IMG-LOGO

বৃহস্পতিবার, ২২শে ফেব্রুয়ারি ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
৯ই ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ, ১১ই শাবান ১৪৪৫ হিজরি

× Education Board Education Board Result Rajshahi Education Board Rajshahi University Ruet Alexa Analytics Best UK VPN Online OCR Time Converter VPN Book What Is My Ip Whois
নিউজ স্ক্রল
ধামইরহাটে প্রাথমিক শিক্ষক সমিতির সভাপতি বকুল, সম্পাদক শাহজাহানরাণীনগরে জামে মসজিদের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপনের উদ্বোধনপোরশায় ই’ শ্রমিক আন্দালনের কোরআন খতম ও দোয়াট্রাক-মোটরসাইকেলের সংঘর্ষে নিহত ২প্রিমিয়ার লিগে লুটনকে একহালি গোল দিলো লিভারপুলভেনিজুয়েলায় সোনার খনি ধসে নিহত ২৩রাজশাহী স্কেটিং ক্লাবের ফান র‌্যালিরুয়েটে বিনম্র শ্রদ্ধায় মহান শহীদ দিবস উদযাপনপত্নীতলায় ভাষা শহীদদের প্রতি সর্বস্তরের মানুষের শ্রদ্ধাএনজিও ফেডারেশনের উদ্যোগে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উদযাপনশিমুল মেমোরিয়াল স্কুলে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উদযাপন‘বাংলাকে জাতিসংঘের দাপ্তরিক ভাষা হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করা আমাদের লক্ষ্য’চালের বস্তায় যেসব তথ্য লেখা বাধ্যতামূলকমান্দায় আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উদযাপনধামইরহাটে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উদযাপন
Home >> টপ নিউজ >> ধর্ম >> আমরা কীভাবে কাটাবো মাহে রমজান

আমরা কীভাবে কাটাবো মাহে রমজান

হোছাইন আহমাদ আযমী : আমাদের গুনাহ বেশি তবুও আমরা আল্লাহর কাছে ফিরে আসছি না। রমজান একটা বড় অফার। আল্লাহর পক্ষ হতে গুনাহ মাফের বিরাট সুযোগ। এই সুযোগকে কাজে লাগাতে হবে। গুনাফ মাফ করিয়ে কিছু সওয়াবও সঞ্চয় থাকা দরকার। নইলে আখেরাতে নাজাত পাব কী দিয়ে?

একটি সুন্দর রমজান কাটানোর জন্য আমাদের রোযার হক আদায় করা উচিত।

আমরা রোযা রাখি কিন্তু রোযার হক আদায়ের প্রতি যত্নবান হই না। মনে করি, সাহরি খেয়ে ইফতার পর্যন্ত উপবাস থাকলেই বুঝি রোযা হয়ে গেছে। না আমরা রোযার আদব রক্ষা করি, না রোযার হক আদায় করি, না ইবাদতের পেছনে সময় ব্যয় করি; তাহলে রোযার উপকারিতা আসবে কোত্থেকে?

তাই রোযার হক আদায় করে রোযা রাখতে হবে। রোযা অবস্থায় ছোট বড় সকল গুনাহ হতে বিরত থাকতে হবে। চোখের গুনাহ, কানের গুনাহ, মুখের গুনাহ কোনো অঙ্গ দ্বারাই যেন গুনাহ না হয়, এদিকে বিশেষ নজর দিতে হবে। আমরা শুধু পেট ও লজ্জাস্থানের রোযা রাখি। অথচ মুখের রোযা আছে, চোখের রোযা আছে, এমনকি মনেরও রোযা আছে। আপনি সারাদিন না খেয়ে থাকলেন কিন্তু কল্পনায় বাজে জিনিস ঘুরছে! বুঝা গেল আপনার মন রোযা রাখেনি। এভাবে আমরা মাথার চুল থেকে পায়ের নখ পর্যন্ত রোযাদার হয়ে যাব। হাদিসে বর্ণিত হয়েছে : “রোযা মানুষের জন্য ঢালস্বরূপ যদি না সে তা ভেঙ্গে ফেলে।” (সুনানে দারেমি, হাদিস : ১৭৭৩)

ভাঙ্গা ঢাল দিয়ে কি শত্রুর আঘাত প্রতিহত করা যাবে? মোটেও না। রোযাকে ঢাল বলা হয়েছে, রোযার মাধ্যমে বান্দার মধ্যে একটা প্রতিরোধ ক্ষমতা তৈরি হয়, ফলে সে সকল গুনাহ হতে বিরত থাকতে পারে। কিন্তু ঢাল ভেঙে গেলে আঘাত প্রতিহত করা সম্ভব হয় না। সে কারণে আমাদের রোযা আমাদেরকে গুনাহ হতে বিরত রাখতে পারে না।

অপর হাদীসে রয়েছে, “হযরত আবু হুরায়রা রা. হতে বর্ণিত, স. ইরশাদ করেন, অনেক রোযাদার তাদের রোযার দ্বারা ক্ষুধার্ত তৃষ্ণার্ত থাকা ছাড়া অন্য কোনো ফায়দা হয় না। রাত জেগে অনেক ইবাদতকারী রাত্রি জাগরণ ছাড়া কিছুই পাবে না।” (সুনানে ইবনে মাজাহ-১৬৯০)

তার কারণ কী? রোযা রেখেও সওয়াব পাবে না। এত কষ্ট করার পরেও রোযার সওয়াব হতে বঞ্চিত হচ্ছে। রোযার উপকারিতা পাবে না। হয়তো রোযা রাখার দায়িত্ব হতে মুক্তি পেয়ে যাবে; কিন্তু রোযার হক আদায় না করার কারণে রোযার সওয়াব ও উপকারিতা হতে বঞ্চিত থেকে যাবে। রোযা রাখে এবং মার্কেটে যাদের দিকে দৃষ্টি দেওয়া বৈধ নয় তাদের দিকেও দৃষ্টি দেয়। রোযা রাখে, অন্য মানুষের প্রতি অপবাদ দেয়, মিথ্যা বলে, ধোঁকা দেয়। এ ধরনের রোযা আল্লাহর কাছে কোন বিনিময় পায় না। সে ধোঁকাবাজি করছে। রোযার হক আদায় করতে পারেনি।

হাদিসে এসেছে : “হযরত আবু হুরায়রা রা. হতে বর্ণিত, স. ইরশাদ করেন, রোযা কেবল পানাহার থেকে বেঁচে থাকার নাম নয়; বরং রোযা অনর্থক এবং অশ্লীল কাজ থেকে বেঁচে থাকার নাম। তোমাকে কেউ গালি দিলে অথবা অজ্ঞতাবশত তোমাকে কেউ কিছু বললে উত্তরে তুমি বলে দাও, আমি রোযাদার, আমি রোযাদার।” (সহিহ ইবনে খুজাইমা: ১৯৯৬)

“হযরত আবু হুরায়রা রা. হতে বর্ণিত, স. ইরশাদ করেন, যে রোযাদার মিথ্যা এবং নিজের আমলের ভেজাল ছাড়ে না, আল্লাহ তাআলার তার ক্ষুধার্ত এবং তৃষ্ণার্ত থাকার কোনো প্রয়োজন নেই।” (সহিহ বুখারি-১৯০৩)

হযরত জাবের ইবনে আবদুল্লাহ রা. বলেন : “যখন তুমি রোযা রাখবে তখন যেন তোমার কান, তোমার চোখ ও তোমার জিহবাও রোযা রাখে। মিথ্যা ও হারাম হতে বিরত থাকবে। খাদেমকে কষ্ট দেওয়া হতে বিরত থাকো। রোযার দিন প্রশান্ত ও শান্ত মেজাজে থাকো এবং তোমার রোযা রাখার দিন এবং রোযা না রাখার দিন যেন বরাবর না হয়।” (শুআবুল ঈমান-৩৩৭৪)

অর্থাৎ যেদিন রোযা রাখো না সেদিনও যেভাবে চলাফেরা করো, রোযার দিনও তুমি এভাবেই চলতে থাকে; এমনটা যেন না হয়। যেদিন রোযা রাখো না সেদিন একটু অসাবধান হয়ে চললেও রোযার দিনে রোযার সম্মানে সেসব হতে বিরত থাকো। রমজানের রোযা আসার পরেও তোমার কথাবার্তা, আচরণ ও চলাফেরা যেন আগের মতো না থাকে; বরং পরিবর্তন আনা দরকার।

আমাদের জাহান্নামের দিকে নিয়ে যাওয়ার জন্য ছোট্ট মাংসপিন্ড জিহবাই যথেষ্ট। গীবত, পরনিন্দা, কুৎসা রটানো, গালিগালাজ, মিথ্যাচার, ফন্দি আঁটাসহ যাবতীয় গুনাহ আমরা জিহবার মাধ্যমেই করি।

-সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহারের কল্যাণে অনেকে আমরা সোশ্যাল মিডিয়ায় লেখালেখির ব্যাপারে সতর্ক হই না। আমরা মনে করি যেহেতু জবানের মাধ্যমে আমরা কিছু বলছি না, তাই এটা হিফাজতের দরকারের নেই। বস্তুত এটা ভুল। গীবত গীবতই, মিথ্যাচার মিথ্যাচারই। যেখানেই হোক, যেভাবেই হোক।

-নবিজি এই ব্যাপারে আমাদের মূলনীতি শিখিয়ে গেছেন। হয় আমরা চুপ থাকবো, নয় ভাল কথা বলবো।

-মুখের কথাকে নিছক হারাম হালালের সাথে তুলনা করা যাবে না। অকল্যাণকর কথা থেকে বিরত তো থাকতেই হবে, বরং যেসব কথার মাঝে কল্যান নেই, অকল্যাণও না, সেসব থেকেও দূরে থাকতে হবে। খায়েশ মেটাতে কিংবা বাচালতার দরুণ জিহবা চালিয়ে যেতে হবে না। যদিও চালাতে হয়, তবে যেন তা কল্যাণ বয়ে আনে।

-যদিও রোযারত অবস্থায় জবানের হেফাযত না করলে আমাদের রোযা ভেঙে যায় না, তবে অনবরত সওয়াব আসা থেমে যায়, পুরষ্কারপ্রাপ্তি থেমে যায়।

-একমাত্র জিহবার সংযম না করার কারণে আমরা আমাদের ভাল আমলগুলো অন্যকে দিয়ে দিই। আমরা হয়তো হজ্ব করি, উমরা করি, কিয়ামুল লাইল করি, কিন্তু অল্প একটু গীবত, মিথ্যাচার, সমালোচনা, গালি দেওয়ার কারণে আমরা আমাদের সব আমল অন্যকে বিলিয়ে দিই।

গীবত শ্রবণকারীও গুনাহের ভাগিদার। তাই কোথাও গীবতের পসরা বসলেই আমাদের অনতিবিলম্বে সেই মজলিশ ভেঙে দিতে হবে। যদি আমাদের সামনে কেউ পরনিন্দা করে, তবে যাকে নিয়ে করা হচ্ছে, তার সম্মান রক্ষার্থে আমরা প্রতিবাদ করে উঠি আল্লাহ আমাদের জাহান্নাম হতে হেফাজত করবেন ইনশাআল্লাহ।

-যদি আমরা কারো ব্যাপারে জবানের খিয়ানত করে ফেলি, তবে আমাদের কর্তব্য হলো প্রথমে আল্লাহর কাছে ক্ষমা চাওয়া, জবানের খেয়ানত সম্পর্কে সর্বোচ্চ সচেতন থাকা এবং যার ব্যাপারে খেয়ানত করা হয়েছে তার কাছে ক্ষমা চাওয়া। যদি ক্ষমা চাইলে পরিস্থিতি বিগড়ে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে, তবে আমাদের কর্তব্য হলো সে ব্যক্তির জন্য দোয়া করা, সাদাকা করা, তার ব্যাপারে ভাল কথা বলা।

লেখক : হোছাইন আহমাদ আযমী, রাজশাহী।

ধূমকেতু নিউজের ইউটিউব চ্যানেল এ সাবস্ক্রাইব করুন

প্রিয় পাঠকবৃন্দ, স্বভাবতই আপনি নানা ঘটনার সাক্ষী। শেয়ার করুন আমাদের। যেকোনো ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের ইমেলে পাঠিয়ে দিন এই ঠিকানায়। নিউজ পাঠানোর ই-মেইল : dhumkatunews20@gmail.com. অথবা ইনবক্স করুন আমাদের @dhumkatunews20 ফেসবুক পেজে । ঘটনার স্থান, দিন, সময় উল্লেখ করার জন্য অনুরোধ করা হলো। আপনার নাম, ফোন নম্বর অবশ্যই আমাদের শেয়ার করুন। আপনার পাঠানো খবর বিবেচিত হলে তা অবশ্যই প্রকাশ করা হবে ধূমকেতু নিউজ ডটকম অনলাইন পোর্টালে। সত্য ও বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ নিয়ে আমরা আছি আপনাদের পাশে। আমাদের ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করার জন্য অনুরোধ করা হলো Dhumkatu news