IMG-LOGO

বৃহস্পতিবার, ৮ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ২৩শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

× Education Board Education Board Result Rajshahi Education Board Rajshahi University Ruet Alexa Analytics Best UK VPN Online OCR Time Converter VPN Book What Is My Ip Whois
নিউজ স্ক্রল
বিশ্বকাপের ব্রাজিল-আর্জেন্টিনার খেলার দিন ঝড়-বৃষ্টির শঙ্কাইসরাইলি হামলায় ৩ ফিলিস্তিনি নিহতযুক্তরাষ্ট্রে গেলেন ২৪ রো‌হিঙ্গা শরণার্থী‘লন্ডন থেকে ফরমায়েশ আসে, ফখরুল চাকরি রক্ষায় তা করেন’নিয়ামতপুরে বেড়েছে সরিষার আবাদ, বাড়তি আয় মধু সংগ্রহ‘অনেক মার খেয়েছি, আর নয়’তিন ট্রিপে চলছে রাবির বাসগুলোরাবির উর্দু বিভাগের ফল বিপর্যয়, তদন্ত কমিটি গঠনচাঁপাইনবাবগঞ্জে প্রতারক চক্রের মূলহোতা ও ম্যানেজারসহ আটক ৬একাদশ শ্রেণিতে ভর্তির আবেদন শুরু সিলেটে যাত্রীবাহী বাস থেকে ১০৫ রাউন্ড গুলি উদ্ধারবঙ্গোপসাগরে ঘূর্ণিঝড় ‘মানদৌস’ইউক্রেন যুদ্ধে নতুন বার্তা পুতিনেররাজশাহীতে রোটারির চার ক্লাবের জয়েন ক্লাব এ্যাসেম্বলি১৪ দল শোকজ
Home >> >> বদ্ধভূমিতে শহীদ মিনার নির্মাণ কাজের নেই অগ্রগতি

বদ্ধভূমিতে শহীদ মিনার নির্মাণ কাজের নেই অগ্রগতি

ধূমকেতু প্রতিবেদক : ১৯৭১ সালে পাক বাহিনীর হাতে নিহতদের স্মরণে রাজশাহীর মোহনপুর উপজেলার ভুগরোইল গ্রামের বদ্ধভুমিতে মুক্তিযোদ্ধ মেমোরিয়াল শহীদ মিনার নির্মাণের উদ্যোগ নেয়া হয়। মোহনপুরের এক মুক্তিযোদ্ধার আবেদনের প্রেক্ষিতে সরকার এই বদ্ধভুমিটি সংস্কার ও সেখানে শহীদদের স্মরণে একটি মুক্তিযোদ্ধা মেমোরিয়াল শহীদ মিনার নির্মাণ করার পরিকল্পনা নেয়। এলজিইডি থেকে টেন্ডারও দেয়া হয়। শহীদ মিনারটি নির্মাণের জন্য ৩২ লাখ টাকায় টেন্ডার দেয়া হলেও কাজের কোনো অগ্রতি নেই।

নির্ধারিত সময় চলে গেছে প্রায় এক বছর আগে। তারপরও এই শহীদ মিানরটি নির্মাণ হয়নি। নানা ধরনের তালবাহানা ও ওযুহাত দেখিয়ে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান কাজ বন্ধ রেখেছে। এতে মুক্তিযোদ্ধা তথা স্থানীয়দের মধ্যে চরম ক্ষোভ দেখা দিয়েছে। তবে এলজিইডি মোহনপুরের প্রকৌশলী বেলাল হোসেন বলছেন ঠিকাদারকে কাজ শেষ করার জন্য নোটিশ দেয়া হয়েছে। আর ঠিকাদার বলছে টেন্ডার নেয়ার পর রানিং কোনো বিল প্রদান করা হয়নি। যার কারণে কাজ বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। বিল দিলে কাজ করা হবে।

জানা গেছে, ২০১৮ সালে মোহনপুরের ভুগরইলগ্রামের এই বদ্ধভুমিতে মুক্তিযোদ্ধ মেমোরিয়াল শহীদ মিনার নির্মাণের জন্য টেন্ডার আহ্বান করে রাজশাহী এলজিইডি। সিএইচএসএমএম প্রকল্পের আওতাধীন ওই টেন্ডার পায় রাজশাহীর দুর্গাপুর উপজেলার মেসার্স উর্মি ট্রেডার্স। পরে এলজিইডির পক্ষে ২০১৮ সালের ১৫এপ্রিল মেসার্স উর্মি ট্রেডার্সের সাথে ৩২ লাখ ৬৪ হাজার, ৯৮৬ টাকায় ওই বদ্ধভুমিতে শহীদ মিনার নির্মাণ ও সংস্কারের জন্য চুক্তি নামা করা হয়।

চুক্তি নামায় বলা হয় ২০১৯সালের ১০অক্টোবর শহীদ মিনারটি কাজ শেষ করে কর্তৃপক্ষের কাছে হস্তান্তর করতে হবে। যদিও পরে ওই কাজ উমি ট্রেডার্স পবার নিউকনট্রাকশনের কাছে বিক্রি দেয়। নিউকনট্রাকশনের ঠিকাদার বদ্ধভুমির কিছু কাজ করে চলমান কাজের উপর এলজিইডি থেকে বিল ইস্যু করে। কিন্তু এলজিইডি ওই টাকা দেয়নি। ফলে ঠিকাদার কাজ বন্ধ করে দেয়। ঠিকাদার টাকা না পাওয়ায় এই বদ্ধভুমির কাজ আর এগোয়নি। আর কবে নাগাদ বদ্ধভুমির কাজ শেষ হবে তাও বলতে পারছে না কেউ। এলজিইডি থেকে ঠিকাদারকে বার বার তাগাদা দিলেও ঠিকাদার তাদের কথায় কর্ণপাত করেনি। এমনকি কাজও শুরু করেনি। এতে থমকে গেছে এ বদ্ধভুমিতে শহীদ মিনার নির্মাণ কাজ।

জানা গেছে, ১৯৭১সালে ১৫ মুক্তিযোদ্ধাকে পাকিস্তানী বাহিনী হত্যা করে ভুগরোইল এ বদ্ধভুমিতে ফেলে দেয়। বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পর এটি বদ্ধভুমি নামে পরিচিতি লাভ করে। পরে মোহনপুরের মুক্তিযোদ্ধা খন্দকার গোলাম মুর্তুজা এই বদ্ধভুমিতে একটি শহীদ মিনার নির্মাণের জন্য সরকারের উর্ধ্বতন মহলে আবেদন করেন। সেই আবেদনের প্রেক্ষিতে সরকারের পক্ষে সেখানে একটি মুক্তিযোদ্ধ মেমোরিয়াল শহীদ মিনার নির্মাণে উদ্যোগ নেয়।

স্থানীয়রা জানান, শহীদ মিনার নির্মাণ কবে হবে তা তারা জানে না। শহীদ মিনারের কাজ বন্ধ রাখা মানে মুক্তিযোদ্ধা শহীদদের অবমানা করা হচ্ছে। এ বদ্ধভুমির নির্মাণ কাজ শুরুর পর কোনো আওয়ামী লীগের নেতারা বিষয়টি তদারকি করেনি। যার কারণে কাজ বন্ধ হয়ে আছে। এছাড়াও বর্তমানে যে ঠিকাদার বদ্ধভুমির এ মুক্তিযোদ্ধা মেমোরিয়াল শহীদ মিনার নির্মাণ করছেন তিনি স্থানীয় এমপির একেবারে কাছের মানুষ। যার কারণে ওই ঠিকাদার নিজের ইচ্ছেমত কাজ করছে। আরো এক বছরে এ শহীদ মিনারের কাজ শেষ হবে কি না তার নিশ্চয়তা নেই বলেও জানান স্থানীয় বাসিন্দারা।

বিষয়টি নিয়ে কথা বলা হয় এলজিইডি মোহনপুরের প্রকৌশলী বেলাল হোসেনের সাথে। তিনি বলেন, ঠিকাদার সময় মত কাজ হস্তান্তর করতে পারেনি বলে পুনরায় সময় নিয়েছেন। ঠিকাদারকে আগামী ডিসেম্বরের মধ্যে কাজ শেষ করার জন্য নোটিশও দেয়া হয়েছে। আশা করা যায় এ সময়ের মধ্যে এই বদ্ধভুমির কাজ শেষ হবে।

এব্যাপারে নিউকনট্রাকশনের প্রোপাইটর নতুন জানান, সিএইচএসএমএম প্রকল্পের আওতাধীন এ কাজের জন্য ফান্ডে টাকা নাই বলে কাজ বন্ধ রাখা হয়েছে। কারণ চলমান কাজের বিল এলজিইডি দেয়নি। এলজিইডিতে বিলের বিষয়টি জানানো হলে তারা ফান্ডে টাকা নাই বলে জানিয়ে দেয়। যতটুকু কাজ হয়েছে সব নিজের টাকায় করতে হয়েছে। বিল না দিলে কি করে কাজ হবে বলেও তিনি মন্তব্য করেন।

ধূমকেতু নিউজের ইউটিউব চ্যানেল এ সাবস্ক্রাইব করুন

প্রিয় পাঠকবৃন্দ, স্বভাবতই আপনি নানা ঘটনার সাক্ষী। শেয়ার করুন আমাদের। যেকোনো ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের ইমেলে পাঠিয়ে দিন এই ঠিকানায়। নিউজ পাঠানোর ই-মেইল : dhumkatunews20@gmail.com. অথবা ইনবক্স করুন আমাদের @dhumkatunews20 ফেসবুক পেজে । ঘটনার স্থান, দিন, সময় উল্লেখ করার জন্য অনুরোধ করা হলো। আপনার নাম, ফোন নম্বর অবশ্যই আমাদের শেয়ার করুন। আপনার পাঠানো খবর বিবেচিত হলে তা অবশ্যই প্রকাশ করা হবে ধূমকেতু নিউজ ডটকম অনলাইন পোর্টালে। সত্য ও বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ নিয়ে আমরা আছি আপনাদের পাশে। আমাদের ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করার জন্য অনুরোধ করা হলো Dhumkatu news