IMG-LOGO

মঙ্গলবার, ২৯শে নভেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ১৪ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

× Education Board Education Board Result Rajshahi Education Board Rajshahi University Ruet Alexa Analytics Best UK VPN Online OCR Time Converter VPN Book What Is My Ip Whois
নিউজ স্ক্রল
রাজশাহী বঙ্গবন্ধু কলেজে ‘হিসাবের আড্ডা’র সভাগণিত অলিম্পিয়াড ফাইনাল রাউন্ডে উত্তীর্ণ বাউয়েট শিক্ষার্থী সৌরভরায়গঞ্জে শীতকালীন সবজির দাম কমলেও আশানুরুপ নেই ক্রেতালালপুরে বনিক সমিতির সভাপতিকে গ্রেপ্তারের প্রতিবাদে মানববন্ধনশিবগঞ্জে ভুটভুটির ধাক্কায় প্রাণ গেল মোটরসাইকেল আরোহীরনক আউটে ব্রাজিলবিএনপি উশৃঙ্খলতা করলে বরদাশত করা হবে না : লিটন১১নং ওয়ার্ড আ.লীগ সভাপতির পিতার মৃত্যুতে মেয়র লিটনের শোকসুলতানগঞ্জ পোর্ট এ কাস্টমস কার্যক্রম চালুকরণ বিষয়ক সভামোহনপুর সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় এসএসসি পরীক্ষায় ঈর্ষণীয় সাফল্যমোহনপুরে শহীদ বুদ্ধিজীবী ও মহান বিজয় দিবস উদযাপন উপলক্ষে প্রস্তুতি সভামহাদেবপুরে সড়ক দুর্ঘটনায় মোটরসাইকেল আরোহীর মৃত্যুমেয়রের সাথে প্যারা কমান্ডো ব্রিগেডের কমান্ডারের সাক্ষাৎগোমস্তাপুরে এসএসসিতে জিপিএ-৫ পেয়েছে ৬২২ শিক্ষার্থীগোমস্তাপুরে বিজয় দিবস উপলক্ষে প্রস্তুতি সভা
Home >> >> পিকে হালদারের সহায়তাকারী এস কে সুর ও শাহ আলম

পিকে হালদারের সহায়তাকারী এস কে সুর ও শাহ আলম

ধূমকেতু নিউজ ডেস্ক : পিপলস লিজিং ও ইন্টারন্যাশনাল লিজিংসহ অন্তত পাঁচটি আর্থিক প্রতিষ্ঠান থেকে প্রায় সাড়ে ৫ হাজার কোটি টাকা লোপাট করেছেন প্রশান্ত কুমার হালদার (পিকে হালদার)। তাকে এই অনিয়মে সহায়তা করেন বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক ডেপুটি গভর্নর এসকে সুর চৌধুরী ও নির্বাহী পরিচালক শাহ আলম।

এছাড়া এই লোপাটের ক্ষেত্রে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সংশ্লিষ্ট বিভাগের অন্যান্য উচ্চপদস্থ কর্মকর্তাসহ আরও অনেকেই নীরব ভূমিকা পালন করেছেন। জালিয়াতির ঘটনাটি কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের অনেকে জানলেও তারা এ ব্যাপারে কোনো পদক্ষেপই নেননি। সংশ্লিষ্টদের এমন নীরবতার কারণেই পিকে হালদার বেপরোয়া হয়ে ওঠেন।

পিকে হালদারের অন্যতম সহযোগী ও ইন্টারন্যাশনাল লিজিংয়ের সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক রাশেদুল হকের আদালতে দেওয়া ফৌজদারি কার্যবিধির ১৬৪ ধারার জবানবন্দিতে উঠে এসেছে এসব চাঞ্চল্যকর তথ্য। মঙ্গলবার ঢাকার সিএমএম আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন রাশেদুল হক। এর আগে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) তাকে গ্রেফতার করে রিমান্ডে আনে।

জবানবন্দিতে রাশেদুল বলেছেন, বাংলাদেশ ব্যাংকের সদ্য অবসরে যাওয়া ডেপুটি গভর্নর এসকে সুর চৌধুরীকে ‘ম্যানেজ’ করে পিকে হালদার অর্থ লোপাট করেছেন। এছাড়া বাংলাদেশ ব্যাংকের ডিআইএফএম’র (ডিপার্টমেন্ট অব ফাইন্যান্সিয়াল ইনস্টিটিউশন অ্যান্ড মার্কেটস) বিভাগের উচ্চ পর্যায়ের একজন কর্মকর্তাকে একটি আর্থিক প্রতিষ্ঠান থেকে প্রতি মাসে দুই লাখ টাকা করে দেওয়া হতো। এই টাকা প্রতিষ্ঠান থেকে ক্যাশ হিসাবে উত্তোলন করে ‘বিবিধ’ খরচ দেখানো হতো। যাতে ঘুষের টাকার কোনো প্রমাণ না থাকে। মার্কেন্টাইল ব্যাংকের পরিচালক ও রেজা গ্রুপের চেয়ারম্যান শহিদ রেজা পিকে হালদারের প্রধান সুবিধাভোগী র্ছিলেন বলেও জবানবন্দিতে তথ্য উঠে এসেছে। পিকে হালদার ও রেজা লোপাট করা অর্থ ভাগবাটোয়ারা করে নিতেন।

জবানবন্দিতে রাশেদুল হক আরও বলেন, দুর্নীতির কাজে পিকে হারদারকে সহযোগিতা করতেন একটি গ্রুপের বেশ কয়েকজন উচ্চ পর্যায়ের কর্মকর্তা। জিজ্ঞাসাবাদ শেষে আদালতে সোপর্দ করা হলে তিনি স্বেচ্ছায় জবানবন্দি দেন বলে জানা যায়। পিকে হালদার ও তার সহযোগীদের বিরুদ্ধে আর্র্থিক খাতে সাড়ে ৫ হাজার কোটি টাকা লোপাটের ঘটনা অনুসন্ধান করছেন দুদকের উপপরিচালক মো. গুলশান আনোয়ার প্রধান।

সূত্র জানায়, রাশেদুল হকের দেওয়া জবানবন্দিতে বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক ডেপুটি গভর্নর ও বর্তমানে নির্বাহী পরিচালকসহ যাদের নাম এসেছে তাদেরও তদন্তের আওতায় নিয়ে আসবে দুদক। এ বিষয়ে তাদের কাছে ব্যাখ্যা চাওয়া হবে।

এর আগে সুশীল সমাজের পক্ষ থেকেও আর্থিক খাতে অর্থ লোপাটের ঘটনায় বাংলাদেশ ব্যাংকের সংশ্লিষ্ট বিভাগের কর্মকর্তাদের নীরবতাকে দায়ী করেছেন। কেন্দ্রীয় ব্যাংক যথাযথ ভূমিকা পালনে ব্যর্থ হওয়ার কারণে এমন জালয়াতির ঘটনা সম্ভব হয়েছে।

রাশেদুল হকের জবানবন্দি সূত্রে আরও জানা যায়, পিকে হালদার নিজের ইচ্ছামতো গ্রাহকদের ট্রেড লাইসেন্স নিয়ে একদিনের মধ্যে কোনো যাচাই-বাছাই ছাড়াই ঋণ অনুমোদন ও বিতরণ করতেন। অনেক সময় গ্রাহক জানত না যে, তার নামে ঋণ নেওয়া হয়েছে। এভাবে এখানে শত শত কোটি টাকা অনিয়মের মাধ্যমে ঋণ নিয়ে আত্মসাৎ করেন। এ কাজে তাকে সহায়তা করেন রিলায়েন্সের কর্মকর্তা- রুনাই আহমেদ, আল মামুন সোহাগ ও রাফসান আহমেদ চৌধুরী। পিকে হালদার তার জালিয়াতের কাজে বাংলাদেশ ব্যাংকের ডেপুটি গভর্নর এসকে সুরকে বিভিন্ন উপায়ে কাজে লাগাতেন।

জবানবন্দিতে রাশেদুল আরও বলেছেন, পিকে হালদার এনআরবি গ্লোবালের এমডি হিসাবে চলে গেলে রাশেদুল হককে ইন্টারন্যাশনাল লিজিংয়ের এমডি হওয়ার জন্য অনুরোধ করেন। পিকে হালদারের কথামতো রাশেদুল হক ২০১৫ সালের জুন মাসে ইন্টারন্যাশনাল লিজিংয়ের এমডি হলেও প্রতিষ্ঠান চালাতেন মূলত পিকে হালদারই। তিনি নিজের কর্তৃত্ব বজায় রাখতে রিলায়েন্স লিজিংয়ে তার অনুসারী রুনাই আহমেদ, আল মামুন সোহাগ, রাফসান ও অভীক সাহাকে ইন্টারন্যাশনাল লিজিংয়ে নিয়ে আসেন। তারা মূলত পিকে হালদারের সঙ্গে সরাসরি ডিলিং করতেন।

বেশির ভাগ পার্টিই (মক্কেল) ছিল পিকে হালদারের আত্মীয়স্বজন, বন্ধু ও বান্ধবী। তারা পিকে হালদারের কাছে ঋণের প্রস্তাব দিলে সহযোগী সোহাগ, রাফসানদের মাধ্যমে ওই প্রস্তাব রাশেদুল হকের কাছে পাঠাতেন পিকে হালদার। রাশেদ মার্ক করে তা রুনাই আহমেদকে দিলে কোনো যাচাই-বাছাই ছাড়া এবং কোনো মর্টগেজ না নিয়ে পিকে হালদারের নির্দেশমতো ঋণ প্রস্তাব তৈরি করে তাতে রুনাই, সোহাগ ও রাফসান স্বাক্ষর করতেন। এমডি হিসাবে রাশেদুল হক অনুমোদন দিতেন। প্রতিটি বোর্ড মিটিংয়ে পিকে হালদার উপস্থিত থাকতেন এবং ঋণ প্রস্তাব অনুমোদনে বাধ্য করতেন।

আদালত সূত্রে আরও জানা যায়, রাশেদুল হক স্বীকার করেন, বোর্ড সদস্যরা সবাই ছিলেন পিকে হালদারের লোক। তাই তারা ভুয়া ও অস্তিত্বহীন প্রতিষ্ঠান জেনেও ঋণ অনুমোদন করে দিতেন। মো. নওশের উল ইসলাম, মমতাজ বেগম, পাপিয়া ব্যানার্জি, বাসুদেব ব্যানার্জি ইন্টারন্যাশনাল লিজিংয়ের পরিচালক হওয়া সত্ত্বেও অনিয়ম করে বেআইনিভাবে তাদের ভুয়া প্রতিষ্ঠান এমএসটি মেরিন, এমএসটি ফার্মা, নিউট্রিক্যাল ও জিএন্ডজি এন্টারপ্রাইজের নামে ঋণ নিতেন। সেই অর্থ পিকে হালদারসহ তার ঘনিষ্ঠদের হিসাবে স্থানান্তর করতেন। পরে ওই অর্থ উত্তোলন করে পিকে হালদার ও তার কয়েক সহযোগী বিদেশে পাচার করেছেন।

রাশেদুল হক তাদের সহকর্মীদের সহায়তায় আনাম কেমিক্যাল, রহমান কেমিক্যাল, নর্দান জুটসহ বেশির ভাগ প্রতিষ্ঠানের বাস্তব অস্তিত্ব, কাঠামো ও ঋণ নেওয়ার উদ্দেশ্য যাচাই ও মর্টগেজ ছাড়াই ঋণ দিয়েছেন। যা পরে পিকে হালদারের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে স্থানান্তর হয়েছে।

আদালতের কাছে রাশেদুল হক স্বীকার করেছেন, মার্কেন্টাইল ব্যাংকের পরিচালক ও রেজা গ্রুপের চেয়ারম্যান শহিদ রেজা মূলত ছিলেন পিকে হালদারের প্রধান সহযোগী। পিকে হালদারের নির্র্দেশে তার বিভিন্ন কাগুজে প্রতিষ্ঠানে ২০০ কোটি টাকা ঋণ প্রদান করা হয়েছে।

এছাড়া সিমটেকের মালিক সিদ্দিকুর রহমান, ব্যাংক এশিয়ার সাবেক এমডি ইরফান উদ্দিন আহমেদ, পিপলস লিজিংয়ের চেয়ারম্যান উজ্জ্বল কুমার নন্দী, রাজীম সোম, কাজী মোমরেজ মাহমুদ, স্বপন কুমার বিশ্বাস, অভিজিত, অমিতাভ অধিকারী, শংখ ব্যাপারী, সুস্মিতা সাহা, গোপাল চন্দ্র গাঙ্গুলী, অতশী মৃধা, অমল চন্দ্র দাস, রতন কুমার বিশ্বাস ছিল পিকে হালদারের সহযোগী ছিলেন বলে তিনি স্বীকার করেন।

পিকে হালদার মূলত এদের এনআইডি কার্ড দিয়ে ভুয়া কোম্পানি বানিয়ে তা দিয়ে হাজার হাজার কোটি টাকা লিজিং থেকে লুট করেছেন। রাশেদুল হক স্বীকারোক্তিতে আরও জানান, বাংলাদেশ ব্যাংকের ইন্সপেকশন বিভাগ থেকে বছরে দুবার অডিট হতো। ২০১৫ থেকে ২০১৮ পর্যন্ত দুই সদস্যবিশিষ্ট অডিট টিমকে প্রতিবারই পিকে হালদারের পক্ষে ১০ লাখ টাকা করে ঘুষ দেওয়া হয়েছে। যে কারণে তারা ইতিবাচক প্রতিবেদন দিয়েছিলেন।

