IMG-LOGO

মঙ্গলবার, ২৯শে নভেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ১৪ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

× Education Board Education Board Result Rajshahi Education Board Rajshahi University Ruet Alexa Analytics Best UK VPN Online OCR Time Converter VPN Book What Is My Ip Whois
নিউজ স্ক্রল
রাজশাহী বঙ্গবন্ধু কলেজে ‘হিসাবের আড্ডা’র সভাগণিত অলিম্পিয়াড ফাইনাল রাউন্ডে উত্তীর্ণ বাউয়েট শিক্ষার্থী সৌরভরায়গঞ্জে শীতকালীন সবজির দাম কমলেও আশানুরুপ নেই ক্রেতালালপুরে বনিক সমিতির সভাপতিকে গ্রেপ্তারের প্রতিবাদে মানববন্ধনশিবগঞ্জে ভুটভুটির ধাক্কায় প্রাণ গেল মোটরসাইকেল আরোহীরনক আউটে ব্রাজিলবিএনপি উশৃঙ্খলতা করলে বরদাশত করা হবে না : লিটন১১নং ওয়ার্ড আ.লীগ সভাপতির পিতার মৃত্যুতে মেয়র লিটনের শোকসুলতানগঞ্জ পোর্ট এ কাস্টমস কার্যক্রম চালুকরণ বিষয়ক সভামোহনপুর সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় এসএসসি পরীক্ষায় ঈর্ষণীয় সাফল্যমোহনপুরে শহীদ বুদ্ধিজীবী ও মহান বিজয় দিবস উদযাপন উপলক্ষে প্রস্তুতি সভামহাদেবপুরে সড়ক দুর্ঘটনায় মোটরসাইকেল আরোহীর মৃত্যুমেয়রের সাথে প্যারা কমান্ডো ব্রিগেডের কমান্ডারের সাক্ষাৎগোমস্তাপুরে এসএসসিতে জিপিএ-৫ পেয়েছে ৬২২ শিক্ষার্থীগোমস্তাপুরে বিজয় দিবস উপলক্ষে প্রস্তুতি সভা
Home >> >> পূর্বসূরিগণ কিভাবে রমজান কাটাতেন

পূর্বসূরিগণ কিভাবে রমজান কাটাতেন

হোছাইন আহমাদ আযমী : মানুষ অনুকরণপ্রিয় প্রাণী। অন্যকে দেখে শিখে, অন্যকে দেখে অনুপ্রাণিত হয়, উদ্বুদ্ধ হয়। আমাদের আকাবিরদের জীবনের দিকে তাকালে বুঝতে পারব তাঁদের রমজান এবং আমাদের রমজানের মধ্যে কী পার্থক্য। তাঁদেরকে দেখে আমরাও তাঁদের মতো রমজান কাটানোর চেষ্টা করতে পারব।

আমরা এতক্ষণ যেসব আলোচনা করলাম, আপনারা ভাবতেছেন এত ইবাদত কীভাবে করা সম্ভব? আকাবিরদের নমুনা আমাদের সামনে আছে। তাঁরাও তো আমাতের মতোই মানুষ ছিলেন। তাঁদেরও বিভিন্ন ঝামেলা ছিল, সমস্যা ছিল; তবুও তাঁরা কত সুন্দর রমজান কাটিয়েছেন।

রমজান মাস আকাবির ও আসলাফদের জীবনে বসন্ত নেমেত আসত। জিকির আজকার, তেলাওয়াত, তারাবি-তাহাজ্জুদ, নফল নামায, দান খয়রাত ইত্যাদি আমলে ব্যস্ত থাকতেন। কেমন ছিল তাঁদের রমজানের দিনলিপি, কীভাবে তাঁরা সময়যাপন করতেন চলুন একটু দেখে আসি।

হযরত হাজী এমদাদুল্লাহ মুহাজিরে মক্কীর রহ. হাজী সাহেব রহ. রমজান মাসে রাতের বেলা ঘুমোতেন না। রাতভর নিজে কুরআন মাজিদ তেলাওয়াত করে, নাতিনাতকুর বা অন্যান্য হাফেজদের তিলাওয়াত শুনে কাটিয়ে দিতেন।
এমদাদুল মুশতাক কিতাবে হযরত থানভী রহ. হযরত হাজী সাহেবের রমজানের মামুলাত সম্পর্কে নকল লিখেন, হযরত হাজী সাহেব বলেছেন, এই ফকির যুবক বয়স থেকেই অধিকাংশ রাত বিনিদ্র থেকেছি। বিশেষত রমজান মাসে রাত্রিবেলা বিছানায় পিঠ লাগাইনি।

রমজানে মাগরিবের পর আমার নাবালেগ দুই ভাতিজা, হাফেজ ইউসুফ ও হাফেজ আহমাদ হোছাইন দুজন আলাদাভাবে ইশা পর্যন্ত কুরআন শুনাতো। তারপর ইশার নামাযের পর আরো দুইজন হাফেজের পেছনে তারাবিতে কুরআন শুনতেন। ওদের পর আরেকজন হাফেজ অর্ধরাত পর্যন্ত কুরআন শুনাতো। তারপর তাহাজ্জুদে দাঁড়াতেন। দুইজন হাফেজ তাহাজ্জুদে কুরআন পড়ত। রমজানের রাতগুলো এভাবেই অতিবাহিত হয়েছে। (এমদাদুল মুশতাক)

হযরত গাঙ্গুহীর দিনরাতঃ

কুতুবে আলম হযরত রশীদ আহমদ গাঙ্গুহী রহ. মাগরিবের পর আউয়াবিন নামাযে দাঁড়িয়ে যেতেন। ছয় রাকাত নামায কোনোদিন বিশ রাকাতে গিয়ে শেষ হতো। দিনভর রোযা রেখে ইফতারের পর যখন শরীর দুমড়ে মুচড়ে আসে, ক্লান্তি চেপে ধরে, একটু আরাম করতে মন চায়, সেই তখন সব অলসতাকে পেছনে ফেলে তিনি জায়নামাযে দাঁড়িয়ে যেতেন। একাগ্রতার সঙ্গে নামায পড়তেন।

ছোটো সূরা দিয়ে পড়তেন না। দুই আড়াই পারা তেলাওয়াত করে ফেলতেন। রুকু-সিজদাগুলো হতো অত্যন্ত দীর্ঘ। এভাবে আউয়াবিন শেষ হতো।

আউয়াবিনের পর খাবার খেতে ঘরে যেতেন। যাওয়া-আসার মাঝেও তেলাওয়াত চলত। কখনও এক পারার বেশি তেলাওয়াত করে ফেলতেন! তারপর ইশার নামায এবং তারাবীর সময় হয়ে যেত। আবার দীর্ঘ সময় লাগিয়ে তারতিলের সাথে তারাবি পড়তেন। তারাবির পর সাড়ে দশটা বা এগারোটায় ঘুমোতে যেতেন। আড়াই-তিন ঘণ্টা ঘুমিয়ে আবার উঠে যেতেন। তাহাজ্জুদে দাঁড়াতেন। কখনো কখনো খাদেম তাঁকে রাত একটার সময় উঠে অজু করতে দেখত। তিনটা পর্যন্ত তাহাজ্জুদে মশগুল থাকতেন। আবার মাঝেমধ্যে সাহরির সময় কমে এলে কোনো খাদেম যদি ডাকতে যেতো, তাকে নামাযরত অবস্থায়ই দাঁড়ানো পেত। সাহরির পর ফজর পড়ে আর ঘুমাতে যেতেন না। আটটা সাড়ে আটটা পর্যন্ত তাসবিহ, বিভিন্ন অজিফা এবং মোরাকাবায় বা ধ্যানে মগ্ন থাকতেন। তারপর ইশরাকের নামায পড়ে বের হতেন। এবার গিয়ে ঘণ্টাদুয়েক বিশ্রাম করতেন।

কিছুক্ষণ পর রানার চিঠি দিয়ে যেত। হযরত গাঙ্গুহী রহ. চিঠির জবাব লিখতে বসতেন। এই সময়টায় ফতোয়া লেখানোর কাজেও ব্যয় করতেন। তারপর চাশতের নামায পড়ে আবার কিছুক্ষণ কায়লুলা করতেন। এই করে জোহরের সময় হয়ে যেত।

জোহরের পর ঘরের দরজা বন্ধ করে দিয়ে আছর পর্যন্ত তেলাওয়াতে মগ্ন থাকতেন। রমজানে সাধারণত প্রতিটি ইবাদত বৃদ্ধি পেত; কিন্তু অধিকহারে বৃদ্ধি পেতো কালামুল্লাহ শরীফের তেলাওয়াত। এতো অধিক পরিমাণে পড়তেন, ঘরে আসা-যাওয়া এবং নামায ও নামাযের বাইরে সব মিলিয়ে প্রতিদিন অর্ধেক কুরআনের বেশি পড়া হয়ে যেত।

দিনভর ইবাদত করে যখন কিছুটা ক্লান্ত হয়ে পড়তেন, তখন খাদেম বিনয়ের সঙ্গে বলতো, ‘হুজুর আজকের তারাবী বসে পড়লে ভালো হবে।’ খাদেমদের এই কথা শুনে তিনি বলতেন, ‘নেহি জি, তা হয় না; এটি কম হিম্মতের কথা। তারপরো যদি কিছু বলা হতো, তিনি বলতেন, আমি কি শোকরগুজার বান্দা হবো না? এই কথার পর আর উত্তর থাকে না।

তাযকিরাতুর রাশীদে হাকিম ইসহাক রহ. লিখেন, হযরত গাঙ্গুহী রহ. রমজানে খুব কম ঘুমোতেন। কম কথা বলতেন। অধিকাংশ সময় তেলাওয়াত, নফল নামায এবং জিকির-আজকারে ব্যয় করতেন।

তারাবির বিশ রাকাতের প্রথম অর্ধেক তিনি নিজে পড়াতেন। আর শেষ দশ রাকাত সাহেবজাদা মৌলভী হাফেজ হাকিম মাসউদ আহমাদ সাহেবের পেছনে পড়তেন। বিতরের নামাযের পর দুই রাকাত নামায পড়তেন। এই দুই রাকাত কখনো বসে পড়তেন, কখনো দাঁড়িয়ে পড়তেন। নামাযের কিয়াম দীর্ঘ সময় হতো। তারপর কেবলামুখী হয়েই সূরা মুলক সূরা সিজদাহ এবং সূরা দুখান তেলাওয়াত করতেন।

মাওলানা খলিল আহমাদ সাহারানপুরি রহ. মাওলানা জাকারিয়া কান্ধলবি রহ. বলেন, আমি স্বয়ং আমার শায়েখ আল্লামা খলিল আহমাদ সাহারানপুরি রহ. কে দেখেছি, তিনি বার্ধক্যের কারণে অতি দুর্বল হওয়া সত্তে¡ও রমজান মাসে মাগরিবের পর নফল নামাযে সোয়া পারা পড়তেন। তারপর আধা ঘণ্টা খানাপিনায় ব্যয় হতো। তারপর এশা ও তারাবির নামায পড়তেন প্রায় আড়াই ঘণ্টায়; তবে মদিনা যাবার পর প্রায় তিন ঘণ্টা সময় ব্যয় করে তারাবি পড়তেন।

তারপর কিছু সময় আরাম করে তাহাজ্জুদে দীর্ঘ সময় তেলাওয়াত করতেন। সুবহে সাদিকের আধা ঘণ্টা পূর্বে সাহরি খেয়ে ফজর পর্যন্ত তেলাওয়াতে লিপ্ত থাকতেন।

ফজর নামায পড়ে এশরাক পর্যন্ত মোরাকাবায় লিপ্ত থাকতেন। এশরাকের পর এক ঘন্টা আরাম করে বেলা বারোটা পর্যন্ত বিখ্যাত ‘বজলুল মাজহুদ’ গ্রন্থটি লিখতেন এবং চিঠিপত্রের উত্তর লিখতেন জোহরের পর থেকে আছর পর্যন্ত তেলাওয়াত এরপর মাগরিব পর্যন্ত তাছবীহ পাঠে লিপ্ত হতেন। নফল নামায সারা বছর আদায় করতেন তবে রমজানে লম্বা রাকাআতে আদায় করিতেন।

মহিমান্বিত রমজান। রমজান ইবাদতের মাস। কুরআন তেলোয়াতের মাস। রমজানে আল্লাহ ও আল্লাহর প্রিয় বান্দাদের মিলনমেলার মাস।

ইবাদত মাগফিরাত নাজাত আর রহমতের মাস রমজান। রমজান মাস কুরআন নাজিলের মাস। এ মাসে কুরআনে পাকের সঙ্গে প্রতিটি মুমিনের সর্বাধিক সম্পর্ক থাকা প্রয়োজন।

কুরআন বিশুদ্ধভাবে শেখা, কুরআনের তিলাওয়াত, তরজমা, তাফসির ও কুরআন পাকের বিধান প্রতিষ্ঠা, দা’ওয়াত ইত্যাদির মাধ্যমে কুরআনি জীবন গঠনের দাবি ছিল অপরিহার্য।

অন্তত কুরআনে কারিম তিলাওয়াতের মাধ্যমে আত্মশুদ্ধি অর্জন এবং আল্লাহ তাআ’লার সঙ্গে নিবিড় সম্পর্ক স্থাপনের এটাই সুবর্ণ সুযোগ।

আমরা আজকাল রমজানে ইবাদতের মধ্য দিয়ে কাটানোর থেকে ব্যস্ততায় লিপ্ত হয়ে যায়।

অথচ আমাদের আকাবিরদের জীবনের দিকে লক্ষ্য করলে দেখতে পাই তার রমজানে আল্লাহর রঙে রঙ্গীন হতেন এ মহিমাময় মাসে।

ইমাম আজম আবু হানিফা রহ.-এর কথা প্রসিদ্ধ আছে তিনি রমজান মাসে ৬১ খতম তিলাওয়াত করতেন।

আমাদের মুরব্বী হযরত শায়খুল হাদিস যাকারিয়া রহ. তারাবিতে সোয়া পারা শোনাতেন, সাহরি পর্যন্ত তরজমাসহ তা পড়তেন চার-পাঁচ বার। সে অংশটুকু তাহাজ্জুদের সময় শোনাতেন দু’বার। সাহারি খাওয়ার পর ফজরের নামাযের আগে এবং পরে ঘুমানোর আগে সে অংশটুকু একবার তিলাওয়াত করতেন।

সকাল দশটার দিকে ঘুম থেকে ওঠে শীতের দিনে চাশতের নামাযে একবার এবং গরমের দিনে দু’বার তিলাওয়াত করতেন। জোহরের নামাযের পনের মিনিট আগে দেখে দেখে দু’বার তিলাওয়াত করতেন। জোহরের নামাযের ফরজের আগে সুন্নতে দু’বার, পরের সুন্নতে একবার তিলাওয়াত করতেন। জোহরের নামাযের পর বন্ধুদের কাউকে একবার শোনাতেন।

আসরের নামাযের আগে দু’ বা একবার পড়তেন। আসরের পর বয়স্ক কাউকে একবার শোনাতেন। মাগরিবের নামাযের পর নফল নামাযে সে শোয়া পারা আরেক বার তিলাওয়াত করতেন।

এটা তার প্রতিদিনের আমল ছিল। (শায়খ যাকারিয়্যা রহ. এ আত্মজীবনী) হজরত খলিল আহমদ সাহারানপুরী রহ. বাদ মাগরিব নফলে সোয়া পারা তিলাওয়াত করতেন। আর তাহাজ্জুদে করতেন সাধারণত দু’ পারা। তারাবি তো আমৃত্যু তিনি নিজেই পড়াতেন।

কুতুবে আলম হজরত রশিদ আহমদ গাঙ্গোহী রহ. বাদ মাগরিব আওয়াবিনে দু’ পারা ও তাহাজ্জুদসহ দৈনিক অর্ধ খতম কুরআন তিলাওয়াত করতেন।

আল্লামা কাসিম নানুতুবী রহ. ১২৭৭ হিজরিতে মক্কা-মদিনা সফরকালে রমজান মাসে কুরআন পাক মুখস্থ করেছিলেন।

এরপর থেকে তিনি বেশি বেশি তিলাওয়াত করতেন। একবার তিনি এক রাকাতে সাতাশ পারা তিলাওয়াত করেছিলেন।

হাজী এমদাদুল্লাহ মক্কি রহ. সারা রাত বিভিন্ন হাফেজদের থেকে পালাক্রমে নামাযে তিলাওয়াত শুনতেন।

হযরত শাহ আবদুর রহিম রায়পুরী রহ. হাফেজে কুরআন ছিলেন। প্রায় সারারাত কুরআন তিলাওয়াত করতেন। চব্বিশ ঘণ্টায় তিনি শুধু এক ঘণ্টা ঘুমাতেন।

শায়খুল হিন্দ মাহমুদুল হাসান দেওবন্দি রহ. হাফেজ ডেকে নামাযে সারারাত কুরআন শরিফ শুনতেন। তারাবিতে কখনও ছয় পারা, কখনও দশ পারা পড়া হতো।

শায়খুল ইসলাম হযরত হুসাইন আহমদ মাদানি রহ. বাদ আসর দারুল উলূম দেওবন্দের শিক্ষক হাফেজ-মাওলানা আবদুল জলিল রহ.-এর সঙ্গে সোয়া পারা পরস্পর শোনাতেন।

হযরত মাওলানা ইয়াহইয়া রহ. রমজান মাসে দৈনিক চল্লিশ পারা তিলাওয়াত করতেন।

আল্লামা তোফাজ্জল হক হবিগঞ্জী রহ. রমজানের ২০ রাকাত তারাবি পর সোজা রুমে চলে যেতেন। অল্প সময় বিশ্রাম নিয়ে তাহাজ্জুদের জন্য প্রস্তুত হতেন। দুই তিনজন কোরআনে হাফেজকে পিছনে রেখে তাহাজ্জুদের ইমামতি নিজেই করতেন।

প্রথম রাকাতে এক পারা তেলাওয়াত করতেন। দুই রাকাতে দুই পারা তেলাওয়াত করতেন। সাথে সাথে চোখের পানি বুক পর্যন্ত পৌছে যেতো।জাহান্নমের কোন আয়াত আসলে শব্দ করে কান্না করতেন। দোয়ার আয়াত আসলে বারেবারে তেলাওয়াত করতেন ।এমনভাবে তেলাওয়াত করতেন যেন এই মাত্র কোরআন অবতীর্ণ হচ্ছে।

এতো সুমধুর কন্ঠে তেলাওয়াত করতেন যা গত রমজানে ও ধারাবাহিকতায় জারী ছিল। এই রমজানে মাওলার সান্নিধ্যে। জীবনে অনেক তেলাওয়াত শুনেছি কিন্তু হবিগঞ্জী হুজুরের তেলাওয়াতের মত বিরল নয়।

প্রিন্সিপ্যাল হাবিবুর রহমান রহ. রমজানের রাতে কখনো ঘুমাতেন না। সারা রাত ইবাদতে মগ্ন থাকতেন।ফজর পরে এশরাক পর্যন্ত ধ্যান করতেন, এরপর এশরাক পরে সকাল দশটা পর্যন্ত বিশ্রাম নিতেন।

প্রশান্তির সাথে অজু গোসল সেরে জোহর পর্যন্ত তেলাওয়াত করতেন। এরপর মাদ্রাসায় এসে কিছু সময় পত্রিকায় চোখ বুলাতেন। দামী আতর খুব পছন্দ করতেন।

বিশেষ করে রমজানে বেশি ব্যবহার করতেন। জোহরের নামাযের পূর্বে মসজিদে গিয়ে তাহাইয়াতুল মসজিদ দুই রাকাত আদায় করে সুন্নত ও তাছবীহে রত হতেন। নামায পড়ে আছরের আধা ঘণ্টা পূর্বে পর্যন্ত তেলাওয়াত করতেন।

তারপর একটু আরাম করে আছর নামায পড়ে তেলাওয়াত লোকদের কে শুনাতেন। এরপর তাসবীহ আদায়, ইফতার তৈরির কাজ করতেন। বড় থালে ইফতারের আয়োজন করা হতো। উনি নিজেই ইফতারের তদারকি করতেন।

নিজ সন্তানদের কে বাসায় ইফতার না করে মাদ্রাসায় সবার সাথে ইফতার করতে তাকীদ দিতেন। এরপর মাগরিব নামায, সুন্নাত, আওয়াবীন আদায় করে এশা পর্যন্ত বিশ্রাম নিতেন।

এশার নামায, তারাবিহ, বিতর নামায ধীরস্থির ভাবে আদায় করে সমবেত মুসল্লিদেরকে নিয়ে কিতাব থেকে তালিম দিতেন এবং সমসাময়িক মাসআলাহ মাসায়িল নিয়ে আলোচনা করতেন।

এরপর মাওলার কাছে দোয়া করতেন।তিনি রমজানের শেষ দশকে ইতেকাফ করতেন এবং ইতেকাফরত অবস্থায় আগত মুসল্লিদের খোঁজ খবর নিতেন। ইন্তিকালের দুই বছর অসুস্থতার জন্য ইতেকাফ করতে পারেনি।

ফলে হৃদয় খরনে শিশুর মতো কাঁদতেন। রমজান মাসে হুজুর বেশি দান সদকা করতেন। যদিও জীবিতাবস্থায় জানা না গেলেও ইন্তিকালের পর অনেকেই স্বীকার করছেন। আকাবিরদের জন্য ছিল অগাধ ভালবাসা ।তাই রমজানের দোয়ায় তাদের মর্যাদা বৃদ্ধির জন্য চিৎকার করে কাঁদতেন।

এছাড়া ও বরুনার পীর সাহেব, শায়খুল হাদিস আল্লামা আজিজুল হক সাহেব, মাওলানা মুহাম্মদ ইদ্রিস শায়েখে স›দ্বীপি সাহেব, মুফতি আমিনী রহ. মরহুম চরমোনাই পীর, গহরপুরী সাহেব রহ ,ও বাঘার শেখ সাহেব আল্লামা শাহ আহমাদ শফি সাহেব রহিমাহুমুল্লাহসহ দেশের বরেণ্য বুজুরগানে দ্বীনের রোযা, ইফতার, তারাবিহ, তাহাজ্জুদে তেলাওয়াত ইতিহাসের পাতায় স্বর্ণাক্ষরে লিপিবদ্ধ আছে।

তারা কিভাবে রমজান মাস অতিবাহিত করতেন আর আমরা কিভাবে রমজানের সময় গুলো পার করছি।তারা রমজান মাস গনীমত মনে করে সারা রমজান ইবাদতে কাটাতেন।

এসব বুজুর্গের আদর্শ চরিত্র শুধু বাহ্যিক দৃষ্টিতে পড়া বা দেখার জন্য লিপিবদ্ধ করা হয়নি বরং যেন আমরা প্রত্যেকেই সাধ্যমত তাদের পথে, তাদের মতে চলতে পারি।

যারা দুনিয়ার বিভিন্ন ঝামেলা থেকে মুক্ত, তাদের জন্য কী অপূর্ব সুযোগ নয় যে, তারা বছরের এগারোটি মাস বৃথা নষ্ট করে রহমতের মাসে আপ্রাণ চেষ্টা করে মরিয়া হয়ে জীবন পণ করে আল্লাহর রহমতের আশা করবে। রমজান মাস টাকে অপচয় সময় পার না করে যাতে রবের সান্নিধ্য অর্জন করতে পারি।

আজ তৃতীয় দফা লকডাউনের প্রথম দিন, গত দুই সপ্তাহের শেষ দিকে ছিল কড়াকড়ি, সামনে আরো কঠোর হুঁশিয়ারি।

লেখক : হোছাইন আহমাদ আযমী, রাজশাহী।

ধূমকেতু নিউজের ইউটিউব চ্যানেল এ সাবস্ক্রাইব করুন

প্রিয় পাঠকবৃন্দ, স্বভাবতই আপনি নানা ঘটনার সাক্ষী। শেয়ার করুন আমাদের। যেকোনো ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের ইমেলে পাঠিয়ে দিন এই ঠিকানায়। নিউজ পাঠানোর ই-মেইল : dhumkatunews20@gmail.com. অথবা ইনবক্স করুন আমাদের @dhumkatunews20 ফেসবুক পেজে । ঘটনার স্থান, দিন, সময় উল্লেখ করার জন্য অনুরোধ করা হলো। আপনার নাম, ফোন নম্বর অবশ্যই আমাদের শেয়ার করুন। আপনার পাঠানো খবর বিবেচিত হলে তা অবশ্যই প্রকাশ করা হবে ধূমকেতু নিউজ ডটকম অনলাইন পোর্টালে। সত্য ও বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ নিয়ে আমরা আছি আপনাদের পাশে। আমাদের ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করার জন্য অনুরোধ করা হলো Dhumkatu news