IMG-LOGO

বুধবার, ১৪ই এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ১লা বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

× Education Board Education Board Result Rajshahi Education Board Rajshahi University Ruet Alexa Analytics Best UK VPN Online OCR Time Converter VPN Book What Is My Ip Whois
নিউজ স্ক্রল
এত টাকা কী করে দেবেন উমর আকমল!খালেদা জিয়ার রোগমুক্তি কামনায় নগর ছাত্রদলের দোয়া মাহফিলরাজশাহীতে রাস্তার ওভার লে কার্পেটিং কাজ পরিদর্শনে মেয়র লিটনএক নম্বরে বাবর আজমলকডাউনের প্রথম দিন রেকর্ড মৃত্যুকোয়ারেন্টাইনে অভীনেতা শাহরুখ খান‘সম্মিলিত শক্তি দিয়ে রুখব প্রাণঘাতী করোনাকে’রাজশাহী জেলা পুলিশের অভিযানে আটক ১৩‘ফোন করলেই চিকিৎসক যাবে রোগীর বাড়ি’২৪ ঘণ্টায় সর্বোচ্চ মৃত্যু ব্রাজিলেপ্রেমের ঘটনাকে কেন্দ্র করে বাড়িঘর-মন্দির ভাঙচুরকরোনায় চলে গেলেন শামসুজ্জামান খানকরোনায় মারা গেলেন অধ্যাপক আবুল খায়েররাজশাহীতে অনলাইনে জুয়া খেলায় আটক ৮বৈদেশিক কর্মসংস্থানে করোনার বড় ধাক্কা
Home >> >> উন্নয়নের জোয়ারে ভাসছে রাসিকের ১৯নং ওয়ার্ড

উন্নয়নের জোয়ারে ভাসছে রাসিকের ১৯নং ওয়ার্ড

ধূমকেতু প্রতিবেদক, জান্নাতুল মাওয়া সিফা : বর্তমান কাউন্সিলর তৌহিদুল হক সুমন ক্ষমতায় আসার পর উন্নয়নের জোয়ারে ভাসছে রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের ১৯নং ওয়ার্ড। তিনি দায়িত্ব গ্রহণের পর ওয়ার্ডের বিভিন্ন এলাকার রাস্তা, লাইটসহ বৈদ্যুতিক পোল, ড্রেন নির্মাণ, বয়স্ক ও প্রতিবন্ধী ভাতা প্রদানসহ বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজ করেছেন এই ওয়ার্ডের। ২০১৮ সালের ৩০ জুলাই নির্বাচনে সর্বাধিক ভোটে ১৯নং ওর্য়াড কাউন্সিলর নির্বাচিত হন তৌহিদুল হক সুমন।

প্রায় ৪০ হাজার জনগণ বসবাসরত এই ওয়ার্ডে। ওয়ার্ডটি ছিল একেবারেই অনুন্নত। পরবর্তীতে তৌহিদুল হক সুমন নির্বাচিত হওয়ার প্রায় তিন বছরের মধ্যেই নির্মাণ করেছেন ৮৮টি রাস্তা, এলইডি লাইটসহ ১১০টি বিদ্যুৎ পোল, দিয়েছেন বয়স্ক ও প্রতিবন্ধি ভাতা। প্রতি সপ্তাহে মশার লার্ভা নিধনের কাজ, চলমান উন্নয়নমূলক বিভিন্ন কাজ, এলাকা পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার কাজ গুলো তিনি নিজেই তদারকি করে চলেছেন প্রতিনিয়ত।

সেই সাথে ৪ কোটি ৪২ লাখ টাকা ব্যয়ে শেখ রাসেল শিশু পার্কের কাজও চলমান আছে। প্রায় ১১ কোটি ৮৪ লাখ টাকা ব্যয়ে ৯৯টি ড্রেন এবং রাস্তার কাজ চলমান রয়েছে এই ওয়ার্ডে। এছাড়াও সরকারী সহায়তা ও ব্যক্তিগত উদ্যোগে দেশে গত বছর প্রথম করোনা শনাক্ত হওয়ার পর পরই ভয়কে জয় করে তিনি নিজেই জনসচেতনতা বাড়ানোর জন্য করেছেন মাইকিং, মাস্ক ও স্যানিটাইজার বিতরণসহ বাড়ি বাড়ি গিয়ে দুস্থ অসহায়দের মাঝে পৌঁছে দিয়েছেন ত্রাণ সামগ্রী। যা মানবিকতার অন্য নিদর্শন। তিনি স্বপ্ন দেখেন নগরীতে এই ওয়ার্ডকে তিলত্তমা ওয়ার্ড হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করার। সেটি বাস্তবায়নের লক্ষ্যে নিরলস পরিশ্রম করে যাচ্ছেন কাউন্সিলর তৌহিদুল হক সুমন।

