IMG-LOGO

শুক্রবার, ৩০শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ১৫ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

× Education Board Education Board Result Rajshahi Education Board Rajshahi University Ruet Alexa Analytics Best UK VPN Online OCR Time Converter VPN Book What Is My Ip Whois
নিউজ স্ক্রল
ফিনল্যান্ডে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্মদিন উদযাপনবাউয়েটের ২০তম একাডেমিক কাউন্সিল সভারাজশাহীতে গাঁজাসহ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেপ্তাররাজশাহী মহানগর পুলিশের সম্প্রীতি সমাবেশকেশরহাট পৌরসভার ২নং ওয়ার্ড আ.লীগের সভাপতি শফিকুল, সম্পাদক ময়েনপারিবারিকভাবে লাউ চাষে লাভবান রায়গঞ্জের কৃষকরারাজশাহীতে সিটি লেভেল মাল্টিসেক্টরাল নিউট্রিশন কো-অর্ডিনেশন কমিটির সভাশারদীয় দুর্গাপূজা উপলক্ষে রাসিকের নতুন কমিটির সভাভেড়ামারায় ডেঙ্গু জ্বরে যুবকের মৃত্যুআত্রাইয়ে বাঁশ ঝাড়ে মিললো নিখোঁজ বৃদ্ধার লাশগোদাগাড়ীতে তথ্য জানার অধিকার দিবস উদযাপনপ্রাথমিক শিক্ষা পদক পাচ্ছেন নওগাঁর শ্রেষ্ঠ দুই প্রাথমিক শিক্ষিকারায়গঞ্জে সড়ক দুর্ঘটনায় আহত সাংবাদিক আব্দুস সাত্তারনন্দীগ্রামে যাত্রীবাহী বাস উল্টে দুই নারীর মৃত্যুরাজশাহী মহানগর ছাত্রলীগের ৫ ইউনিটে কমিটি ঘোষণা
Home >> >> সেই তরুণী চান স্ত্রীর সম্মান

সেই তরুণী চান স্ত্রীর সম্মান

ধূমকেতু প্রতিবেদক, পটুয়াখালী : পটুয়াখালীতে কলেজ ছাত্রকে তুলে নিয়ে জোরপূর্বক বিয়ের পরে স্ত্রীর সম্মান দাবিতে তার শ্বশুর বাড়িতে অবস্থান নিয়েছেন ইশরাত জাহান পাখি নামের সেই তরুণী। তাকে নিয়ে মিথ্যা তথ্য ছড়ানো হচ্ছে বলে অভিযোগ পাখির।

এদিকে পাখির বিরুদ্ধে বেপরোয়া আচরণের অভিযোগ করেছে ভুক্তভোগী নাজমুল আকন। তার দাবি, পাখির বেপরোয়া আচরণের কারনে পুরো পরিবার ঘর-বাড়ি ছেড়েছেন। এঘটনায় পটুয়াখালী জুরে তুমুল আলোচনার সৃষ্টি হয়েছে।

সম্প্রতি, জোর করে আটকে বিয়ে করার ৪৮ সেকেন্ডের একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকে ভাইরাল হওয়ার পর ভুক্তভোগী নাজমুল আকন অভিযোগ করেন, মির্জাগঞ্জের ইশরাত জাহান পাখি তার সাঙ্গপাঙ্গদের নিয়ে লঞ্চঘাট এলাকা থেকে তুলে নিয়ে জোরপূর্বক বিয়ে করেন পটুয়াখালী সরকারি কলেজের ছাত্র নাজমুল আকনকে। পরে নাজমুল ওই তরুণী ইশরাত জাহান পাখিকে প্রধান আসামি করে পটুয়াখালী সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে মামলা করেন। মামলার আরও ৬/৭ জনকে অজ্ঞাতনামা আসামি করা হয়।

অভিযুক্ত ইশরাত জাহান পাখি বলেন, আমি নাজমুলকে অপহরণ করিনি, প্রেম করে দুজনের ইচ্ছেতেই বিয়ে হয়েছিল । গত (২৭ সেপ্টেম্বর) ঢাকার রায়ের বাজারের একটি কাজী অফিসে ফিরোজ আলম নামের এক কাজী আমাদের বিয়ে পরিয়েছেন । বিয়ের পূর্বে ওই অফিসের কাজী ফিরোজ আলম এবং আমার ভাই নাজমুলকে তার বাড়িতে কল দিতে বললে সে জানায় বাড়ির ফোন বন্ধ।

ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে বিয়ে করতে আপনারা নাজমুলকে বাধ্য করেছেন এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে যে ভিডিওটি দেখা গিয়েছে সেটির মূল কারণ হলো নাজমুল পঞ্চাশ হাজার টাকা কাবিন করে বিয়ে করতে চেয়েছিল। কিন্তু কাজী অফিসে থাকা সবাই বলেছে পাঁচ লাখ টাকা কাবিন করতে হবে। নাজমুল রাজি না হয়ে উঠে যেতে চেয়েছিল, এতে তার ঘার ধরা হয়েছে। নাজমুল আমার নামে যে মামলাটি করেছে সেটি সম্পূর্ন মিথ্যা ও বানোয়াট। সে আরও অনেক মেয়ের জীবন নষ্ট করেছে যা আমি বিয়ের পরে জানতে পেরেছি।

পাখি আরও বলেন, আমি ঢাকা মিরপুর সরকারি বাংলা কলেজে লেখা পড়াশুনা করি। পাশাপাশি একটি বেসরকারি কোম্পানির প্রজেক্টে চাকরি করতাম। করোনার কারনে কলেজ ও প্রোজেক্টের কাজ বন্ধ হয়ে যায়। এতে ২০২০ সালের এপ্রিল মাসে লকডাউনের সময় পটুয়াখালীর মির্জাগঞ্জের নিজের বাড়িতে চলে যাই। এপ্রিল মাসেই মির্জাগঞ্জ সদর ইউনিয়নের দুই নং ওয়ার্ডের নাজমুল আকনের সাথে আমার প্রেমের সম্পর্ক হয়। সম্পর্কের শুরুতেই আমাকে বিয়ে করার প্রতিশ্রুতি দেয় নাজমুল। এতে আস্তে আস্তে আমাদের দুজনের সম্পর্ক ঘনিষ্ঠ হতে থাকে। এভাবে কিছুদিন যাওয়ার পরে নাজমুল দ্রুত বিয়ে করবেন এমন প্রলোভন দেখিয়ে আমার কাছ থেকে ধাপে ধাপে বিভিন্ন অযুহাত দিয়ে টাকা নিতে থাকে। এছাড়া জামা-কাপড়সহ অনেক উপহার দিয়েছি বিভিন্ন সয়ম । প্রায় তিন মাস পরে আমাদের সম্পর্কের বিষয়টি আমার পরিবার জেনে যায়। পরে আমার পরিবারের সদস্যরা দুজনের বিয়ের ব্যাপারে আলাপ করেন নাজমুলের সাথে। নাজমুল তাদের কাছে বেকারের বিষয়টি তুলে ধরেন। এ নিয়ে আমার পরিবার ভাবতে থাকে এবং বিষয়টি আমাকে অবহিত করেন। পরে আমি নাজমুলের জন্য ঢাকার একটি কোম্পানিতে চাকরির ব্যবস্থা করি।

চাকরি করতে নাজমুল ঢাকাতে যায়, এর মধ্যে আমাদের সম্পর্কের বিষয়টি উভয়ের পরিবারের মধ্যে জানাজানি হয়। পারিবারিক কোন বাঁধা না থাকায় ২০২০ সালের নভেম্বর মাসে দুজনের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী স্বামী-স্ত্রী পরিচয়ে ঢাকার মিরপুর ১ নম্বরে একটি বাসা ভাড়া নিয়ে থাকতে শুরু করি। তখন তাকে বিয়ের কথা বললেই আজ নয় কাল বলে কথা অন্য দিকে নিয়ে যেত। নাজমুলের সাথে আমি আমার পরিবারের অনেকের সাথে পরিচয় করিয়ে দিয়েছি। কিন্তু আমি যখনই তার পরিবারের কারো সাথে কথা বলতে চাইতাম নাজমুল ব্যাপারটি এরিয়ে যেতো এতে আমার সন্দেহ হয় । গত কোরবানির পরে নাজমুল তার ফেইসবুকে নিজের ছবি ছাড়ে এতে একটা মেয়ে কমেন্ট করেন।

কমেন্টের সূত্র ধরে ওই মেয়ের সাথে যোগাযোগ করলে সে জানায়, তার বাড়ি বরগুনা জেলার আমতলীতে। সে নাজমুলের ক্লাস মেইট পটুয়াখালী সরকারী কলেজের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের ছাত্রী। নাজমুলের সাথে চার বছরের প্রেমের সম্পর্ক রয়েছে ওই মেয়ের । তাকেও বিয়ে করবে বলে প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন নাজমুল। বিষয়টি জানার পরে নাজমুলের সাথে আমার দ্বন্দ্বের সৃষ্টি হয়। কষ্টে আমি মানসিক ভাবে অনেকটাই ভেঙ্গে পরি। কিছুদিন পরে নাজমুলের সাথে দেখা করতে বাড়ির উদ্দেশ্যে ঢাকা থেকে গাড়িতে উঠেছি বিষয়টি জানার পরে নাজমুল বাড়ি থেকে পালিয়ে যায়। পরে মুঠোফোনে আমাকে জানায়, সে আমার সাথে দেখা করবে এবং সুবিদখালীতে আমাদের কোর্ট- কাবিন হবে বলে আমাকে শান্তনা দেয় নাজমুল। দুইদিন অপেক্ষার পরে বিষয়টি আমার অবিভাবকের জানাই তারা আমাকে নিয়ে নাজমুলের বাড়িতে যায়। তার বাড়িতে গিয়ে কোন মানুষ পাওয়া যায়নি, ঘর ছিলো তালাবদ্ধ। পরে আমার বড় ভাই ওই এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিদের বিষয়টি অবহিত করেন। তারা বিষয়টি মিমাংসা জন্য উভয় পরিবারকে নিয়ে বসার কথা থাকলেও নাজমুলের পরিবার বসতে রাজি হয়নি। একপর্যায়ে নাজমুল আমাকে জানায় সে যে টাকা-পয়সা নিয়েছে সেগুলো দিয়ে দিবে। কিন্তু বারবার ওয়াদা দিয়েও টাকা দেয়নি সে । পরে নাজমুল চাকরিতে ঢাকা চলে গেলে তার সহকর্মীরা এবং আমার সহকর্মীরা তাকে বুঝতে থাকে। এতে চলতি বছরের সেপ্টেম্বর মাসের প্রথম দিক দিয়ে আমার সাথে পুনরায় যোগাযোগ শুর করেন নাজমুল। পরে তার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ২৭ সেপ্টেম্বর ঢাকা রয়ের বাজারে একটি কাজি অফিসে আমাদের বিয়ে হয়ে। এসময় তার বন্ধু-বান্ধব ও সহকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন। মূলত তাঁরাই ভিডিওটা করেছিল। বিয়ের আগে তাদের ফোন আলাপের রেকর্ডে প্রেমের সম্পর্কের সত্যতা পাওয়া যায়।

সাংবাদিকদের কাছে এসব রেকর্ড দিয়েছেন ইশরাত জাহান পাখি। আমি কয়েকদিন ধরে আমার শশুর বাড়ি অবস্থান করছি। কিন্তু এই জায়গাতে আমি নিরপত্তা হীনতায় ভুগছি। আমাকে এখানের সবাই মানষিক চাপ প্রয়োগ করছে। আমার থেকে জোর করে কাবিনের কাগজ ও আরও কিছু প্রমান জোর করে কেরে নিয়েছে আমার শশুর বাড়ির লোকজনেরা। তাই আমি বাধ্য হয়ে আমার শশুর বাড়ি ছেরে বের হয়ে চলে যাচ্ছি । আমি আমার বাবার বাড়ি যাবো না-কি কোন আত্বীয়-স্বজনের বাসায় যাবো আমি ভেবে পাচ্ছি না।

ভুক্তভোগী নাজমুল আকন বলেন, পটুয়াখালী সরকারী কলেজে অধ্যায়নরত অবস্থায় গত কয়েক মাস আগে সামাজিক যোগাযোগের ম্যাসেঞ্জারের মাধ্যমে বার বার প্রেমের প্রস্তাব দিয়ে আসছিল ইশরাত জাহান পাখি। তাতে কোন ভাবেই রাজি হননি। এক পর্যায়ে তাকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়েও বার বার নক করা হয়েছিল। কিন্তু নাজমুল তার জায়গায় অটল ছিল বলে দাবি করেন। এক পর্যায়ে চলতি বছরের (২৭ সেপ্টেম্বর) ৭/৮ অপরিচিত লোক শহরের লঞ্চঘাট এলাকা থেকে নাজমুলকে অপহরণ করে তুলে নিয়ে যায়। অজ্ঞাত এক স্থানে নিয়ে জোড় করে কাবিননামায় একটি স্বাক্ষর রেখে দেয়। এসময় আমাকে জোড় করে মুখে মিষ্টি খাওয়ানোর চেষ্টা করা হয়। যা ভিডিওতে দেখা যায়। পরে সেখান থেকে তাকে ছেড়ে দেয়া হয়। এর কিছুদিন পরে জোড় করে মিষ্টি খাওয়ানো আর স্বাক্ষর নেয়ার ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছেড়ে দেয়া হয়। এ ঘটনায় আমি মানষিকভাবে ভেঙ্গে পড়ি। এক পর্যায়ে আইনের আশ্রয় গ্রহণ করি। গত (৩ অক্টোবর) পটুয়াখালীর সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে ইশরাতের বিরুদ্ধে একটি অপহরণ ও জোড় করে স্বাক্ষর রাখার অভিযোগ এনে মামলা দায়ের করি।’মামলায়ে ইশরাতসহ আরো ৬ থেকে ৭ জনকে আসামী করা হয়েছে। বর্তমানে আমি পালিয়ে বেড়াচ্ছি, বাড়িতেও যেতে পারছিনা। ইশরাত জাহান পাখি গত কয়েকদিন ধরে আমার বাড়ীতে অবস্থান করে উচ্ছৃংখল আচারণ করায় আমার মা বাবাও সেখানে থাকতে পারছেনা। সামাজিকভাবে আমি হেয় প্রতিপন্ন হচ্ছি। সামনে আমার পরীক্ষা ঠিকভাবে পড়াশোনাও করতে পারছিনা। ক্রমশই আমি মানষিকভাবে ভেঙ্গে পরতেছি। আমার শিক্ষা জীবন এখন হুমকীতে রয়েছে। তাই আশা করি প্রশাসনের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ যেন সঠিক বিচার করে আমাকে বাচায়। নাহলে আমার জীবনটা এখানেই শেষ হয়ে যাবে।

নাজমুল পটুয়াখালীর মির্জাগঞ্জ উপজেলার মির্জাগঞ্জ ইউনিয়নের জালাল আকনের ছেলে। সে পটুয়াখালী সরকারী কলেজের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের চতুর্থ বর্ষের ছাত্র। এবং অভিযুক্ত তরুণী ইশরাত জাহান পাখি একই উপজেলার গাজিপুর এলাকার মৃত আউয়াল হাওলাদারের মেয়ে। সে ঢাকা মিরপুর সরকারি বাঙলা কলেজের শিক্ষার্থী।

এ বিষয়ে জানতে কাজী ফিরোজ আলমের মুঠোফোনে একাধিক বার কল দিয়েও পাওয়া যায়নি।

অপহরণ করে জোরপূর্বক বিয়ে করার অভিযোগে করা মামলার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।

বিষয়টি নিশ্চিত করে পটুয়াখালী সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মনিরুজ্জামান জানান, আদালতের নির্দেশে মামলার পর আইন অনুযায়ী এগোচ্ছেন তারা। তদন্ত শেষে সঠিক তথ্য পাওয়া যাবে।

ধূমকেতু নিউজের ইউটিউব চ্যানেল এ সাবস্ক্রাইব করুন

প্রিয় পাঠকবৃন্দ, স্বভাবতই আপনি নানা ঘটনার সাক্ষী। শেয়ার করুন আমাদের। যেকোনো ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের ইমেলে পাঠিয়ে দিন এই ঠিকানায়। নিউজ পাঠানোর ই-মেইল : dhumkatunews20@gmail.com. অথবা ইনবক্স করুন আমাদের @dhumkatunews20 ফেসবুক পেজে । ঘটনার স্থান, দিন, সময় উল্লেখ করার জন্য অনুরোধ করা হলো। আপনার নাম, ফোন নম্বর অবশ্যই আমাদের শেয়ার করুন। আপনার পাঠানো খবর বিবেচিত হলে তা অবশ্যই প্রকাশ করা হবে ধূমকেতু নিউজ ডটকম অনলাইন পোর্টালে। সত্য ও বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ নিয়ে আমরা আছি আপনাদের পাশে। আমাদের ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করার জন্য অনুরোধ করা হলো Dhumkatu news