IMG-LOGO

বুধবার, ২৮শে ফেব্রুয়ারি ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
১৫ই ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ, ১৭ই শাবান ১৪৪৫ হিজরি

× Education Board Education Board Result Rajshahi Education Board Rajshahi University Ruet Alexa Analytics Best UK VPN Online OCR Time Converter VPN Book What Is My Ip Whois
নিউজ স্ক্রল
শপথ নিলেন আওয়ামী লীগের ৪৮ জন সংরক্ষিত আসনের সংসদ সদস্যরারমজান মাসে অফিসের নতুন সময়সূচিমার্চেই বিয়ের পিঁড়িতে অভিনেত্রী তাপসী‘পুলিশের হাতে মাদক দেখলেই চাকরি থাকবে না’ক্ষমতা হারাচ্ছে জান্তা সেনাবাহিনীবদলগাছীতে বিপুল পরিমান গাঁজাসহ মাদক সম্রাট মনির গ্রেপ্তারআরব আমিরাতে কাজের সুযোগ, ১৫ হাজার দিরহামরাজশাহী শিমুল মেমোরিয়াল স্কুলের শ্রেষ্ঠ শিক্ষক সজলপিপিএম পদক পেলেন নওগাঁর এসপি রাশিদুলতানোরে খড়ের পালা ও দোকানে আগুনরাজশাহীতে এনবিআর চেয়ারম্যানের সঙ্গে মেয়র লিটনের সাক্ষাৎরাজশাহী কলেজে টি-২০ ক্রিকেট টুর্ণামেন্টের উদ্বোধনরাজশাহী কলেজে সৃজনশীল উদ্যোক্তা মেলার উদ্বোধনসম্মিলিত আইনজীবী সমন্বয় পরিষদ মনোনীত ইব্রাহিম-রানা প্যানেলের পরিচিত সভাবরিশাল বিভাগে শ্রেষ্ঠ জয়িতাদের একজন বাউল ছালমা
Home >> প্রবাস >> লিড নিউজ >> পরবর্তী পাক প্রেসিডেন্ট মাওলানা ফজলুর রেহমান?

পরবর্তী পাক প্রেসিডেন্ট মাওলানা ফজলুর রেহমান?

ধূমকেতু নিউজ ডেস্ক : পাকিস্তানে পরবর্তী জাতীয় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা আগামী বছরের ফেব্রুয়ারিতে। এতে পাকিস্তান মুসলিম লীগ-নওয়াজ (পিএমএল-এন) অথবা পাকিস্তান পিপলস পার্টি (পিপিপি) যে দলই সংখ্যাগরিষ্ঠতা পাক না কেন, দেশটির পরবর্তী প্রেসিডেন্ট হবেন জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম (জেইউআই-এফ) প্রধান মাওলানা ফজলুর রেহমান। রোববার (৩ ডিসেম্বর) এমন দাবি করেছেন জেইউআই-এফের এক মুখপাত্র। খবর জিও নিউজের।

পাকিস্তানের বর্তমান প্রেসিডেন্ট আরিফ আলভির পাঁচ বছরের মেয়াদ শেষ হয়েছে গত ৮ সেপ্টেম্বর। এরপরও পাকিস্তানি সংবিধানের ৪৪ অনুচ্ছেদের অধীনে দেশটির রাষ্ট্রপ্রধান হিসেবে দায়িত্ব পালন অব্যাহত রেখেছেন তিনি। ৪৪ অনুচ্ছেদ অনুসারে, প্রাদেশিক এবং জাতীয় পরিষদের অনুপস্থিতিতে প্রেসিডেন্ট তার পদে বহাল থাকতে পারেন। পাকিস্তানে এ বছরের জানুয়ারিতে প্রাদেশিক এবং গত আগস্টে জাতীয় পরিষদ ভেঙে দেওয়া হয়েছিল।

দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ার দেশটিতে সংবিধানের ৪১ (৩) অনুচ্ছেদ অনুযায়ী পার্লামেন্ট, সিনেট এবং চারটি প্রাদেশিক পরিষদের বিশেষ অধিবেশনে প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হন। আরিফ আলভি পাকিস্তানের চতুর্থ রাষ্ট্রপ্রধান, যিনি তার পূর্ণ মেয়াদ শেষ করেছেন।

সম্প্রতি স্থানীয় একটি টিভি চ্যানেলকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে জেইউআই-এফ নেতা হাফিজ হামদুল্লাহ বলেছেন, মাওলানা ফজলুর রেহমানকে যদি বহুদলীয় জোট পাকিস্তান ডেমোক্রেটিক মুভমেন্টের (পিডিএম) প্রধান করা যায়, তবে তাকে দেশটির প্রেসিডেন্টও করা যেতে পারে।

কে এই ফজলুর রেহমান?
২০১৮ সালে পাকিস্তানের জাতীয় নির্বাচনে পাঁচটি আসনে লড়ে সব ক’টিতেই জেতেন ইমরান খান, পরবর্তীতে প্রধানমন্ত্রীও হন। ওই নির্বাচনে তিনটি আসনে লড়ে সব ক’টিতেই হেরে যান মাওলানা ফজলুর রেহমান। কিন্তু পরবর্তী বছরগুলোতে ইমরানকে ক্ষমতাচ্যুত করার আন্দোলনে সামনে থেকে নেতৃত্ব দেন পাকিস্তানের এই ঝানু রাজনীতিবিদ।

