IMG-LOGO

রবিবার, ২৬শে মে ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
১২ই জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১৭ই জিলকদ ১৪৪৫ হিজরি

× Education Board Education Board Result Rajshahi Education Board Rajshahi University Ruet Alexa Analytics Best UK VPN Online OCR Time Converter VPN Book What Is My Ip Whois
নিউজ স্ক্রল
পাকিস্তানে সাবেক অভিনেত্রীর ওপর বন্দুক হামলাশত শত ফ্লাইট বাতিল কলকাতা বিমানবন্দরেসন্ধ্যায় যেসব এলাকা অতিক্রম করতে পারে ঘূর্ণিঝড় রিমালব্যাপক তাণ্ডব চালানোর আশঙ্কাবাগমারায় ঠিকাদারদের উপর কিশোর গ্যাং এর হামলামোহনপুরে ঘোড়া মার্কা প্রতীকের প্রার্থীর নির্বাচনী ইশতেহার ঘোষণাফুলবাড়ীতে পর্বশত্রুতার জেরে ২০০টি চারা আমগাছ বিনষ্টতজুমদ্দিনে মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থীর উপর হামলা, আটক ৩নন্দীগ্রামে সিজারের পর প্রসূতি মৃত্যুর অভিযোগনন্দীগ্রামে উন্নয়ন ধারা অব্যাহত রাখতে আনারসে ভোট চাইলেন জিন্নাহহামাসের ফাঁদে বন্দী ইহুদিবাদী সেনারাইংরেজি বলে সমালোচিত, এবার জবাব দিলেন অভিনেত্রী কিয়ারাপ্রধানমন্ত্রীর অনুদানের চেক গেলো কোথায়, চেকের টাকা কার পকেটেমিরসরাইয়ে ২১ মেডিকেল টিম প্রস্তুতব্রিটিশ এয়ার ফোর্সের বিমান বিধ্বস্ত,পাইলট নিহত
Home >> নগর-গ্রাম >> সনদ যার চাকুরি তার, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে প্যানেলভিত্তিক নিয়োগের দাবি

সনদ যার চাকুরি তার, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে প্যানেলভিত্তিক নিয়োগের দাবি

ধূমকেতু প্রতিবেদক, চাঁপাইনবাবগঞ্জ : চাঁপাইনবাবগঞ্জে বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন ও প্রত্যয়ন কর্তৃপক্ষের (এনটিআরসিএ) বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ তুলে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে প্যানেলভিত্তিক শিক্ষক নিয়োগের দাবি জানিয়েছে প্যানেল প্রত্যাশী নিবন্ধিত শিক্ষক সংগঠন। 

শুক্রবার (১০ ফেব্রুয়ারী) সকালে জেলা শহরের সেন্টু মার্কেটের বিপরীতে বঙ্গবন্ধু মুক্তমঞ্চের সামনে অনুষ্ঠিত এক মানববন্ধনে এ দাবি তোলেন সংগঠনের নেতারা।

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, নিবন্ধন পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হওয়া কোন স্কুল-কলেজের সাধারণ পরীক্ষা নয়। সুনির্দিষ্ট নিয়ম-কানুন মেনে নিবন্ধন পরীক্ষায় অংশ নিয়ে আমরা উত্তীর্ণ হয়েছি। তাই আমাদের দাবি, নিবন্ধনের সনদ যার, চাকুরি তাকেই দিতে হবে। বাংলাদেশের শিক্ষকরা বিভিন্নভাবে নির্যাতিত ও নিপীড়িত। আমাদের শিক্ষকরা দ্বিতীয় শ্রেণির কর্মচারী হয়ে দশম গ্রেডের বেতন পায় যা আমাদের জন্য লজ্জাজনক। আমরা বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধণ পরীক্ষায় নিবন্ধণপ্রাপ্ত হলেও আমাদের কোনো শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে চাকরি হয়নি।

বক্তারা অভিযোগ করে বলেন, বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে নিয়োগ বাণিজ্য ও স্বজনপ্রীতির অভিযোগ ও নিয়োগের সমস্যা সমাধানের জন্য এনটিআরসিএ গঠন করা হলেও ২০০৫ থেকে ২০২১ পর্যন্ত মাত্র তিনটি গণ নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি দেয় তারা। কিন্তু এতে নতুন শিক্ষক নিয়োগের নামে বদলি বিজ্ঞপ্তি দেওয়া হয়েছিল। আর এর মাধ্যমে নিয়োগ প্রত্যাশীদের কাছ থেকে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছিল তারা।

প্যানেল প্রত্যাশী নিবন্ধিত শিক্ষক সংগঠন চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা শাখার সভাপতি হাসান আলী বলেন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্নের সোনার বাংলা বিনির্মাণে এবং কৃত্রিম শিক্ষক সংকট দূরীকরণে প্যানেলভিত্তিক নিয়োগের কোনো বিকল্প নেই। মুজিববর্ষের উপহার স্বরূপ একটি বিশেষ বিজ্ঞপ্তিই পারে এক আবেদনে প্যানেলভিত্তিক নিয়োগের ব্যবস্থা গ্রহণ করে শিক্ষক সমাজকে অভিশাপ মুক্ত করতে। আর কোনো গণবিজ্ঞপ্তি নয়, প্যানেলভিত্তিক নিয়োগ এখন সময়ের যৌক্তিক ও ন্যায্য দাবি।

