IMG-LOGO

বৃহস্পতিবার, ২৯শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ১৪ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

× Education Board Education Board Result Rajshahi Education Board Rajshahi University Ruet Alexa Analytics Best UK VPN Online OCR Time Converter VPN Book What Is My Ip Whois
নিউজ স্ক্রল
ভারতে একদিনে আক্রান্ত ৪৩৫০৯, মৃত্যু ৬৪০ফিলিস্তিনি শিশুর বুক ঝাঁঝড়া করলো ইসরাইলি সেনারাকুষ্টিয়ায় আরও ১১ জনের মৃত্যুরামেকের করোনা ইউনিটে আরও ১৭ মৃত্যুচেয়ারম্যান মকবুলের ছেলে সোহাগের মৃত্যুতে জেলা আ.লীগের শোকসোহাগের মৃত্যুতে শ্রীপুর ইউনিয়ন আ.লীগের শোকচেয়ারম্যানের ছেলের মৃত্যুতে এমপি এনামুলের শোকপাবনায় বিএনপি অক্সিজেন সিলিন্ডার, হ্যান্ড সেনিটাইজার ও মাস্ক বিতরণপাবনায় আরটিপিসিআর ল্যাবের উদ্বোধনকরোনায় আক্রান্ত নগর আ.লীগ নেতা সোহেলকুষ্টিয়ায় ভাতিজার হাতে চাচা খুনকুষ্টিয়ায় গড়াই নদী থেকে অজ্ঞাত মহিলার লাশ উদ্ধাররেলওয়ের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সাথে মেয়র লিটনের মতবিনিময়মাড়িয়া ইউনিয়নে আসকান চেয়ারম্যানের মাস্ক বিতরণত্রাণের স্লিপ চাওয়ায় বৃদ্ধাকে ধাক্কা, স্ত্রীসহ ইউপি চেয়ারম্যান গ্রেপ্তার
Home >> >> করোনার কারণে বিপাকে রাজশাহীর মানুষ

করোনার কারণে বিপাকে রাজশাহীর মানুষ

ধূমকেতু প্রতিবেদক : এক বছরের বেশি সময় ধরে করোনা ভাইরাস রয়েছে বাংলাদেশে। এই করোনা ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ে রাজশাহীতেও। করোনা ভাইরাসের কারণে বিভিন্ন সময় কঠোর লকডাউনসহ বিভিন্ন পদক্ষেপ নেওয়া হয় সরকারের পক্ষ থেকে। আর এ করোনায় খেটে খাওয়া মানুষদের পাশাপাশি বিপাকে পড়েছেন স্বল্প আয়ের মানুষ ও ব্যবসায়ীরা। রাজশাহীর খেটে খাওয়া মানুষরা বেশির ভাগই দিন আনে দিন খাই এর মতো অবস্থা। তাদের অতিরিক্ত তেমন কোন পুজি থাকেনা। স্বল্প আয়ের মানুষদেরও তেমন কোন পুজি থাকেনা। আর ব্যবসায়ীদের মধ্যে কেউ কেউ বিভিন্ন স্থান থেকে লোন নিয়ে ব্যবসা পরিচালনা করেন।

মহানগরীতে করোনার প্রকোপ ও মৃত্যুর হার বেড়ে যাওয়ায় ১১জুন থেকে চলছে কঠোর লকডাউন। লকডাউনের উদ্দেশ্যে মানুষের গণজমায়েত বন্ধ করা এবং ভাইরাস থেকে মানুষকে রক্ষা করা। কিন্তু লকডাউন ভাইরাস থেকে মানুষকে বাঁচালেও বিপাকে পড়েছেন শ্রমজীবী মানুষেরা।

এসব মানুষেরা প্রতিদিন মাথার ঘাম পায়ে ফেলে শ্রম বিক্রি করে সংসারের চাকা ঘোরায়। প্রতিদিন সকাল হলে তাদের মাথায় চিন্তার ভাজ পড়ে পরিবারের সদস্যদের পাতে ভাত দিতে হবে। এ চিন্তা মাথায় নিয়ে প্রতিদিন শ্রম বিক্রি করে যান তারা। কোনো একদিন শ্রম বিক্রি করতে না পারলে তাদের চুলায় আগুন জ্বলে না। পরিবারের সদস্যদের পাতেও জোটে না ভাত। কেউ দয়া করে তাদের পাতে একবেলা ভাতের ব্যবস্থা করে দেয় না। এসব মানুষের পেটের দায়ের কাছে মৃত্যুকুপের নেই কোনো ভয়। তাদের কাছে ভাইরাসের নেই ভয়। তাদের একটাই ভয়; পরিবারের সদস্যদের মুখে আহারের ব্যবস্থা করে দিতে না পারা। তাই তারা ভোরের সূর্য ওঠার সঙ্গে সঙ্গে শ্রম বিক্রি করতে বেরিয়ে পড়েন।

এসব শ্রমজীবী মানুষের এখন গলার কাঁটা লকডাউন। সরকার যখন মানুষকে বাঁচাতে লকডাউন দিয়ে রেখেছে তখনই এসব শ্রমজীবী মানুষেরা পড়েছেন চরম বিপাকে। কারণ লকডাউন তাদের পেটের ভার বহন করবে না। ঘর থেকে বের না হয়ে শ্রম বিক্রি না করলে তারা খাবে কি। তাই এ লকডাউন তাদের কাছে আর্শিবাদ নয়; অভিশাপ হিসেবে নেমে এসেছে।

নগরী ও আশে-পাশের এলাকায় অনেকটাই চুরি করে অটো, অটোরিক্সা চালাচ্ছেন অনেকেই। তবে কেউ মহাসড়কে আসলে তাকে ফেরত পাঠানো হচ্ছে। কোন কোন সময় চাকার বাতাস ছেড়ে দেওয়া হচ্ছে। এমন অবস্থায় একদিকে করোনা অন্যদিকে জীবিকা নিয়ে উভয় সঙ্কটে পড়েছেন নিম্ন আয়ের এই মানুষগুলো।

নগরীর ছোটন ইসলাম। তিনি রিক্সা চালায়। রিক্সাটা কিনেছেন ঋণ করে। ঋণ পরিশোধ,আর নিজের সংসার। দুই চালান তিনি। তিনি বলেন, সড়কে মানুষ নেই বললেই চলে। অটোরিক্সা তবুও বের করছি। যা উপার্যন হয়।

সেলিম নামের অপর রিক্সা চালক জানান, কাজের অবস্থা ভালো না। কোন রকম করে চলছি। এবার কেউ ত্রাণও দেয়নি। যে পরিবার নিয়ে খাব। কখনও আমি রিক্সা চালায়। আবার ১০ বছরের ছোট ছেলে তামিম রিক্সা চালায়। এই ভাবেই চলছি আমরা।

নগরীর জীবন। তিনি পেশায় একজন মুচি। নগরীর ফায়ার সার্ভিস মোড়ে জুতা সেলাই, রং করে তার সংসার চলে। একদিন কাজ না করলে তার বাড়ির লোককে না খেয়ে থাকতে হয়। করোনার কারণে লকডাউন দেয়ায় তার দোকান কিছুদিন বন্ধ ছিলো। কিন্তু পেটের দায়ে তাকে ঝুকি নিয়ে দোকান করতে হচ্ছে। তিনি বলেন কয়েকদিন আগে বলে কয়েকজন মুচিকে সহযোগীতা করা হয়েছে, কিন্তু আমি তো পায়নি, এখন পর্যন্ত আমার খোজ কেউ নেয়নি। তাই এক প্রকার বাধ্য হয়ে ঝুঁকি নিয়ে আমি কাজ করছি।

নগরীর সাহেব বাজার জিরো পয়েন্টে ইলেকট্রনিক্স সার্ভিসিং এর কাজ করেন রাজিব রায়। তিনি বলেন, আমি একটা দোকান ভাড়া নিয়ে ইলেকট্রনিক্স সার্ভিসিং এর কাজ করি। আমার বেশির ভাগ কাস্টমার শিক্ষার্থীরা। বর্তমানে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় এমনিতেই কাস্টমার কম ছিলো। তার মধ্যে করোনার কারণে লকডাউন থাকায় আমার দোকান বন্ধ। কিন্তু আমাকে ঠিকই দোকান ভাড়া দিতে হচ্ছে। যতটুকু সঞ্চয় ছিলো তাতে এ কয়দিন কোনমতে চলেছে। এখন আমার কাছে একটা টাকা নাই আমি কিভাবে চলবো। ভবিষ্যৎ আমার কি হবে। আর এবার কেউ ত্রাণও দেয়নি।

এছাড়াও অনেক ব্যবসায়ী লোন করে ব্যবসা করছেন। তাদের ককর্মচারী রয়েছে। ফলে এসব দোকান মালিককে ভাড়া দেয়া লাগছে, কর্মচারীদের বেতন দেয়া লাগছে। ফলে তারাও বিপাকে আছে।

প্রিয় পাঠকবৃন্দ, স্বভাবতই আপনি নানা ঘটনার সাক্ষী। শেয়ার করুন আমাদের। যেকোনো ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের ইমেলে পাঠিয়ে দিন এই ঠিকানায়। নিউজ পাঠানোর ই-মেইল : dhumkatunews20@gmail.com. অথবা ইনবক্স করুন আমাদের @dhumkatunews20 ফেসবুক পেজে । ঘটনার স্থান, দিন, সময় উল্লেখ করার জন্য অনুরোধ করা হলো। আপনার নাম, ফোন নম্বর অবশ্যই আমাদের শেয়ার করুন। আপনার পাঠানো খবর বিবেচিত হলে তা অবশ্যই প্রকাশ করা হবে ধূমকেতু নিউজ ডটকম অনলাইন পোর্টালে। সত্য ও বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ নিয়ে আমরা আছি আপনাদের পাশে। আমাদের ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করার জন্য অনুরোধ করা হলো Dhumkatu news

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *