IMG-LOGO

মঙ্গলবার, ২৯শে নভেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ১৪ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

× Education Board Education Board Result Rajshahi Education Board Rajshahi University Ruet Alexa Analytics Best UK VPN Online OCR Time Converter VPN Book What Is My Ip Whois
নিউজ স্ক্রল
রাজশাহী বঙ্গবন্ধু কলেজে ‘হিসাবের আড্ডা’র সভাগণিত অলিম্পিয়াড ফাইনাল রাউন্ডে উত্তীর্ণ বাউয়েট শিক্ষার্থী সৌরভরায়গঞ্জে শীতকালীন সবজির দাম কমলেও আশানুরুপ নেই ক্রেতালালপুরে বনিক সমিতির সভাপতিকে গ্রেপ্তারের প্রতিবাদে মানববন্ধনশিবগঞ্জে ভুটভুটির ধাক্কায় প্রাণ গেল মোটরসাইকেল আরোহীরনক আউটে ব্রাজিলবিএনপি উশৃঙ্খলতা করলে বরদাশত করা হবে না : লিটন১১নং ওয়ার্ড আ.লীগ সভাপতির পিতার মৃত্যুতে মেয়র লিটনের শোকসুলতানগঞ্জ পোর্ট এ কাস্টমস কার্যক্রম চালুকরণ বিষয়ক সভামোহনপুর সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় এসএসসি পরীক্ষায় ঈর্ষণীয় সাফল্যমোহনপুরে শহীদ বুদ্ধিজীবী ও মহান বিজয় দিবস উদযাপন উপলক্ষে প্রস্তুতি সভামহাদেবপুরে সড়ক দুর্ঘটনায় মোটরসাইকেল আরোহীর মৃত্যুমেয়রের সাথে প্যারা কমান্ডো ব্রিগেডের কমান্ডারের সাক্ষাৎগোমস্তাপুরে এসএসসিতে জিপিএ-৫ পেয়েছে ৬২২ শিক্ষার্থীগোমস্তাপুরে বিজয় দিবস উপলক্ষে প্রস্তুতি সভা
Home >> >> আধিপত্যের দ্বন্দ্বেই ভাঙছে ধুনট আওয়ামী লীগ

আধিপত্যের দ্বন্দ্বেই ভাঙছে ধুনট আওয়ামী লীগ

ধূমকেতু নিউজ ডেস্ক : দুই পক্ষেরই দাবি তারা মুজিব আদর্শের সৈনিক। কিন্তু নিজেদের প্রয়োজনে আধিপত্য বিস্তারে সেই আদর্শের বালাই নেই। স্বাধীনতার মাসে উপজেলা আওয়ামী লীগের কোন্দলকে কেন্দ্র করে বোমাবাজি করা হয় ধুনটের শেখ মুজির চত্বরে।

দ্বন্দ্বের ঘটনার মূল নায়ক ধুনট উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি টিআই নুরুন্নবী তারিক, সাধারণ সম্পাদক আব্দুল হাই খোকন ও বগুড়া-৫ আসনের (শেরপুর-ধুনট) সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ হাবিবর রহমানের ছেলে ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি প্রকৌশলী আসিব ইকবাল সনি। উপজেলায় একের পর এক ন্যাক্কারজনক ঘটনার জন্য তারা একে অন্যকে দোষারোপ করেছেন।

একই স্থানে দু’পক্ষের পাল্টাপাল্টি কর্মসূচিকে ঘিরে বুধবার মধ্যরাতে শহরের মুজিব চত্বর এলাকায় পরপর ৭টি বোমার বিস্ফোরণ ঘটানো হয়। এ ঘটনার জেরে মুজিব চত্বর ও তার আশপাশের ৪০০ গজের মধ্যে প্রশাসন ১৪৪ ধারা জারি করে।

এর আগে ১৩ ফেব্রুয়ারি দু’পক্ষের মধ্যে পাল্টাপাল্টি ধাওয়া, ইট পাটকেল নিক্ষেপ, টিআরসেল ও গুলি বর্ষণের ঘটনা ঘটে। এতে পুলিশসহ উভয়পক্ষের কমপক্ষে ২০ নেতাকর্মী আহত হন। এ ঘটনায় দু’পক্ষই অন্তত শতাধিক নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে থানায় পাল্টাপাল্টি মামলা দায়ের করেছেন। এরপর থেকে দীর্ঘদিনের দ্বন্দ্ব এখন প্রকাশ্য রূপ নিয়েছে।

স্থানীয় নেতাকর্মীদের বেশিরভাগই মনে করেন, পৌর নির্বাচনে মেয়র প্রার্থী আওয়ামী লীগের সভাপতি অধ্যাপক টিআইএম নুরুন্নবী তারিকের পরাজয়, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুল হাই খোকনের বিরুদ্ধে অনাস্থা প্রস্তাবে নেপথ্যে রয়েছেন এমপি পুত্র আসিব ইকবাল সনি। এছাড়া দলীয় পদ, টিআর, কাবিখা ও কাবিটার ভাগবাটোয়ারা, নিয়োগ বাণিজ্যসহ বিভিন্ন বিষয় তাদের মতবিরোধের মূল কারণ।

তবে অনুসন্ধান করে জানা গেছে, দীর্ঘদিন ধরে ধুনট আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা দুই ভাগে বিভক্ত। এর মধ্যে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মজিবর রহমান মজনুর অনুসারী হিসেবে দলীয় কার্যক্রম চালান ধুনট আওয়ামী লীগের সভাপতি টিআইএম নুরুন্নবী তারিক এবং হাবিবর রহমান এমপির অনুসারী হয়ে কাজ করতেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুল হাই খোকন।

সম্প্রতি উপজেলা পরিষদে সরকারি বরাদ্দের ভাগাভাগি, নিয়োগ বাণিজ্য, কালেরপাড়া ইউপি নির্বাচনে দলীয় চেয়ারম্যান প্রার্থীর মনোনয়ন বাণিজ্য, এমপি পুত্রের উপজেলা আওয়ামী লীগের সাদরণ সম্পাদক হতে চাওয়াসহ বিভিন্ন বিষয় নিয়ে মতবিরোধের কারণে আব্দুল হাই খোকন এমপি গ্রুপ ছেড়ে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতির সাথে হাত মেলান।

এ কারণে এমপি পুত্র ক্ষুদ্ধ হয়ে ওঠেন উপজেলা পরিষদের চেরয়ারম্যানের প্রতি। এমপি পুত্র সনি বিভিন্নভাবে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যানকে হেনস্থা করার পদক্ষেপ নেন। এক পর্যায়ে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যানকে কার্যালয়ে বসতে বাধা, ইউপি চেয়ারম্যানদের দিয়ে অনাস্থা প্রস্তাব করান।

এদিকে গত ৩০ জানুয়ারি ধুনট পৌর নির্বাচনে দলীয় মেয়র প্রার্থী উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অধ্যাপক টিআইএম নুরুন্নবী পরিজিত হন। অভিযোগ রয়েছে এই পরাজয়ের পেছনে এমপি পুত্র আসিব ইকবাল সনির ভূমিকা ছিল। এছাড়া ১৮ ফেব্রুয়ারি ধুনট উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আব্দুল হাই খোকনের বিরুদ্ধে ৫ দফা অভিযোগ তুলে অনাস্থা প্রস্তাব করেছেন উপজেলা পরিষদের ভাইস চেওয়ারম্যান ও ৯ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানরা। এই অনাস্থা প্রস্তাবের আবেদনপত্র বগুড়া জেলা প্রশাসকের নিকট পাঠানো হয়।
অভিযোগ করা হয় এসব ঘটনার পেছনেও এমপি পুত্রের হাত রয়েছে।

এমন সব অভিযোগ তুলে গত ১৩ ফেব্রুয়ারি এমপি পুত্র উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি প্রকৌশলী আসিব ইকবাল সনি, তার অনুসারী উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি শফিকুল ইসলাম, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক মহসীন আলম এবং উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য ইমরুল কায়েস সেলিমকে দল থেকে বহিষ্কার করা হয়। এতে ক্ষুব্ধ হয়ে ওঠেন এমপি পুত্র আসিব ইকবাল সনি ও তার অনুসারীরা। এমপি পুত্রসহ ৪ নেতাকে বহিষ্কারের প্রতিবাদে উপজেলার ১০ ইউনিয়নের নেতাকর্মী বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করেন। এসব কর্মসূচির মধ্যে ছিল প্রতিবাদ সমাবেশ, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের বিরুদ্ধে ঝাড়ু মিছিল এবং উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুল হাই খোকনের কুশপুত্তলিকা দাহ।

এছাড়া আব্দুল হাই খোকনের বিরুদ্ধে চাকরি পাইয়ে দেয়ার নামে বেকার যুবকদের নিকট থেকে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ তোলা হয়। এসব ঘটনায় আব্দুল হাই খোকনের বিরুদ্ধে থানায় ৯টি অভিযোগ করা হয়েছে। বর্তমানে অভিযোগগুলো খতিয়ে দেখছে ধুনট থানা পুলিশ।