সরেজমিনে ঘুরে একজন নারী এলাকাবাসী সালেহা ধূমকেতু নিউজকে জানান, বর্তমান কাউন্সিলর আমাদের যে ড্রেনটা করে দিচ্ছে তাতে আমাদের অনেক উপকার হবে। বর্ষা মৌসুমে একটু পানি হলে এলাকাটা প্লাবিত হয়ে থাকতো। মানুষের বাড়ি ঘর পানির নিচে থাকতো। ড্রেনটা হলে আমাদের অনেক সুবিধা হবে। ড্রেন না থাকার সময় প্রায় ৩ থেকে ৪ মাস হাটু পরিমাণ পানিতে ডুবে থাকতো রাস্তাগুলো বলেও জানান তিনি।

ধূমকেতু নিউজের সাথে রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের ১৯ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর তৌহিদুল হক সুমনের একান্ত স্বাক্ষাৎ।

অপর বাসিন্দা আনোয়ার আলী ধূমকেতু নিউজকে বলেন, এই এলাকাটি অবহলিত ছিলো। রাস্তা-ঘাট কম ছিল। এখন তৌহিদুল হক সুমন আমাদের জন্য এই রাস্তাগুলো করে দিচ্ছেন। রাস্তাগুলো হওয়ার কারণে আমরা অনেক উপকৃত হবো। ওয়ার্ডের বিভিন্ন এলাকায় রাস্তা ও ড্রেনগুলো করে দেওয়ায় তৌহিদুল হক সুমন ও মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটনকে ধন্যবাদ জানান তিনি।

১৯নং ওয়ার্ডের উন্নয়নমূলক কার্যক্রম নিয়ে ধূমকেতু নিউজের সঙ্গে একান্ত সাক্ষাৎকারে তৌহিদুল হক সুমন বলেন, ২০১৮ সালের ৩০ জুন আমি প্রথমবারের মত ১৯নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর নির্বাচিত হই। রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের সর্বাধিক ভোটে নির্বাচিত একজন জনপ্রতিনিধি হতে সক্ষম হয়েছি। জনগণের আস্থা ও ভালোবাসায় বিজয়ের পর আমাদের ওর্য়াডের অবস্থা একেবারে ভঙ্গুর ছিলো এবং পিছিয়ে পড়া একটি ওর্য়াড হিসেবে গণ্য ছিলো, এ ওয়ার্ডে উন্নয়নমূলক অবকাঠামো মূলত ছিলই না, তার লক্ষ্যেই আমি পরিবর্তীতে কাউন্সিলর নির্বাচিত হই।

তিনি ধূমকেতু নিউজকে বলেন, আমি নির্বাচিত হওয়ার পর প্রথমেই ১০ কোটি ৪৫ লক্ষ টাকা ব্যয়ে অধ্যবধি ৮৮টি রাস্তা ও ড্রেনের কাজ শেষ করেছি। যেগুলো মধ্যে আছে কর্পেটিং রাস্তা, সি সি রাস্তা এবং আর সিসি ড্রেন স্লাবসহ নির্মাণ করতে স্বক্ষম হয়েছি। যে কাজ গুলো বিগত কাউন্সিলরের থেকে বহু গুণ বেশি। মাত্র আড়াই বছরেই এই কাজগুলো শেষ করেছি। ১১০টি বিদ্যুতের খুটি স্থাপন করেছি এবং সব খুটিগুলোতে এলইডি লাইট বসিয়েছি। আলোকায়নের ব্যবস্থা করেছি এবং যে এলাকায় বিদ্যুৎ এর ব্যবস্থা ছিলো না সেগুলোতেও বিদ্যুৎ সরবারহ করা হয়েছে। উন্নয়ন কর্মকাণ্ড এখনো চলছে এবং ১১ কোটি ৮৪ লক্ষ টাকা ব্যয়ে ৯৯টি ড্রেন ও রাস্তার কাজ চলমান রয়েছে। সে সঙ্গে ৪ কোটি ৪২ লক্ষ টাকা ব্যয়ে শেখ রাসেল শিশু পার্কের কাজও চলমান রয়েছে। ইনশাআল্লাহ মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন সাহেবের নির্দেশে এবং সার্বিক সহযোগীতায় আমরা ১৯নং ওর্য়াডকে গুছিয়ে তুলতে চেষ্টা চালাচ্ছি।