তিনি আরও বলেন, এনটিআরসি ২০০৫ সালে গঠিত হয়। এর উদ্দেশ্য ছিল প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষার মাধ্যমে যোগ্য শিক্ষক নির্বাচন করা। ২০০৬ সালের ৩০ জুলাই গেজেট পাস করে মন্ত্রণালয়। পরিবর্তন আসে এনটিআরসিএ’র। প্রতিবছর অক্টোবর মাসে উপজেলা বা থানা শিক্ষা অফিসার সংশ্লিষ্ট থানাধীন বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শুন্যপদ ও বিষয়ভিত্তিক পদ জেলা শিক্ষা অফিসার বরাবর দাখিল করবেন এবং জেলা শিক্ষা অফিসার সেই তালিকার সঠিকতা যাচাই করে নভেম্বর মাসের মধ্যে এনটিআরসিএ’তে পাঠাবেন। এনটিআরসিএ ওই তালিকার ভিত্তিতে পরীক্ষা গ্রহণ করবে। এভাবে চলছিল এনটিআরসিএ’র বাৎসরিক পরীক্ষা গ্রহণ। তখন সনদের মেয়াদ ছিল পাঁচ বছর। ফলে প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে সনদ পেলেও অনেকের সনদের মেয়াদ শেষ হয়ে যাচ্ছিল।

সাধারণ সম্পাদক আয়েশা খাতুন বলেন, ২০১৩ সালের ২০ মে রাষ্ট্রপতির আদেশক্রমে এক প্রজ্ঞাপনে সনদের মেয়াদ আজীবন করা হয়। কিন্তু শিক্ষক নিয়োগ প্রক্রিয়া তখনো ছিল ম্যানেজিং কমিটির হাতে। নামমাত্র পরীক্ষা নিয়ে নিজেদের মনোনীত প্রার্থীকে এগিয়ে রাখা হতো। নিবন্ধন মার্ক কোনো বিষয় ছিল না। মূল যোগ্যতা (স্বজনপ্রীতি ও ঘুষ বাণিজ্য) ছিল লোকচক্ষুর অন্তরালে। এছাড়া কিছু কিছু প্রতিষ্ঠান বারবার নিয়োগ পরীক্ষার নামে প্রার্থীদের কাছ থেকে আবেদন ফি বাবদ বিপুল টাকা হাতিয়ে নিচ্ছিল। এরপর ২০১৫ সালের ২২ অক্টোবর মন্ত্রণালয়ে পাশ হয় নতুন গেজেট। মাল্টিপল চয়েজ ও লিখিতের পাশাপাশি যোগ করা হয় মৌখিক। এককভাবে প্রার্থী নির্বাচন করে শূন্য পদে নিয়োগ সুপারিশের উদ্দেশ্যে পরীক্ষা নেয় এনটিআরসিএ।’

মানববন্ধনে তিনি আরও বলেন,  নতুন গেজেটের দ্বারা ক্ষতিগ্রস্ত ও নিয়োগ বঞ্চিত হয়ে ১-১২তমদের কিছু অংশ আদালতের দ্বারস্থ হন, রিট করেন। এতে আটকে যায় ১৩তমদের নিয়োগ সুপারিশের কার্যক্রম। ১৩তমদের একদল আন্দোলন করেন, আদালতের দ্বারস্থ হন এবং পাল্টা রিট করেন। ২০১৬ সালের গণবিজ্ঞপ্তিকে প্রথম চক্র ধরে নিয়োগ সুপারিশ কার্যক্রম চালু হয়। যৌক্তিক আন্দোলনের কারণে তৃতীয় গণবিজ্ঞপ্তিতে ৩৫ এর বেশি বয়সী নিবন্ধনধারীদের পুনরায় আবেদন করার সুযোগ রাখা হয়। এনটিআরসিএ’র অব্যবস্থাপনা ও অদূরদূর্শিতার কারণে নিবন্ধণধারীরা বারবার ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে এবং হচ্ছে। এর দায়ভার কার? 

মানববন্ধনে আরও উপস্থিত ছিলেন, প্যানেল প্রত্যাশী নিবন্ধিত শিক্ষক সংগঠন চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা শাখার সহ সভাপতি সেলিম রেজা, সহ-সম্পাদক মিতা সরকার, প্রচার সম্পাদক আইয়ুব আলীসহ অন্যান্যরা।

ধূমকেতু নিউজের ইউটিউব চ্যানেল এ সাবস্ক্রাইব করুন

প্রিয় পাঠকবৃন্দ, স্বভাবতই আপনি নানা ঘটনার সাক্ষী। শেয়ার করুন আমাদের। যেকোনো ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের ইমেলে পাঠিয়ে দিন এই ঠিকানায়। নিউজ পাঠানোর ই-মেইল : dhumkatunews20@gmail.com. অথবা ইনবক্স করুন আমাদের @dhumkatunews20 ফেসবুক পেজে । ঘটনার স্থান, দিন, সময় উল্লেখ করার জন্য অনুরোধ করা হলো। আপনার নাম, ফোন নম্বর অবশ্যই আমাদের শেয়ার করুন। আপনার পাঠানো খবর বিবেচিত হলে তা অবশ্যই প্রকাশ করা হবে ধূমকেতু নিউজ ডটকম অনলাইন পোর্টালে। সত্য ও বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ নিয়ে আমরা আছি আপনাদের পাশে। আমাদের ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করার জন্য অনুরোধ করা হলো Dhumkatu news