ইমরানবিরোধী প্রচারণা
২০১৯ সাল থেকে ইমরান খানের বিরুদ্ধে নিরলস প্রচারণা চালিয়ে গেছেন পিডিএম প্রধান। ওই বছরের শেষের দিকে তার সংগঠন জমিয়ত উলেমা-ই-ইসলাম-ফজলুর (জেইউআই-এফ) ইসলামাবাদ অবরোধ করে প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের পদত্যাগ ও নতুন করে জাতীয় নির্বাচনের দাবি জানায়। ফজলুর রেহমানের ওই আন্দোলনে পরে সমর্থন দেয় পিএমএল-এন এবং পিডিপি।

ঐক্যবদ্ধ আন্দোলন
২০১৯ সালে ইমরান খানের পক্ষে পাকিস্তানের অর্থনৈতিক ব্যবস্থাপনা ও দুর্নীতিরোধ কঠিন হয়ে পড়লে ফজলুর রেহমান তার সমর্থকদের নিয়ে ইসলামাবাদের ডি-চক বা ডেমোক্র্যাসি চক চত্বরে বিশাল সমাবেশের ডাক দেন। ‘আজাদি মার্চ’ নামে পরিচিত তার ওই আন্দোলনকে নওয়াজ শরীফ সরকারের বিরুদ্ধে ইমরান খানের ২০১৪ সালের দুর্নীতিবিরোধী ধর্নার সঙ্গে তুলনা করা হয়।

ইমরান খানের আন্দোলনে নওয়াজ সরকারের পতন না হলেও জনগণের মনে বিশ্বাস জন্মেছিল, ‘নয়া পাকিস্তান’ গড়া সম্ভব। এর চার বছর পর প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ নেন ইমরান। আর ফজলুর রেহমানের আজাদি মার্চ ২০২০ সালের সেপ্টেম্বরে পিডিএম গঠনের ভিত্তি রচনা করেছিল। ওই সময় পাকিস্তানের রাজনীতিতে পরিচিত নাম নওয়াজ শরীফ, প্রয়াত বেনজির ভুট্টো এবং আসিফ আলী জারদারির অনুপস্থিতিতে পার্লামেন্টে দলের নগণ্য অবস্থান সত্ত্বেও ইমরান খানের বিরুদ্ধে আন্দোলনের মুখ হয়ে ওঠেন ফজলুর রহমান।

এ থেকেই স্পষ্ট, ইমরান খান কেন তার চেয়ে বয়সে আট মাসের ছোট, কিন্তু রাজনীতিতে বেশি অভিজ্ঞ ফজলুর রেহমানকে তার সরকারের জন্য হুমকি বলে মেনে নিয়েছিলেন। একসময় তেল মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বে থাকায় ৬৮ বছর বয়সী এ নেতাকে বহুবার ‘ডিজেল’ নামে উপহাস করেছেন ইমরান খান।

ইমরানের শত্রু
১৯৮০ সালে ইমরান খান যখন তার প্রথম টেস্ট ক্রিকেট ম্যাচ খেলার নয় বছর পূরণ করেন, সেই সময় রাজনৈতিক জীবন শুরু করেন ফজলুর রেহমান। ১৯৯২ সালে ইমরান যখন পাকিস্তানের হয়ে একমাত্র ওয়ানডে বিশ্বকাপ জেতেন, তখন প্রথমবার পাকিস্তান পার্লামেন্টের সদস্য হন রেহমান। ১৯৯৬ সালে যখন ইমরান খানের নিজস্ব রাজনৈতিক দল আত্মপ্রকাশ করে, ফজলুর রেহমান তখন বেনজির ভুট্টো সরকারের অংশ এবং পেট্রোলিয়াম মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব সামলাচ্ছেন।

ফজলুর রেহমানের বাবা ১৯৭৩ সালে পাকিস্তানের নতুন সংবিধানের অন্যতম স্বাক্ষরকারী হলেও নির্বাচনের মাঠে খুব একটা সাফল্য পাননি। কিন্তু তার ছেলে ঠিকই দেশটির রাজনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ অবস্থান গড়ে নিয়েছেন। আগামী দিনে তিনি আরও বড় কোনো ভূমিকায় অবতীর্ণ হবেন কি না তা সময়ই বলে দেবে।

আরও নিউজ ও ভিডিও পেতে ক্লিক করুন :

ওয়েব সাইট : https://dhumkatunews.com/
ইউটিউব ভিডিও লিংক : https://www.youtube.com/@dhumkatunews/featured
টুইটার : https://twitter.com/dhumkatunews
ইন্সটেগ্রাম : https://www.instagram.com/dhumkatunews/
লিংকডইন : https://www.linkedin.com/in/dhumkatu-news-615953213/
পিনটারেস্ট : https://www.pinterest.com/dhumkatunews/

ধূমকেতু নিউজের ইউটিউব চ্যানেল এ সাবস্ক্রাইব করুন

প্রিয় পাঠকবৃন্দ, স্বভাবতই আপনি নানা ঘটনার সাক্ষী। শেয়ার করুন আমাদের। যেকোনো ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের ইমেলে পাঠিয়ে দিন এই ঠিকানায়। নিউজ পাঠানোর ই-মেইল : dhumkatunews20@gmail.com. অথবা ইনবক্স করুন আমাদের @dhumkatunews20 ফেসবুক পেজে । ঘটনার স্থান, দিন, সময় উল্লেখ করার জন্য অনুরোধ করা হলো। আপনার নাম, ফোন নম্বর অবশ্যই আমাদের শেয়ার করুন। আপনার পাঠানো খবর বিবেচিত হলে তা অবশ্যই প্রকাশ করা হবে ধূমকেতু নিউজ ডটকম অনলাইন পোর্টালে। সত্য ও বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ নিয়ে আমরা আছি আপনাদের পাশে। আমাদের ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করার জন্য অনুরোধ করা হলো Dhumkatu news