করোনাকালীন সময়ে তার কার্যক্রম বিষয়ক প্রশ্নের জবাবে তৌহিদুল হক সুমন ধূমকেতু নিউজকে বলেন, করোনাকালীন সময় ১৯নং ওয়ার্ডে আমরা খুবই দক্ষতার সাথে দিনগুলো পার করেছি। ৮মার্চ ২০২০ সালে প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত হয় তখন থেকেই রাজশাহী সিটি কর্পোরেশন সর্বাধিক সর্তকতার সাথে এই সময়টি মোকাবেলা করেছে। তার সাথে সামঞ্জস্য করে আমরাও আমাদের ওয়ার্ডে কাজ করেছি। যেমন- সচেতনতা সৃষ্টি এবং তার সাথে মাস্ক, ত্রাণ সামগ্রী ও হ্যান্ড স্যানিটাইজার বিতরণ করেছি। ৯৪৪৫ জনের মাঝে আমরা ত্রাণ পৌছিয়ে দিয়েছি। তার পাশাপাশি সরকারি, বেসরকারি, আমার ব্যক্তিগত উদ্যোগে এবং এলাকার বিশিষ্ট জনের সহায়তার চাল, ডাল, তেল, সাবান, খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করেছি। যে সকল মসজিদ রয়েছে আমার ওয়ার্ডে তাদের ইমাম, মোয়াজ্জিনদের করোনাকালীন সময়ে খাবার বিতরণ করেছি এবং তাদেরকে তিন মাস মেয়াদী বিভিন্ন খাদ্য আমরা সরবারহ করেছি। এলাকার কিন্ডার গার্টেনের শিক্ষকবৃন্দ, মাদ্রাসার শিক্ষকবৃন্দদেরও আমরা এই সহায়তার মধ্যে নিয়ে এসেছি। এই ওর্য়াডে করোনাকালীন সময়ে কেউ না খেয়ে ছিলো না।

শীতকালীন সময়ে আমরা শীর্তাতদের মাঝে কম্বল বিতরণ, বয়স্ক ভাতা ও প্রতিবন্ধি ভাতা প্রদান করে থাকি বলেও জানান রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের ১৯ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর তৌহিদুল হক সুমন।

মাদক নির্মূল ও বেকারত্বের হার কমাতে তার অবদান কতটুকু? প্রশ্নের জবাবে কাউন্সিলর সুমন ধূমকেতু নিউজকে বলেন, আমার এলাকায় মাদক ৯০ শতাংশ আমি নিস্কৃয় করেছি। মাদকসেবীদের হার শতকরা ৫ শতাংশে নামিয়ে আনতে সক্ষম হয়েছি। মাদক নির্মূল কার্যক্রম এখনও অব্যাহত আছে। বর্তমানে এই ওয়ার্ডে মাদক বিক্রেতা নেই বল্লেই চলে। এছাড়াও কর্মসংস্থানের মাধ্যমে এই কাজ গুলো করে চলেছি। বেকারত্বের হার কমানোর জন্য কাজ করে যাচ্ছি সর্বক্ষণ। বিভিন্ন প্রশিক্ষণের আওতায় নিয়ে আসছি তাদের। যেমন- কম্পিউটার ও ব্লক বাটিক প্রশিক্ষণ দিয়ে তাদের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করে দিচ্ছি।

ছিন্নমূল শিশুদের ভবিষ্যত গড়তে আপনার কার্যক্রমগুলো কি? প্রশ্নের জবাবে তৌহিদুল হক সুমন ধূমকেতু নিউজকে বলেন, ছিন্নমূল শিশুদের আত্মকর্মসংস্থান সৃষ্টিতে কাজ করছি এবং তাদের শিক্ষা দান করে যাচ্ছি। বিভিন্ন এনজিও ও রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের সহায়তায় এ কর্মকাণ্ডগুলো পরিচলনা করে যাচ্ছি বলেও জানান তিনি।

প্রিয় পাঠকবৃন্দ, স্বভাবতই আপনি নানা ঘটনার সাক্ষী। শেয়ার করুন আমাদের। যেকোনো ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের ইমেলে পাঠিয়ে দিন এই ঠিকানায়। নিউজ পাঠানোর ই-মেইল : dhumkatunews20@gmail.com. অথবা ইনবক্স করুন আমাদের @dhumkatunews20 ফেসবুক পেজে । ঘটনার স্থান, দিন, সময় উল্লেখ করার জন্য অনুরোধ করা হলো। আপনার নাম, ফোন নম্বর অবশ্যই আমাদের শেয়ার করুন। আপনার পাঠানো খবর বিবেচিত হলে তা অবশ্যই প্রকাশ করা হবে ধূমকেতু নিউজ ডটকম অনলাইন পোর্টালে। সত্য ও বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ নিয়ে আমরা আছি আপনাদের পাশে। আমাদের ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করার জন্য অনুরোধ করা হলো Dhumkatu news

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *