্য মেয়ের প্রতারণার ফাঁদে পরে বিপর্যস্ত না হয়, সেজন্য সচেতন থাকেন।

ধূমকেতু নিউজের ইউটিউব চ্যানেল এ সাবস্ক্রাইব করুন

প্রিয় পাঠকবৃন্দ, স্বভাবতই আপনি নানা ঘটনার সাক্ষী। শেয়ার করুন আমাদের। যেকোনো ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের ইমেলে পাঠিয়ে দিন এই ঠিকানায়। নিউজ পাঠানোর ই-মেইল : dhumkatunews20@gmail.com. অথবা ইনবক্স করুন আমাদের @dhumkatunews20 ফেসবুক পেজে । ঘটনার স্থান, দিন, সময় উল্লেখ করার জন্য অনুরোধ করা হলো। আপনার নাম, ফোন নম্বর অবশ্যই আমাদের শেয়ার করুন। আপনার পাঠানো খবর বিবেচিত হলে তা অবশ্যই প্রকাশ করা হবে ধূমকেতু নিউজ ডটকম অনলাইন পোর্টালে। সত্য ও বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ নিয়ে আমরা আছি আপনাদের পাশে। আমাদের ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করার জন্য অনুরোধ করা হলো Dhumkatu news