IMG-LOGO

বুধবার, ২৯শে মে ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
১৫ই জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ২০শে জিলকদ ১৪৪৫ হিজরি

× Education Board Education Board Result Rajshahi Education Board Rajshahi University Ruet Alexa Analytics Best UK VPN Online OCR Time Converter VPN Book What Is My Ip Whois
নিউজ স্ক্রল
মোহনপুরে ৬ষ্ঠ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ত্রি-মূখী লড়াইবাগমারায় ঘূর্ণিঝড় রেমালের প্রভাবে কৃষকের ব্যাপক ক্ষতিশৈলগাছী ইউনিয়ন পরিষদের উন্মুক্ত বাজেট ঘোষণারাজশাহীতে প্রথম ধাপের নির্বাচিত উপজেলা চেয়ারম্যানদের শপথ গ্রহণরাজশাহীতে ৬৬৫১৩ শিশুকে ভিটামিন এ ক্যাপসুল খাওয়ানো হবেনারীর ভূমিকার পক্ষে শক্ত অবস্থান সানিয়া মির্জারনাচোলে দুদকের বিতর্ক প্রতিযোগিতা ও পুরস্কার বিতরণফুলবাড়ীতে উম্মুক্ত লটারীর মাধ্যমে কৃষক নির্বাচন‘তদন্তের স্বার্থে সব বলা যাচ্ছে না’পাল্টা ২০ কোটি টাকা ক্ষতিপূরণ চেয়ে আইনি নোটিশ পাঠালেন চিত্রনায়িকা মিষ্টি‘বেনজিরকে গ্রেফতারে আইনী কোন বাধা নেই’১৪৩৩৭ কোটি টাকার ১১ প্রকল্প একনেকে অনুমোদনইসরায়েলি সেনাদের সঙ্গে গোলাগুলিতে মিসরীয় ১ সেনা নিহতএমপি আজিমের বিষয়ে গোয়েন্দা পুলিশের নতুন তথ্যচার লিগে সর্বাধিক গোল, বিশ্বরেকর্ড রোনালদোর
Home >> নগর-গ্রাম >> টপ নিউজ >> গোমস্তাপুর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মূল ফটকের ভেতরেই ডায়াগনস্টিক সেন্টার

গোমস্তাপুর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মূল ফটকের ভেতরেই ডায়াগনস্টিক সেন্টার

ধূমকেতু প্রতিবেদক, চাঁপাইনবাবগঞ্জ : চাঁপাইনবাবগঞ্জের গোমস্তাপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ঘেঁষে গড়ে উঠেছে ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার। অনুমোদনবিহীন এসব ক্লিনিকের বেশিরভাগই অবৈধ। আইন অনুযায়ী, সরকারি হাসপাতালের এক কিলোমিটার বা কিছুক্ষেত্রে আধা কিলোমিটার দূরত্বের মধ্যে বেসরকারি ক্লিনিক, ডায়গনস্টিক সেন্টার স্থাপন করা যাবে না। কিন্তু এসব ক্ষেত্রে আইন তো মানা হচ্ছেই না, উল্টো এসব বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে নিয়োজিত বেতনভুক্ত দালালরা সরকারি হাসপাতালের রোগীদের নিচ্ছে ভাগিয়ে।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, গোমস্তাপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সাথে ঘেঁষে একই গেইটের মধ্যে গড়ে উঠেছে রহনপুর ডিজিটাল ডায়াগনস্টিক সেন্টার ও রাজ ডায়াগনস্টিক সেন্টার। অবস্থা এমন যে মনে হয়, বেসরকারি ডায়াগনস্টিক সেন্টার দুটিতে যেতে অতিক্রম করতে হয় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মূল ফটক। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে যেতো মূল গেইট দিয়ে প্রবেশের পর একটি গলিতে বেসরকারি ডায়াগনস্টিক সেন্টার দুটি। এমনকি এখানে চিকিৎসা নিতে গেলে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মূল ফটক দিয়েই যেতে হয়। নেই কোন সরকার অনুমোদিত লাইসেন্স, পরিবেশ ছাড়পত্র, বর্জ্য ব্যবস্থাপনা। রহনপুর ডিজিটাল ডায়াগনস্টিক সেন্টারটি আবার পাশের জেলা নওগাঁর পোরসা উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মাহবুব হাসানের মালিকানাধীন।

অভিযোগ রয়েছে, রাজস্ব ফাঁকি দিয়ে নিয়মনীতির তোয়াক্কা না করেই নিজের ক্লিনিক চালাচ্ছেন এই কর্মকর্তা। রহনপুর ডিজিটাল ডায়াগনস্টিক সেন্টার ছাড়াও রাজ ডায়াগনস্টিক সেন্টার নামে আরেকটি ক্লিনিক রয়েছে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের গেইট ঘেঁষে। জানা যায়, রাজ ডায়াগনস্টিক সেন্টারেরও নিবন্ধণ নাই। এমনকি গোমস্তাপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কয়েকশ মিটারের মধ্যে ৪টা ক্লিনিক রয়েছে।

