IMG-LOGO

মঙ্গলবার, ২৯শে নভেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ১৪ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

× Education Board Education Board Result Rajshahi Education Board Rajshahi University Ruet Alexa Analytics Best UK VPN Online OCR Time Converter VPN Book What Is My Ip Whois
নিউজ স্ক্রল
রাজশাহী বঙ্গবন্ধু কলেজে ‘হিসাবের আড্ডা’র সভাগণিত অলিম্পিয়াড ফাইনাল রাউন্ডে উত্তীর্ণ বাউয়েট শিক্ষার্থী সৌরভরায়গঞ্জে শীতকালীন সবজির দাম কমলেও আশানুরুপ নেই ক্রেতালালপুরে বনিক সমিতির সভাপতিকে গ্রেপ্তারের প্রতিবাদে মানববন্ধনশিবগঞ্জে ভুটভুটির ধাক্কায় প্রাণ গেল মোটরসাইকেল আরোহীরনক আউটে ব্রাজিলবিএনপি উশৃঙ্খলতা করলে বরদাশত করা হবে না : লিটন১১নং ওয়ার্ড আ.লীগ সভাপতির পিতার মৃত্যুতে মেয়র লিটনের শোকসুলতানগঞ্জ পোর্ট এ কাস্টমস কার্যক্রম চালুকরণ বিষয়ক সভামোহনপুর সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় এসএসসি পরীক্ষায় ঈর্ষণীয় সাফল্যমোহনপুরে শহীদ বুদ্ধিজীবী ও মহান বিজয় দিবস উদযাপন উপলক্ষে প্রস্তুতি সভামহাদেবপুরে সড়ক দুর্ঘটনায় মোটরসাইকেল আরোহীর মৃত্যুমেয়রের সাথে প্যারা কমান্ডো ব্রিগেডের কমান্ডারের সাক্ষাৎগোমস্তাপুরে এসএসসিতে জিপিএ-৫ পেয়েছে ৬২২ শিক্ষার্থীগোমস্তাপুরে বিজয় দিবস উপলক্ষে প্রস্তুতি সভা
Home >> >> চারঘাটের ছয় ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে আ.লীগের বিদ্রোহী ১১ জন

চারঘাটের ছয় ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে আ.লীগের বিদ্রোহী ১১ জন

ধূমকেতু প্রতিবেদক, চারঘাট : আগামী ২৬ ডিসেম্বর ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনকে ঘিরে রাজশাহীর চারঘাটে আওয়ামী লীগের প্রতিপক্ষ হয়ে দাড়িয়েছে আওয়ামী লীগ। চেয়ারম্যান পদে নৌকার বিরোধীতা করে উপজেলার ৬টি ইউনিয়নের মধ্যে ৪টি ইউনিয়নেই বিদ্রোহী রুপে মাঠে নেমেছেন আওয়ামীলীগ সমর্থক হিসেবে ১১ জন চেয়াম্যান প্রার্থী। 

অপর দুই ইউনিয়নেও আওয়ামী লীগের বেশ কয়েকজন নেতা গোপনে ও প্রকাশ্যে নৌকার বিরোধীতায় মেতে উঠেছেন। তবে শেষ সময়েও অনেক চেষ্টার পরেও নৌকার বিরোধীতাদের মাঠ থেকে সরাতে পারেনি সিনিয়র নেতৃবৃন্দ। এতে তৃনমুল আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের মাঝে বিভেদ অনেকটা স্পষ্ট। তবে উপজেলা আওয়ামী লীগের দাবি দলের ভিতরে কোন বিভেদ নেই। যারা নৌকার বিরোধীতা করছেন তাদের চিহিৃত করে গঠনতন্ত্র মোতাবেক দ্রুত ব্যবস্থা নেয়ার জন্য কেন্দ্রে সুপারিশ করা হবে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, আগামী ২৬ ডিসেম্বর চারঘাট উপজেলার ৬টি ইউনিয়নে ইউপি নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। এ নির্বাচনকে ঘিরে সরকার দলীয় আওয়ামী লীগসহ অন্যান্য দল অংশ গ্রহণ করলেও বিএনপি অংশ গ্রহণ থেকে বিরত রয়েছে। তবে দলীয় ভাবে মনোনীত না হলেও স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে ভোট যুদ্ধে অংশ গ্রহণ করছে বিএনপি সমর্থক হিসেবে প্রার্থীরা।

নির্বাচন অফিস সূত্রে জানা গেছে, আগামী ২৬ ডিসেম্বর নির্বাচনকে কেন্দ্রে করে চেয়ারম্যান পদে ২৩ জন, সাধারণ সদস্য পদে ২২৩ জন এবং সংরক্ষিত নারী সদস্য পদে ৭৮ জন প্রার্থী অংশগ্রহণ করবেন। ৬ টি ইউনিয়ন ভোটার সংখ্যা ১ লাখ ৪০ হাজার ১১৭ জন। এর মধ্যে পুরষ ভোটার ৭০ হাজার ৫৩৪ জন এবং নারী ভোটার ৬৯ হাজার ৫৮৪ জন।

এ দিকে আওয়ামী লীগ উপজেলার ৬টি ইউনিয়নে দলীয় প্রার্থী ঘোষনা করলেও শেষ পর্যন্ত ৪টি ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের প্রতিপক্ষ হয়ে ভোট যুদ্ধে মাঠে প্রতিদন্দীতা করছেন আওয়ামী লীগ সমর্থক হিসেবে পরিচিতি ১১জন বিদ্রোহী চেয়ারম্যান প্রার্থী। আর এসব বিদ্রোহীদের পক্ষে প্রকাশ্যে ও গোপনে নির্বাচণী মাঠে নৌকার বিরোধীতায় মাঠে রয়েছেন প্রভাবশালী কয়েকজন নেতা। ফলে এখন আওয়ামী লীগের প্রতিপক্ষ হয়ে নির্বাচনী মাঠে দৌড়ঝাপ করছেন নৌকার বিরোধীতারা। উপজেলার ৬টি ইউনিয়ন ঘুরে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মী ও সমর্থকদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে এমন চিত্র।

উপজেলা সদর ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে প্রতিদন্দীতা করছেন তিন জন। 

এরা হলেন, আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকার প্রার্থী সাবেক চেয়ারম্যান ফজলুল হক, তার প্রতিপক্ষ হয়ে বিদ্রোহী রুপে মাঠে রয়েছেন আওয়ামী লীগ সমর্থক হিসেবে পরিচতি তোতা মিয়া (মোটরসাইকেল) এবং স্বতন্ত্র হিসেবে মাঠে লড়ছেন বিএনপির সমর্থক হিসেবে পরিচতি বর্তমান চেয়ারম্যান মোজাম্মেল হক (আনারস)। ভায়ালক্ষিপুরে সরকার দলীয় মনোনীত নৌকার প্রার্থী সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুল মজিদ সরকার এবং তার প্রতিপক্ষ হিসেবে নির্বাচণী মাঠে রয়েছেন ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি আমিনুল হক (আনারস)। 

নিমপাড়া ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের টিকেট নিয়ে নৌকার মাঝি হিসেবে লড়ছেন বর্তমান চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ মনিরুজ্জামান, তার প্রতিপক্ষ হয়ে মাঠ কাপিয়ে বেড়াচ্ছেন নিজ দলের বিদ্রোহী প্রার্থী উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম সম্পাদক মহিদুল ইসলাম (মোটরসাইকেল) ও আওয়ামী লীগ সমর্থক হিসেবে পরিচতি হাবিবুর রহমান (আনারস) এবং বিএনপির সাবেক ছাত্রদল নেতা মিজানুর রহমান (চশমা)। শলুয়া ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে প্রতিদন্দিতা করছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি আবুল কালাম আজাদ (নৌকা), প্রতিপক্ষ হয়ে মাঠে রয়েছেন নিজ দলের বিদ্রোহী প্রার্থী আব্দুল গাফ্ফার হোসেন (আনারস) ও আল্লামা আবুল বাশার রায়হানুল হক দারা (ঘোড়া)। এছাড়াও শলুয়া ইউনিয়ন জামায়াতের আমীর আবুল কালাম আজাদ লড়ছেন (আনারস) প্রতীকে। 

এদিকে, বিএনপির হয়ে মাঠে রয়েছেন বর্তমান চেয়ারম্যান উপজেলা বিএনপির সহসভাপতি জিয়াউল হক মাসুম (মোটরসাইকেল)। ইউসুফপুর ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের টিকেটে চেয়ারম্যান প্রতিদন্দীতা করছেন বর্তমান চেয়ারম্যান ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি শফিউল আলম রতন নৌকা) এবং তার প্রতিপক্ষ হয়ে নির্বাচনী মাঠে শক্ত অবস্থান নিয়ে বিদ্রোহী রুপে মাঠে লড়ছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আরিফুল ইসলাম মাখন (ঘোড়া)। 

অপরদিকে কোন রাজনৈতিক পরিচয় না থাকলেও স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মাঠে রয়েছেন বিশিষ্ট সমাজ সেবক রমজান আলী (মোটরসাইকেল)। সরদহ ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের টিকেট নিয়ে মাঠে রয়েছেন বর্তমান চেয়ারম্যান সাবেক ছাত্রলীগ নেতা হাসানুজ্জামান মধু (নৌকা)। এ ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের প্রতিপক্ষ ওয়ার্কাস পার্টির সাবেক চেয়ারম্যান মতিউর রহমান তপন (হাতুরী)। 

তবে সরদহ ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী কোন প্রার্থী না থাকলেও প্রকাশ্যে নৌকার বিরোধীতায় মাঠে রয়েছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সহ সভাপতি এ্যাডভোকেট টিপু সুলতান, সরদহ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ইসরাইল হোসেন, সাধারণ সম্পাদক খলিলুর রহমান, উপজেলা কৃষকলীগের সভাপতি আশরাফুজ্জামান, ইউনিয়ন কৃষকলীগের সাধারণ সম্পাদক আয়নাল হক, ৩ নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক রবিউল ইসলাম এবং ৬ নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি শাজাহান আলী।

এদিকে নির্বাচণী মাঠে আওয়ামী লীগের প্রতিপক্ষ হয়ে অন্য দলের প্রার্থীরা তেমন সাড়া জাগাতে না পারলেও আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী এখন মাঠ গরমে রেখেছেন। কেন্দ্র থেকে নৌার বিরোধতিাদের তালিকা এবং গঠনতন্ত্র মোতাবেক কঠোর ব্যবস্থা নেয়ার ঘোষণা দিলেও চারঘাটে নৌকার বিরোধীতায় মেতে উঠেছেন অনেকেই। এতে দলের মধ্যে বিভেদ অনকটা স্পষ্ট। এতে করে দলের তৃনমুল আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীরা চরম হতাশায় রয়েছেন বলে জানান অনেকেই।  

বিষয়টি সম্পর্কে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক উপজেলা চেয়ারম্যান ফকরূল ইসলাম বলেন, যারা নৌকার বিরোধীতা করছেন, তারা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সিদ্ধান্তের বিরোধীতা করছেন। তারা মুলত সুবিধাবাদী। আর এসব সুবিধাবাদিদের দলে কোন ঠায় হবে না। আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদে যারা নৌকার বিরোধীতা করছেন তারা ইতিপুর্বে উপজেলা নির্বাচনেও নৌকার বিরোধীতায় মেতে ছিলেন। তবে তাদের বিরোধীতায় নৌকার পরাজয় ঘটেনি। নৌকার বিজয় হয়েছে। আগামীতেও উপজেলার ৬টি ইউনিয়নেই বিপুল ভোটে নৌকার বিজয় সুনিশ্চিত হবে বলে দাবি করেন তিনি। তবে যারা দলে থেকে নৌকার বিরোধীতায় মেতেছেন তাদের দ্রুত সময়ের মধ্যে গঠনতন্ত্র মোতাবেক কঠোর ব্যবস্থা নেয়ার জন্য কেন্দ্রে সুপারিশ করা হবে। 

উপজেলা নির্বাচন অফিসার রবিউল ইসলাম বলেন, আগামী ২৬ ডিসেম্ব ৬টি ইউনিয়নে ৬০ টি ভোট কেন্দ্রে ৪১৩ টি বুথের মাধ্যমে ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। 

ধূমকেতু নিউজের ইউটিউব চ্যানেল এ সাবস্ক্রাইব করুন

প্রিয় পাঠকবৃন্দ, স্বভাবতই আপনি নানা ঘটনার সাক্ষী। শেয়ার করুন আমাদের। যেকোনো ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের ইমেলে পাঠিয়ে দিন এই ঠিকানায়। নিউজ পাঠানোর ই-মেইল : dhumkatunews20@gmail.com. অথবা ইনবক্স করুন আমাদের @dhumkatunews20 ফেসবুক পেজে । ঘটনার স্থান, দিন, সময় উল্লেখ করার জন্য অনুরোধ করা হলো। আপনার নাম, ফোন নম্বর অবশ্যই আমাদের শেয়ার করুন। আপনার পাঠানো খবর বিবেচিত হলে তা অবশ্যই প্রকাশ করা হবে ধূমকেতু নিউজ ডটকম অনলাইন পোর্টালে। সত্য ও বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ নিয়ে আমরা আছি আপনাদের পাশে। আমাদের ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করার জন্য অনুরোধ করা হলো Dhumkatu news