অনুসন্ধান করে জানা যায়, ধারাবাহিক এই ঘটনাগুলোর পর এমপি পুত্র ও তার সমর্থকরা উপজেলা পরিষদ এলাকা, আওয়ামী লীগের দলীয় কার্যালয়, কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার চত্বর, মুজিব চত্বরসহ রাজনৈতিক কর্মসূচি পালনের স্থানসমূহ নিজেদের দখলে নেন। ফলে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক উপজেলা পরিষদ কার্যালয়ে বসতে পারেননি। প্রায় দুই মাস ধরে উপজেলা পরিষদের কার্যালয়ে তিনি প্রবেশ করতে পারেন না।

এছাড়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক দলীয় কার্যালয় ও তার আশপাশের এলাকায় প্রবেশ করতে পারেন না। এমপি পুত্র ও তার সমর্থকদের ভয়ে জাতীয় দিবসের অনুষ্ঠানে অংশ নিতে পারেননি উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি টিআই নুরুন্নবী তারিক, সাধারণ সম্পাদক আব্দুল হাই খোকন ও তার সমর্থকরা।

সর্বশেষ বৃহস্পতিবার মুজিব চত্বরের দখল নিতে বিক্ষোভ সমাবেশের ডাক দেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সম্পাদক সমর্থিত ছাত্রলীগের একাংশের নেতাকর্মীরা। তাদের বাধা দিতে একইসাথে একই সময় পাল্টা সমাবেশের ডাক দেন এমপি পুত্র সমর্থিত ছাত্রলীগের একাংশের নেতাকর্মীরা। প্রশাসন আইনশৃঙ্খলা রক্ষার জন্য সেখানে ১৪৪ ধারা জারি করে। এর আগেই গভীর রাতে মুজিব চত্বরে কে বা কারা ব্যাপক বোমাবাজি করে। মুহুর্মুহু বোমার ফাটার বিকট শব্দে প্রকম্পিত হয় পুরো উপজেলা সদর এলাকা।

এমপি পুত্র ও তার সমর্থকদের ভয়ে বর্তমানে কোণঠাসা হয়ে পড়েছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি, সম্পাদক ও তার সমর্থকরা।

অভিযোগ প্রসঙ্গে শেরপুর-ধুনট এলাকার সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ হাবিবর রহমানের ছেলে ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি প্রকৌশলী আসিব ইকবাল সনি বলেন, আসলে দলের সিনিয়ন নেতারা নিজেদের ব্যক্তিস্বার্থে বিভাজন তৈরি করেছেন। সামনে উপজেলা কাউন্সিলকে কেন্দ্র করেও এই পরিকল্পনা হতে পারে।

তিনি দাবি করেন, মুজিব চত্বরে বোমা হামলার সাথে তার সমর্থিত লোকজন জড়িত না। আর তিনিসহ দলের যে নেতাদের তুচ্ছ অভিযোগে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়েছে সেটিও সংবিধান মেনে করা হয়নি।

ধুনট উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি টিআইএম নুরুন্নবী তারিক বলেন, সম্পূর্ণ ব্যক্তিস্বার্থে সাংসদ এবং তার ছেলে ধুনটের রাজনীতির মাঠ গরম করে রেখেছেন। পরিকল্পিতভাবে মুজিব চত্বরে বোমাবাজি তারই একটা অংশ। মূল ধারার বাইরে থেকে এই চক্রটি ধুনটের নানা অনিয়ম ও দুর্নীতির সাথে জড়িত রয়েছে।

বগুড়ার ধুনট থানার ওসি কৃপা সিন্ধু বালা বলেন, বঙ্গবন্ধু চত্বরে কারা কী উদ্দেশ্যে বোমাবাজি করেছে তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। জড়িতদের শনাক্ত করা গেলে এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে। বর্তমানে ওই এলাকায় পুলিশি পাহারা অব্যাহত রয়েছে।

ধূমকেতু নিউজের ইউটিউব চ্যানেল এ সাবস্ক্রাইব করুন

প্রিয় পাঠকবৃন্দ, স্বভাবতই আপনি নানা ঘটনার সাক্ষী। শেয়ার করুন আমাদের। যেকোনো ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের ইমেলে পাঠিয়ে দিন এই ঠিকানায়। নিউজ পাঠানোর ই-মেইল : dhumkatunews20@gmail.com. অথবা ইনবক্স করুন আমাদের @dhumkatunews20 ফেসবুক পেজে । ঘটনার স্থান, দিন, সময় উল্লেখ করার জন্য অনুরোধ করা হলো। আপনার নাম, ফোন নম্বর অবশ্যই আমাদের শেয়ার করুন। আপনার পাঠানো খবর বিবেচিত হলে তা অবশ্যই প্রকাশ করা হবে ধূমকেতু নিউজ ডটকম অনলাইন পোর্টালে। সত্য ও বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ নিয়ে আমরা আছি আপনাদের পাশে। আমাদের ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করার জন্য অনুরোধ করা হলো Dhumkatu news