পিকে হালদার বাংলাদেশ ব্যাংকের এসকে সুরকে বিভিন্ন অনুষ্ঠানে বড় ধরনের উপহার দেবেন-এ মর্মে ইন্টারন্যাশনাল লিজিং থেকে মোটা অঙ্কের টাকা নিতেন। এভাবে তিনি নানা সুবিধা দিয়ে এসকে সুর ও শাহ আলমকে ম্যানেজ করতেন।

রাশেদুল হকের স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতে উঠে আসে অমিতাভ অধিকারীর নাম। তিনি হলেন পিকে হালদারের আপন খালাতো ভাই। অপরদিকে উজ্জ্বল কুমার নন্দী পিপলস লিজিংয়ের চেয়ারম্যান হিসাবে এবং অমিতাভ অধিকারী পিপলস লিজিং পরিচালক হিসাবে ২০১৫ থেকে ২০১৯ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত কর্মরত ছিলেন।

জেনিথ ও লিপরো ইন্টারন্যাশনাল নামের কাগুজে প্রতিষ্ঠানকে পিকে হালদারের নির্দেশে কোনো মর্টগেজ ও যাচাই ছাড়া এবং বোর্ডের অনুমোদন ছাড়াই এমডি রাশেদুল হক একক কর্তৃত্বে ১২৫ কোটি টাকা দিয়ে দেন। এছাড়া রিলায়েন্স লিজিংকে তিনটি চেকের মাধ্যমে বোর্ডের অনুমোদন ছাড়াই ভাউচারের মাধ্যমে ৮০ কোটি টাকা দিয়েছেন রুনাই, সোহাগ, অভীক, রাফসান ও রাশেদ।

ট্রেজারি বিভাগ থেকে কোনো ঋণ অনুমোদন ছাড়াই শর্টটার্ম ঋণের নামে এমডি রাশেদুল হক পিপলস লিজিংকে ২০০ কোটি টাকা দিয়েছেন বলে আদালতে স্বীকার করেন রাশেদুল। ওই সময় পিপলস লিজিংয়ের এমডি ছিলেন উজ্জ্বল কুমার নন্দী। পরে ওই অর্থ ভুয়া প্রতিষ্ঠানের নামে উত্তোলন দেখিয়ে আত্মসাৎ করেছেন।

পিকে হালদারের বন্ধু মার্কেন্টাইল ব্যাংকের পরিচালক একেএম শহিদ রেজা তার স্বার্থসংশ্লিষ্ট পাঁচটি প্রতিষ্ঠানে ১০৪ কোটি টাকা সরিয়ে নেন। এ ছাড়া অস্তিত্বহীন আরও একাধিক প্রতিষ্ঠানের নামে ৭টি ঋণ হিসাব থেকে ৩৩টি চেকের মাধ্যমে ওয়ান ব্যাংকের স্টেশন রোড শাখার গ্রাহক ব্যাংক এশিয়ার সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক ইরফান আহমেদ খানের জে.কে ট্রেড ইন্টারন্যাশনালের নামে পরিচালিত একটি হিসাব থেকে ৭৪ কোটি টাকা সরানো হয়।

ধূমকেতু নিউজের ইউটিউব চ্যানেল এ সাবস্ক্রাইব করুন

প্রিয় পাঠকবৃন্দ, স্বভাবতই আপনি নানা ঘটনার সাক্ষী। শেয়ার করুন আমাদের। যেকোনো ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের ইমেলে পাঠিয়ে দিন এই ঠিকানায়। নিউজ পাঠানোর ই-মেইল : dhumkatunews20@gmail.com. অথবা ইনবক্স করুন আমাদের @dhumkatunews20 ফেসবুক পেজে । ঘটনার স্থান, দিন, সময় উল্লেখ করার জন্য অনুরোধ করা হলো। আপনার নাম, ফোন নম্বর অবশ্যই আমাদের শেয়ার করুন। আপনার পাঠানো খবর বিবেচিত হলে তা অবশ্যই প্রকাশ করা হবে ধূমকেতু নিউজ ডটকম অনলাইন পোর্টালে। সত্য ও বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ নিয়ে আমরা আছি আপনাদের পাশে। আমাদের ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করার জন্য অনুরোধ করা হলো Dhumkatu news