IMG-LOGO

শনিবার, ২৮শে জানুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ, ১৪ই মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

× Education Board Education Board Result Rajshahi Education Board Rajshahi University Ruet Alexa Analytics Best UK VPN Online OCR Time Converter VPN Book What Is My Ip Whois
নিউজ স্ক্রল
দুর্নীতিগ্রস্থ বিচারকদের ছেটে ফেলা হবে : প্রধান বিচারপতিব্র্যাকের আলু বীজ কিনে হতাশায় কৃষকরা, পায়নি ক্ষতিপূরণতানোরে নিম্মমানের ড্রেন নির্মাণ, রাস্তা সংস্কারের নামে হরিলুটজনসভায় ৫-৭ লাখ মানুষের জনসমাগম হবে : লিটনচাঁপাইনবাবগঞ্জ-২ আসনে উপনির্বাচন, নাচোলে নৌকার জনসভাঅপরাধীরা পুলিশের চেয়ে এক ধাপ এগিয়ে থাকতে চায়ইউক্রেনে যুক্তরাষ্ট্রের ট্যাংক পাঠানোর ঘোষণায় যা বললেন কিমের বোনবায়ুদূষণে টানা আট দিন শীর্ষে ঢাকারাজশাহী জেলা পুলিশের অভিযানে আটক ৪মহাদেবপুরে ২০০ অসহায় মানুষের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণরাজশাহীতে আরএমপি পুলিশের অভিযানে আটক ২৭ভারতে ২৪ ঘন্টায় তিন বিমান বিধ্বস্তলালপুরে বোমা কালামকে কুপিয়ে হত্যাঝালকাঠিতে কাভার্ডভ্যান চাপায় দুই মোটরসাইকেল আরোহীর মৃত্যুমোহনপুরে গলায় ফাঁস দিয়ে যুবকের আত্মহত্যা
Home >> >> বদলগাছীতে স্কুলের মালামাল চুরি ও লুটপাটের অভিযোগ শিক্ষক ও দপ্তরীর বিরুদ্ধে

বদলগাছীতে স্কুলের মালামাল চুরি ও লুটপাটের অভিযোগ শিক্ষক ও দপ্তরীর বিরুদ্ধে

ধূমকেতু প্রতিবেদক, বদলগাছী : নওগাঁর বদলগাছী উপজেলার বিলাশবাড়ী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আফতাব হোসেনকে দায়িত্বভার না বুঝিয়ে দিয়ে বাঁধাপ্রদান, বিদ্যালয়ের দলিলসহ জমি বন্ধক ও বিভিন্ন মালামাল চুরিসহ নানাভাবে হেনেস্থা করার অভিযোগ উঠেছে বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক এ টি এম আব্দুল্লাহ ও তার ছোট ভাই দপ্তরী বুলবুল হোসেন এর বিরুদ্ধে। এসব ঘটনার সুষ্ঠু সমাধান চেয়ে উপজেলা শিক্ষা অফিসার বরাবর একটি লিখিত অভিযোগ করেছেন স্কুলের প্রধান শিক্ষক। অভিযোগ করেও কোন প্রতিকার পাচ্ছেনা।

অভিযোগ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, বিলাশবাড়ী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক এ টি এম আব্দুল্লাহ গত ২২.০৩.২০১৯ ইং সাল পর্যন্ত ঐ স্কুলের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক হিসেবে দায়িত্বে ছিলেন। সরকারি বিধি মোতাবেক কোন বিদ্যালয়ে শুন্য পদে প্রধান শিক্ষক যোগদান করলে সাথে সাথে তাকে সকল প্রকার মালা-মাল, নথিপত্র, ফাইল, রেকর্ড ও তালাচাবিসহ সব কিছু বুঝিয়ে দেওয়ার নিয়ম রয়েছে। কিন্তু যোগদানের পর সহকারী শিক্ষক তাঁকে সব কিছু না বুঝিয়ে দিয়ে তার ইচ্ছা মতো সব কিছু করতে থাকেন। বিভিন্ন ভাবে প্রধান শিক্ষকের উপর মানসিক নির্যাতন ও অত্যাচার শুরু করেন তিনি। কোন ভাবেই সে দায়িত্বভার ছাড়তে রাজি নয়। এলাকার অবিভাবক ও বিভিন্ন শিক্ষক এর কাছে থেকে প্রধান শিক্ষক জানতে পারেন আব্দুল্লাহর একটি সিন্ডিকেট নেটওর্য়াক আছে, কোন প্রধান শিক্ষক এ বিদ্যালয়ে যোগদান করলেও তার অত্যাচারে সবোর্চ্চ ৬মাসের মধ্যে বদলী নিয়ে অন্যত্র চলে যায়। এই সিন্ডিকেটের মূল শিক্ষক আব্দুল্লাহ এখন পর্যন্ত বিলাশবাড়ী সরকারি প্রাথমিক কিদ্যালয়ের কখনো সরকারী শিক্ষক আবার কখনো প্রধান শিক্ষক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন।

প্রধান শিক্ষক হিসেবে যোগদানের পর দীর্ঘ ৫মাস তার বিরুদ্ধে এক প্রকার যুদ্ধ করে কিছুদিন পূর্বে একটি স্টক রেজিষ্টার, কিছু মালা-মাল ও নথিপত্র দায়সাড়া ভাবে বুঝিয়ে দেয়। কিন্তু বিদ্যালয়ের গুরুত্বপূর্ণ নথিপত্র, ফাইল, রেকর্ড ও আলমিরাসহ সকল প্রকার তালাচাবি নিজের কাছে রেখে দেয়। ওই সহাকারী শিক্ষক এর বাড়ি একই গ্রামে (বিলাশবাড়ী) এবং তার ছোট ভাই বিদ্যালয়ের দপ্তরী কাম নৈশ্য প্রহরী পদে রয়েছে। দুই ভাই মিলে প্রভাব বিস্তার করে বিদ্যালয়ের সম্পদ চুরি এবং ক্ষতি সাধন করে যাচ্ছে। প্রধান শিক্ষকের কোন নিষেধ-বারন শোনেনা তারা এবং সঠিক ভাবে দায়িত্ব পালন করেনা।

গভীর রাত পর্যন্ত বিদ্যালয়ে নৈশ্য প্রহরী তার বন্ধু ও পরিচিতদের নিয়ে আড্ডা দেয়। বিদ্যালয়ে ছাদে বন্যা দুর্গত মানুষদের জন্য সরকার কৃর্তক আশ্রয়কেন্দ্র নির্মাণ করা হয়েছিল। পরবর্তীতে সংস্কারের অভাবে অকেজো হয়ে যায় সেটি। আশ্রয় কেন্দ্রটি নির্মণের সময় ২০মিলি, ১৫মিলি, ১০মিলি রড, স্টিলের ২০ফিট পাইব, প্লাষ্টিকের ২০ফিট পাইবসহ অন্যান্য উপকরণ ব্যবহার করা হয়। পরবর্তীতে আশ্রয়কেন্দ্রটি পুরাতন হয়ে গেলে পূর্বের প্রধান শিক্ষকগন ও এসএমসি কমিটির লোকজন মালামালগুলির হিসাব সংরক্ষণ করে ষ্টোরে রাখে।

পরবর্তীতে করোনা কালীন সময়ে স্কুল বন্ধ থাকার কারনে সকারী শিক্ষক ও তার ভাই দপ্তরী মালামালগুলো রাতের অন্ধকারে বিক্রি করে দেয়। বিদ্যালয়ের ২০১৯ সালের পূর্বের রেকর্ডপত্র, নথিপত্র, ফাইলপত্র অফিস কক্ষের আলমিরা থেকে চুরি করে নিয়ে বাড়িতে রেখেছে। উদ্দেশ্য প্রধান শিক্ষককে ফাঁসানো ও হেনেস্থা করা। বিদ্যালয়ের জমির দলিল ও বিদ্যালয়ের জমি অন্যোর কাছে টাকার বিনিময়ে বন্দক রেখেছে। জমির কোন কাগজপত্র না থাকায় জমি বে-দখল হয়েছে। কোন প্রকার খারিজ করা যাচ্ছেনা। শ্রেণীকক্ষের ৩২টি বেঞ্চ চুরি করা হয়েছে, পানির মোটর, সেলিং ফ্যান, ইলেকট্রিক সুইজ, বাল্ব, তালাচাবি নষ্ট করা হয়েছে হয়রানি ও টাকা খরচ করানোর জন্য। বিভিন্ন ইস্যু তৈরি করে এলাকার বখাটে ছেলেদের দিয়ে পাঠদানে বাঁধা সৃষ্টি করে মানসিক নির্যাতন ও হেনেস্তার সৃষ্টি করছে। বর্তমানে উন্নয়ন মূলক কাজের সকল প্রকার অর্থ যৌথ হিসাব নং (ব্যাংকে একাউন্টে) জমা আছে। টাকা উত্তোলনের অভাবে কাজ করা যাচ্ছেনা। বিদ্যালয়ের সভাপতি ও সহ সভাপতি চেকে স্বাক্ষরের জন্য ২০হাজার টাকা ঘুষ দাবি করে। গত বছরও একই ভাবে চেক সহি না করে উপজেলা শিক্ষা অফিসে অভিযোগ করেন এই সভাপতি পরে মোটা অংকের অর্থ নিয়ে সেটি আপস করেছিলেন। এমন পরিস্থিতিতে গত জুলাই মাসের ১৭তারিখে উপজেলা শিক্ষা অফিসার এর কাছে অভিযোগ জানালেও কোন সুরাহা করা হয়নি। তাদের উদ্দেশ্য হচ্ছে তাদের ভয়ে ও অত্যাচারে অতিষ্ঠ হয়ে যেন প্রধান শিক্ষক অন্যত্র বদলি নিয়ে চলে যায়।

অভিযোগকারী প্রধান শিক্ষক আফতাব হোসেন বলেন, দীর্ঘ ২০বছর ধরে সহাকারী শিক্ষক এ টি এম আব্দুল্লাহ এই স্কুলে কর্মরত আছেন। এখানে কোন প্রধান শিক্ষককে তিনি টিকতে দেননা। এর আগেও বেশ কয়েকজন প্রধান শিক্ষক তার অত্যাচারে অন্যত্র বদলী নিয়ে চলে গেছেন। তার উদ্দেশ্যই হচ্ছে কোন প্রধান শিক্ষক না থাকলে সিনিয়র হিসেবে সে প্রধান শিক্ষকের দাযিত্বভার গ্রহণ করে বিদ্যালয়ের সম্পদ লুটপাট করে খেতে পারবে। আমি যেসব অভিযোগ করেছি তার সবগুলোর সঠিক। তদন্ত করলেই তাদের অনিয়ম ও দুর্নীতি বেড়িয়ে আসবে।

অভিযোগের বিষয়ে বিদ্যালয়ের দপ্তরী বুলবুল হোসেন বলেন, আমার বিরুদ্ধে যে সব অভিযোগ করা হয়েছে। তা মিথ্যা ও বানোয়াট। আমি বিদ্যালয়ের কোন মালামাল চুরির সাথে জড়িত নয়। অভিযোগ পত্রে উল্লেখিত সকল মালামাল বিদ্যালয়ের ষ্টোররুমে সংরক্ষিত আছে।

অভিযুক্ত সহকারী শিক্ষক এ টি এম আব্দুল্লাহ বলেন, প্রধান শিক্ষকই নানাভাবে আমাদের হেনেস্থা করছেন। প্রধান শিক্ষক হওয়ার কারনে যা মন চায় সেটাই করে। আমাদের অবগত না করেই স্কুলের সকল কাজে নিজেই সিন্ধান্ত নেয়। আমরা মাঝে মধ্যে এসবের প্রতিবাদ করি। এই কারনে হয়তো উদ্দেশ্য প্রনোদিতভাবে আমাদের বিরুদ্ধে এসব অভিযোগ করেছেন।

বিদ্যালয়ের ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি শাম্মী আকতার অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, প্রধান শিক্ষকের কাছে থেকে চেকে সই করার জন্য আমি ও সহ সভাপতি আসলাম হোসেন ঘুষ দাবি করেছি এটা সঠিক নয়। তিনিই ( প্রধান শিক্ষক) স্কুলের নানা কাজে নিজেই সিন্ধান্ত গ্রহণ করে থাকেন। গত বছরও একইভাবে প্রধান শিক্ষকের নামে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসে মিথ্যা অভিযোগ করে অর্থ নিয়ে সেটি মিমাংসা করেছেন বলে পশ্ন করলে তিনি বিষয়টি এরিয়ে যান।

উপজেলা প্রথমিক শিক্ষা অফিসার ফজলুর রহমান বলেন, বিলাশবাড়ী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের বিষয়ে অভিযোগটি জেলা শিক্ষা অফিসার বরাবর দিয়েছিলো। জেলা শিক্ষা অফিস হতে চিঠি হাতে পেয়েছি। তদন্ত করে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করব।

ধূমকেতু নিউজের ইউটিউব চ্যানেল এ সাবস্ক্রাইব করুন

প্রিয় পাঠকবৃন্দ, স্বভাবতই আপনি নানা ঘটনার সাক্ষী। শেয়ার করুন আমাদের। যেকোনো ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের ইমেলে পাঠিয়ে দিন এই ঠিকানায়। নিউজ পাঠানোর ই-মেইল : dhumkatunews20@gmail.com. অথবা ইনবক্স করুন আমাদের @dhumkatunews20 ফেসবুক পেজে । ঘটনার স্থান, দিন, সময় উল্লেখ করার জন্য অনুরোধ করা হলো। আপনার নাম, ফোন নম্বর অবশ্যই আমাদের শেয়ার করুন। আপনার পাঠানো খবর বিবেচিত হলে তা অবশ্যই প্রকাশ করা হবে ধূমকেতু নিউজ ডটকম অনলাইন পোর্টালে। সত্য ও বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ নিয়ে আমরা আছি আপনাদের পাশে। আমাদের ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করার জন্য অনুরোধ করা হলো Dhumkatu news