সেবাগ্রহীতাদের অভিযোগ, দীর্ঘদিন ধরে বেসরকারি ডায়াগনস্টিক সেন্টার ও ক্লিনিকের নিয়োজিত বেতনভুক্ত দালালরা সরকারি হাসপাতালের রোগীদের ভাগিয়ে নিয়ে যায়। বিভিন্নভাবে ভুল বুঝিয়ে চিকিৎসার নামে হয়রানি করে এসব দালালরা। স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে রোগীদের নিয়ে গিয়ে বিভিন্ন পরীক্ষা-নিরীক্ষার নামে বিপুল টাকা টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে ক্লিনিকগুলো।

গোমস্তাপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা নিতে আসা এনজিওকর্মী রফিকুল ইসলাম বলেন, বোনকে চিকিৎসা করাতে নিয়ে এসেছি। স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এক মহিলা বিভিন্নভাবে ভুল বুঝিয়ে পাশের একটি ক্লিনিকে নিয়ে যায়। এরপর দেয় একগাদা টেস্ট। পরে জানলাম এসব টেস্ট করাতে সরকারি হাসপাতালে এক-তৃতীয়াংশ টাকা লাগতো।

কয়েকমাস আগে আলীনগরের ফাতেমা বেগম নামের একটি মহিলা গর্ভবতী হওয়ায় চিকিৎসক দেখাতে এসেছিল গোমস্তাপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে। তিনি জানান, সেখান থেকে এক মহিলা বিভিন্নভাবে নানা কথা বলে নিয়ে যায় ডিজিটাল ডায়াগনস্টিক সেন্টারে। কিন্তু সেখানে গিয়ে নানা পরীক্ষা-নিরীক্ষা দিলেও কোন ডাক্তার না থাকায় দীর্ঘ সময় বসিয়ে রাখা হয়।

স্থানীয় শিক্ষক মাতোয়ারা বেগম বলেন, স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ঘেঁষে এভাবে অবৈধভাবে এসব ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার গড়ে উঠেছে। সরকারি হাসপাতালের চিকিৎসক, নার্সের সহযোগিতায় এসব ক্লিনিক গড়ে উঠে। অথচ বেশিরভাগেরই নেয় লাইসেন্স। নিয়ম-নীতি না মেনেই চলছে এসব ক্লিনিক।

জানা যায়, বর্তমানে পোরসা উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মাহবুব হাসান ২০১৭ সালের আগ পর্যন্ত গোমস্তাপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে কর্মরত ছিলেন। কিছুদিন আগে আবারও নিজ এলাকা গোমস্তাপুরে ফিরতে আবেদন করেছেন তিনি। তবে রহনপুর ডিজিটাল ডায়াগনস্টিক সেন্টারে নিজের মালিকানা থাকার বিষয়টি অস্বীকার করেছেন ডা. মাহবুব হাসান। তিনি সেখানে শুক্রবার ও শনিবার নিয়মিত রোগী দেখেন।

মুঠোফোনে তিনি বলেন, রহনপুর ডিজিটাল ডায়াগনস্টিক সেন্টারে আমার মালিকানা নেই। তবে সেখানকার একটি রুমে আমি নিয়মিত চেম্বার করি। এছাড়াও হাসপাতালের পাশে ক্লিনিক বা ডায়াগনস্টিক সেন্টার না করার কোন বিধান নেই। এমনকি রহনপুর ডিজিটাল ডায়াগনষ্টিক সেন্টারের সকল আবেদন করা হয়েছে। তবে এখনও অনুমোদন পায়নি।

এবিষয়ে জেলা সিভিল সার্জন ডা. মাহমুদুর রশীদ বলেন, সরকারি হাসপাতাল থেকে দুই কিলোমিটার দূরত্বের মধ্যে বেসরকারি ক্লিনিক, ডায়গনস্টিক সেন্টার স্থাপন করা যাবে না। তবে বাংলাদেশের প্রেক্ষিতে তা অনুসরণ করা হয় না। সরকারি হাসপাতাল ঘেঁষে ডায়াগনস্টিক-ক্লিনিক স্থাপন ও অনুমোদনবিহীন ক্লিনিকের বিরুদ্ধে অভিযান পরিচালনা করে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

ধূমকেতু নিউজের ইউটিউব চ্যানেল এ সাবস্ক্রাইব করুন

প্রিয় পাঠকবৃন্দ, স্বভাবতই আপনি নানা ঘটনার সাক্ষী। শেয়ার করুন আমাদের। যেকোনো ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের ইমেলে পাঠিয়ে দিন এই ঠিকানায়। নিউজ পাঠানোর ই-মেইল : dhumkatunews20@gmail.com. অথবা ইনবক্স করুন আমাদের @dhumkatunews20 ফেসবুক পেজে । ঘটনার স্থান, দিন, সময় উল্লেখ করার জন্য অনুরোধ করা হলো। আপনার নাম, ফোন নম্বর অবশ্যই আমাদের শেয়ার করুন। আপনার পাঠানো খবর বিবেচিত হলে তা অবশ্যই প্রকাশ করা হবে ধূমকেতু নিউজ ডটকম অনলাইন পোর্টালে। সত্য ও বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ নিয়ে আমরা আছি আপনাদের পাশে। আমাদের ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করার জন্য অনুরোধ করা হলো Dhumkatu news