IMG-LOGO

বুধবার, ১লা ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ, ১৮ই মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

× Education Board Education Board Result Rajshahi Education Board Rajshahi University Ruet Alexa Analytics Best UK VPN Online OCR Time Converter VPN Book What Is My Ip Whois
নিউজ স্ক্রল
ভারতে বহুতল ভবনে অগ্নিকাণ্ডে ১৪ জনের প্রাণহানীফুলবাড়ী প্রেসক্লাবের ১৫ সদস্যের পদত্যাগরাতে ৫ ঘণ্টা বন্ধ থাকবে ফ্লাইটপোরশায় গাঙ্গুরিয়া ডিগ্রি কলেজের ক্লাস উদ্বোধনচাঁপাইনবাবগঞ্জ ভোটকেন্দ্র থেকে ককটেল উদ্ধারচাঁপাইনবাবগঞ্জ-৩ আসনের উপ-নির্বাচনে অধিকাংশ কেন্দ্র ফাঁকাপুলিশ সদস্যকে বিয়ের দাবিতে থানায় তরুণীর অনশনভারতে বহুতল ভবনের আগুনে নিহত ১৪ভাষার মাস ফেব্রুয়ারিশূন্য আসনে উপনির্বাচনে ভোটগ্রহণ চলছেইউক্রেনের নৌঘাঁটিতে রাশিয়ার হামলাগাজীপুর জেলা সাংবাদিক ঐক্য পরিষদের নতুন কমিটি ঘোষণাক্ষেতলালে জমি সংক্রান্ত বিরোধে বাবার পর প্রাণ গেল ছেলেরবাঘায় শাহ্দৗলা সরকারি কলেজে ওরিয়েন্টেশন ক্লাসরাজশাহীতে ক্লেমন টি-২০ ক্রিকেট টুর্ণামেন্টের পুরস্কার বিতরণ
Home >> >> যুগ পেরুলেও সংস্কার হয়নি রাজশাহীর সিগন্যাল বাতিগুলো

যুগ পেরুলেও সংস্কার হয়নি রাজশাহীর সিগন্যাল বাতিগুলো

ধূমকেতু প্রতিবেদক : এক সময় রাজশাহী নগরীতে গণপরিবহণ বলতে প্যাডেল চালিত রিকশা, টেম্পু ও ঘোড়ার গাড়ি ছিল। নগরীর মধ্যে মূলত রিকশা ও ঘোড়ার গাড়ি ব্যবহার করে মানুষ বিভিন্নস্থানে যেতো। এই তিন মাধ্যম ছাড়া মানুষের চলাচলের কোনো যানবাহন ছিল না। ২০০৮সালের পর রাজশাহী নগরীতে চলাচলের মাধ্যম হিসাবে যোগ হয় অটোরিকশার। ২০০৮ সালের আগে টেম্পু রিকশা মিলে এক হাজারের মত যানবাহন নগরীর মধ্যে চলাচল করতো। কিন্তু অটোরিকশা আসার পর এর সংখ্যা যেমন বাড়তে থাকে তেমনি ধীরে ধীরে বাড়তে থাকে যানজট। গুটি কয়েক যানবাহন চলার কারণে আগে রাজশাহী নগরীতে ছিল না কোনো যানজট।

কিন্তু সময়ের ব্যবধানে রাজশাহীতে বেড়েছে মানুষ, বেড়েছে যানবাহন। এক সময়কার যানজট মুক্ত রাজশাহী নগরী এখন যানজটের নগরীতে পরিণত হয়েছে। সময়ের সাথে পাল্লা দিয়ে মানুষ বাড়ার কারণে যানবাহনের পরিধি বেড়েছে কয়েকগুন। যানজট মুক্ত রাজশাহী নগরী এখন প্রতিনিয়িত যানজটের কবলে পড়ছে। কিন্তু এসব সিগন্যাল বাতি মেরামতে রাসিক থেকে নেয়া হচ্ছে না কোনো উদ্যোগ। এমনকি বর্তমান এসব সিগন্যাল বাতি কি অবস্থায় পড়ে আছে তা বলতে পারছেন না রাসিকের সংশ্লিষ্ট বিভাগ। নগরীতে স্থাপন করা প্রায় দেড় কোটি টাকার সিগন্যাল বাতি অযতœ অবহেলার নষ্ট হচ্ছে। রাসিকের তদারকির অভাবে এসব সিগন্যাল বাতি কোনোই কাজে লাগছে না ট্রাফিক বিভাগের।

