IMG-LOGO

শুক্রবার, ২৩শে ফেব্রুয়ারি ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
১০ই ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ, ১২ই শাবান ১৪৪৫ হিজরি

× Education Board Education Board Result Rajshahi Education Board Rajshahi University Ruet Alexa Analytics Best UK VPN Online OCR Time Converter VPN Book What Is My Ip Whois
নিউজ স্ক্রল
গাজার আবাসিক এলাকায় ইসরাইলের হামলায় নিহত ৪০আজ সকাল ১০টায় প্রধানমন্ত্রীর সংবাদ সম্মেলনচাঁপাইনবাবগঞ্জে ডিএনসির অভিযানে গাঁজাসহ গ্রেপ্তার ১বাগাতিপাড়ায় আমরা ক’জন স্পোটিং ক্লাবের ৫ দিনব্যাপী বই মেলাদেশের ১৭ জেলায় তীব্র ঝড়ের আশঙ্কারাজশাহীর বীর মুক্তিযোদ্ধা সারোয়ার হোসেন বাবলার ইন্তেকালশহীদদের প্রতি আই ফার্মার লিঃ রাজশাহীর শ্রদ্ধাধামইরহাটে প্রাথমিক শিক্ষক সমিতির সভাপতি বকুল, সম্পাদক শাহজাহানরাণীনগরে জামে মসজিদের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপনের উদ্বোধনপোরশায় ই’ শ্রমিক আন্দালনের কোরআন খতম ও দোয়াট্রাক-মোটরসাইকেলের সংঘর্ষে নিহত ২প্রিমিয়ার লিগে লুটনকে একহালি গোল দিলো লিভারপুলভেনিজুয়েলায় সোনার খনি ধসে নিহত ২৩রাজশাহী স্কেটিং ক্লাবের ফান র‌্যালিরুয়েটে বিনম্র শ্রদ্ধায় মহান শহীদ দিবস উদযাপন
Home >> নগর-গ্রাম >> টপ নিউজ >> খানাখন্দ গর্তে ভরা নওগাঁ-বদলগাছী সড়ক, বাড়ছে দূর্ঘটনা

খানাখন্দ গর্তে ভরা নওগাঁ-বদলগাছী সড়ক, বাড়ছে দূর্ঘটনা

ধূমকেতু প্রতিবেদক, বদলগাছী : সংস্কারের অভাবে নওগাঁ-বদলগাছী সড়কটির এখন বেহাল অবস্থা। পিচ উঠে সড়কটির অসংখ্য স্থানে ভাঙাচোরা, খানাখন্দ ও গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। এতেকরে ছোটখাট ও বড় ধরণের দুর্ঘটনার পাশাপাশি ভোগান্তি পোহাচ্ছে জন সাধারণ।

বালু, ইট, পাথর ও পণ্যবাহী ভারী ট্রাক চলাচল করায় সড়কটির অধিকাংশ স্থানই দেবে গেছে। আবার কোথাও তৈরি হয়েছে খানাখন্দ। বিধ্বস্ত রাস্তাটি সংস্কার না হওয়ায় প্রতিদিনই এসব ভাঙাচোরা, খানাখন্দ ও গর্তের পরিমান বেড়ে সড়কটির অবস্থা আরও খারাপ হয়ে যাচ্ছে। বৃষ্টি হলে গর্ত ও খানাখন্দে জমা পানিতে আর শুষ্ক সময়ে ধুলাবালির দুর্ভোগের মধ্য দিয়েই ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করতে হয় জনগণদের।

সড়ক ও জনপথ (সওজ) নওগাঁ কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, নওগাঁ থেকে বদলগাছী উপজেলা সদর পর্যন্ত সড়কটির দৈর্ঘ্য ১৮ কিলোমিটার। সর্বশেষ ২০১৫ সালে সড়কটি সংস্কার ও প্রশস্তকরণ কাজ করা হয়। এরপর সড়কটিতে আর কোনো সংস্কার কাজ করা হয়নি। নওগাঁ থেকে এই সড়ক দিয়েই বদলগাছীর ঐতিহাসিক পাহাড়পুর বৌদ্ধবিহার যেতে হয়। এছাড়া নওগাঁ পতœীতলা, সাপাহার, মহাদেবপুর ও ধামইরহাট উপজেলাবাসীর চলাচলের প্রধান রাস্তা এটি। রাস্তাটি ২২ টনের বেশি যান চলাচলের উপযোগী নয়, কিন্তু এই রাস্তা দিয়ে প্রতিদিন ৩০ থেকে ৪০ টন ওজনের পণ্যবাহী যান বাহনও চলাচল করছে। প্রতিদিন এই সড়কটি দিয়ে ১০ থেকে ১২ হাজার যানবাহন চলাচল করে।

সরেজিমনেগিয়ে দেখা যায়, সড়কটির পুরো ১৮ কিলোমিটার অংশ জুড়েই অসংখ্য খানাখন্দ তৈরি হয়েছে। রাস্তাটির বেশ কিছু স্থানে দেবে গিয়ে এবং পিচ উঠে গিয়ে বড় বড় গর্ত সৃষ্টি হযেছে। এসব গর্তে পড়ে ভারী পণ্যবাহী ট্রাক প্রায়ই আটকে যাচ্ছে। কোথাও কোথাও রাস্তায় বড় বড় ঢিবি তৈরি হয়েছে। পাহাড়পুর বাজার, কীর্ত্তিপুরবাজার, বালুভরা, খলসী মোড়, চাংলা, বদলগাছী খাদ্যগুদাম মোড়, হাসপাতাল মোড়সহ বিভিন্ন স্থানে সড়কটির অবস্থা সবচেয়ে খারাপ। খানাখন্দে ভরা সড়কটিতে প্রায়ই ঘটছে ছোট-বড় দূর্ঘটনা।

বদলগাছী এলাকার বাসিন্দা ও সিএনজিচালিত অটোরিকশার চালক সবুজ বলেন, পাঁচ বছর আগেই সড়কটি সংস্কার ও প্রশস্ত করা হয়। এরপর মাঝেমাঝে গর্ত ভরাটকাজ ছাড়া সড়কটিতে তেমন কোনো উন্নয়নকাজ হয়নি। ফলে সড়কটিতে যানবাহন চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। খানাখন্দের কারণে প্রায়ই অটোরিকশার বিভিন্ন যন্ত্রাংশ নষ্ট হয়ে যায়।

গত সোমবার নওগাঁ-বদলগাছী সড়কের চাংলা এলাকায় দেখা যায়, একটি বালুবাহী ট্রাক রাস্তার গর্তে আটকা পড়েছে। ট্রাকটি সেখানে আটকা পড়ায় তৈরি হয়েছে যানজট। গর্তে আটকা পড়া ওই ট্রাকের চালক বেলাল হোসেন বলেন, ‘সড়কের পিচ ও খোয়া উঠে গিয়ে কাচা মাটি বের হয়ে পড়েছে। এর ফলে ট্রাকের চাকা দেবে গেছে। এখন বারবার চেষ্টা করেও গাড়ি আর তুলতে পারছি না। বালুসহ ট্রাকের ওজন প্রায় ৩০ টনের ওপরে হবে। এখন মনে হচ্ছে এই ট্রাক গর্ত থেকে তোলার জন্য ট্রাকের বালু নামিয়ে ফেলতে হবে।’

গত কয়েকদিন আগে চাংলা নামক এলাকায় রাস্তায় খানাখন্দেও কারণে একটি যাত্রী বোঝায় অটোচার্জার পেছনে আসা বাসকে সাইট দিতে গিয়ে উল্টে যায়।

আদদ্বীন পরিবহনের বাসের চালক শফিকুল ইসলাম বলেন, ‘সারা রাস্তায় গর্ত আর ভাঙাচোরা। রাস্তার এই অবস্থার কারণে আগে যেখানে নওগাঁ থেকে বদলগাছী যাইতে সর্বোচ্চ ২০ মিনিট সময় লাগতো এখন সেখানে ৫০ থেকে ৬০ মিনিট সময় লাগতেছে। খানাখন্দের কারণে গাড়ি প্রচুর ঝাঁকুনি খায়। গাড়ির ঝাঁকুনিতে শরীর বিষের মতো ব্যথা হইয়া যায়।’

নওগাঁ সওজ আঞ্চলিক কার্যালয়ের নির্বাহী প্রকৌশলী সাজেদুর রহমান বলেন, এই আঞ্চলিক সড়কে ছয় চাকার পণ্যবাহী ট্রাকের সর্বোচ্চ ধারণক্ষমতা (গাড়ির ওজনসহ) ১৫ টন এবং ১০ চাকার ট্রাকের ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ ধারণক্ষমতা ২২ টন। কিন্তু প্রকৃতপক্ষে দেখা গেছে, ট্রাকগুলো ধারণক্ষমতার চেয়ে অতিরিক্ত পণ্য পরিবহন করছে। পণ্যসহ কোনো কোনো ট্রাকের ওজন ৩০ থেকে ৪০ টন হয়ে পড়ে। ভারী পণ্যবাহী যানবাহনের কারণে সড়ক দ্রæত নষ্ট হয়ে যায়। নওগাঁ-বদলগাছী সড়কটি নষ্ট হয়ে যাওয়ার অন্যতম কারণ ভারী পণ্যবাহী ট্রাক। আর ুঅধিকাংশ ট্রাকই বালুবাহী।

তিনি আরও বলেন, এই সড়কটি সহ নওগাঁর পাঁচটি আঞ্চলিক সড়ক সংস্কারের জন্য প্রকল্প প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে। তবে আপাতত গাড়ির চাকা যাতে চলতে পারে সেজন্য রাস্তাটির বেশি খারাপ অংশে ইট-খোয়া ফেলা হচ্ছে।

ধূমকেতু নিউজের ইউটিউব চ্যানেল এ সাবস্ক্রাইব করুন

প্রিয় পাঠকবৃন্দ, স্বভাবতই আপনি নানা ঘটনার সাক্ষী। শেয়ার করুন আমাদের। যেকোনো ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের ইমেলে পাঠিয়ে দিন এই ঠিকানায়। নিউজ পাঠানোর ই-মেইল : dhumkatunews20@gmail.com. অথবা ইনবক্স করুন আমাদের @dhumkatunews20 ফেসবুক পেজে । ঘটনার স্থান, দিন, সময় উল্লেখ করার জন্য অনুরোধ করা হলো। আপনার নাম, ফোন নম্বর অবশ্যই আমাদের শেয়ার করুন। আপনার পাঠানো খবর বিবেচিত হলে তা অবশ্যই প্রকাশ করা হবে ধূমকেতু নিউজ ডটকম অনলাইন পোর্টালে। সত্য ও বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ নিয়ে আমরা আছি আপনাদের পাশে। আমাদের ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করার জন্য অনুরোধ করা হলো Dhumkatu news