জানা গেছে, পূর্ব পরিকল্পনা অনুযায়ী রাজশাহী নগরীতে যানজট বাড়তে পারে এই কারণে রাসিক থেকে নেয়া হয় উদ্যোগ। যানচলাচলের গতি নিয়ন্ত্রণে রাসিকের উদ্যোগে ১৯৯৪ থেকে ২০০৯ সাল পর্যন্ত ৩ দফায় নগরীর গুরুত্বপুর্ণ মোড় ও ২০টির বেশিস্থানে স্বয়ংক্রিয় ট্রাফিক সিগন্যাল বাতি স্থাপন করা হয়। সিগন্যাল বাতি স্থাপনের পর সেগুলো সচল রাখার জন্য রাসিকের যান্ত্রিক বিভাগকে দায়িত্ব দেয়া হয়েছিল। প্রথম সিগন্যাল বাতি স্থাপনের পেরিয়ে গেছে ২৪ বছর। ২০০৯ সাল পর্যন্ত এসব সিগন্যাল বাতি সচল থাকলেও এরপর থেকে একেএকে নষ্ট হয়ে গেছে সবগুলো। বলা যায় প্রায় এক যুগ থেকে এসব সিগন্যাল বাতি অকেজো হয়ে পড়ে আছে। নষ্ট হয়ে যাওয়ার জন্য নগরীতে স্থাপন করা এসব সিগন্যাল বাতি ট্রাফিক বিভাগের কোনো কাজেই আসছে না। এমনকি কোনো কাজেও লাগাতে পারছে না সিগন্যাল বাতি।

আরও জানা যায়, প্রথম দফায় ১৯৯৪ সালে ৩৬ লাখ টাকা ব্যয়ে নগরীর সিঅ্যান্ডবি, ল²ীপুর, বিন্দুর মোড়, সাহেববাজার জিরোপয়েন্ট, মনিচত্বর ও তালাইমারী মোড়ে ট্রাফিক সিগন্যাল বাতি (সংকেত বাতি) বসানো হয়। এরপর ২০০২ সালে ৪৯ লাখ টাকা ব্যয়ে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ বন্ধগেট, বহরমপুর বাইপাস রোড, কোর্ট স্টেশন মোড়, কাশিয়াডাঙ্গা নতুন বাইপাস মোড় ও কাশিয়াডাঙ্গা পুরনো সড়ক মোড় এলাকায় বসানো হয় ট্রাফিক সিগন্যাল বাতি বসানো হয়। এরপর ৫৫ লাখ টাকা ব্যয়ে নগরীর উৎসব সিনেমা হল মোড়, সাগরপাড়া বটতলা, শিরোইল স্টেশন মোড়, শহীদ জিয়া শিশুপার্কের সামনের মোড় ও নওদাপাড়া আমচত্বর মোড় এলাকায় ট্রাফিক সিগন্যাল স্থাপন হয়। কিন্তু এখন এসব সিগন্যালবাতি সবই অকেজো হয়ে পড়ে আছে। কিছু কিছু এলাকায় সিগন্যাল বাতি থাকলেও দেখা যায় না। দোকানঘর নির্মাণ করে পুরো সিগন্যাল বাতি ঢেকে দেয়া হয়েছে। সিগন্যাল বাতিগুলো অযতেœ অবহেলায় ময়লার স্তপ পড়ে আছে।

নগরীর বর্নালী মোড়ের ডিউটিরত এক ট্রাফিক পুলিশ জানান, দিনদিন শহরে মানুষ বাড়ছে। বিভিন্ন মোড়ে মোড়ে এখন সৃষ্টি হচ্ছে যানজট। যানজট নিরসনে রাখা হয়েছে ট্রাফিক পুলিশ। কিন্তু এসব সিগন্যাল বাতি থাকলে কোনো কাজে আসেনা। হাতের ইশায় এখন চলে নগরীর যানজট নিরসনের কাজ। রাজশাহীতে তুলনামূলক ট্রাফিক বিভাগের লোকবল অনেক কম। কিন্তু এই কম জনবল নিয়েই চালতে হয় এ বিভাগকে। সিগন্যাল বাতি থাকলে যানজট নিরসনে সুবিধা যেমন হতো তেমনি কমজনবল নিয়েই যানজট নিরসনে সুবিধা হতো।

তিনি বলেন, দেশ আধুনিক হয়েছে, কিন্তু রাজশাহীর ট্রাফিক বিভাগ সেই আগের অবস্থানে রয়েছে। রাজশাহী শহরে যানজট নিরসনে লাগেনি আধুনিকতার ছোঁয়া। নগরীতে যানজট এখন নিত্যদিনের সঙ্গি হলেও তাদের সেই পুরোনা যুগের মতই হাতের ইশায়। যানজট নিরসনে আধুনিকতা বলতে রাজশাহীতে কিছু নেই।

নগরীর বিন্দুর মোড় এলাকার ট্রাফিস পুলিশরা জানান, এখনো চাররাস্তার মোড়। প্রতিদিন যানজট নিরসনে হিমশিম খেতে হয় মানুষকে। কিন্তু এই জনগুরুত্বপুর্ন জায়গার সিগন্যাল বাতিটি দীর্ঘদিন থেকে নষ্ট হয়ে আছে। দেখা শোনার মানুষ নেই বললেই চলে বলেও জানান তারা।

এদিকে, ২০২০-২১ অর্থ বছরের বাজেটে নগরীতে সয়ংক্রিয় ট্রাফিক সিগনালা স্থাপনের পরিকল্পনার কথা উল্লেখ করা হয়েছে। যেখানে বলা হয়, নগরীর ২৬টি গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টে (মোড়ে) আধুনিক ট্রাফিক সিগনাল বাতি স্থাপন করা হবে। পরিকল্পনাটি ভারতীয় ঋণ ও সরকারের জিওবি তহবিলের আওতায় বাস্তবায়িত হবে। প্রকল্পের ডিপিপি বর্তমানে স্থানীয় সরকার বিভাগে অনুমোদনের জন্য প্রক্রিয়াধিন আছে। অনুমোদন পেলে ২০২০-২১ অর্থ বছরের মধ্যেই প্রকল্পটি বাস্তবায়নের কাজ শুরু করা হবে। বিষয়টি অনুমোদনের অপেক্ষায় ছিল। কিন্তু এখন পর্যন্ত অনুমোদনের বিষয়টি ঝুলন্ত অবস্থায় পড়ে আছে। কারণ পুরাতন সিগন্যাল বাতিগুলোই অকেজো হয়ে পড়ে আছে। যার কারণে নতুন করে সিগন্যাল বাতি অনুমোদনের বিষয়টি আমলে নিচ্ছে না সিটি করপোরেশন। এমন কি পুরাতনগুলো আদৌ মেরামত করা হবে কিনা সে বিষয়ে স্পষ্ট কোনো বক্তব্য পাওয়া যাচ্ছে না।

বিষয়টি নিয়ে নগর পুলিশের মুখপাত্র গোলাম রুহুল কুদ্দুস জানান, নগরীর সিগন্যাল বাতিগুলো মূলত রাসিকের অধিনে পরিচালিত হয়। আরএমপির পক্ষে এসব দেখা হয় না। তিনি বলেন সিগন্যাল বাতি না থাকার কারণে ভোগান্তি পোহাতে হয় ট্রাফিক পুলিশদের। কারণ সিগন্যাল বাতি থাকলে হয়তো কিচুটা স্বস্থি আসতো। কিন্তু ধীর্ঘদিন থেকে এসব সিগন্যাল বাতি অকেজো হয়ে পড়ে থাকার জন্য কোনোই কাজে আসছে না।

এব্যাপারে রাসিকের প্রধান প্রকৌশলী আশরাফুল বাসার জানান, বর্তমান সিগন্যাল বাতিগুলো কি অবস্থায় আছে আমি তা জানি না। মূলত সিগন্যাল বাতিগুলো রাকিসের যান্ত্রিক প্রকৌশল বিভাগের দায়িত্বে আছে। নগরীতে কতটি সিগন্যাল বাতি সচল রয়েছে আর কতটি অচল রয়েছে এক মাত্রা তারাই বলতে পারেবন।

অকেজো সিগন্যাল বাতি সচল করার কোনো পরিকল্পনা আছে কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করা না হলে সঠিকভাবে বলা যাবে না।

ধূমকেতু নিউজের ইউটিউব চ্যানেল এ সাবস্ক্রাইব করুন

প্রিয় পাঠকবৃন্দ, স্বভাবতই আপনি নানা ঘটনার সাক্ষী। শেয়ার করুন আমাদের। যেকোনো ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের ইমেলে পাঠিয়ে দিন এই ঠিকানায়। নিউজ পাঠানোর ই-মেইল : dhumkatunews20@gmail.com. অথবা ইনবক্স করুন আমাদের @dhumkatunews20 ফেসবুক পেজে । ঘটনার স্থান, দিন, সময় উল্লেখ করার জন্য অনুরোধ করা হলো। আপনার নাম, ফোন নম্বর অবশ্যই আমাদের শেয়ার করুন। আপনার পাঠানো খবর বিবেচিত হলে তা অবশ্যই প্রকাশ করা হবে ধূমকেতু নিউজ ডটকম অনলাইন পোর্টালে। সত্য ও বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ নিয়ে আমরা আছি আপনাদের পাশে। আমাদের ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করার জন্য অনুরোধ করা হলো Dhumkatu news