IMG-LOGO

সোমবার, ২৭শে মে ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
১৩ই জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১৮ই জিলকদ ১৪৪৫ হিজরি

× Education Board Education Board Result Rajshahi Education Board Rajshahi University Ruet Alexa Analytics Best UK VPN Online OCR Time Converter VPN Book What Is My Ip Whois
নিউজ স্ক্রল
ঘূর্ণিঝড় রেমালে সাড়ে ৩৭ লাখ মানুষ ক্ষতিগ্রস্তপাকিস্তানে সাবেক অভিনেত্রীর ওপর বন্দুক হামলাশত শত ফ্লাইট বাতিল কলকাতা বিমানবন্দরেসন্ধ্যায় যেসব এলাকা অতিক্রম করতে পারে ঘূর্ণিঝড় রিমালব্যাপক তাণ্ডব চালানোর আশঙ্কাবাগমারায় ঠিকাদারদের উপর কিশোর গ্যাং এর হামলামোহনপুরে ঘোড়া মার্কা প্রতীকের প্রার্থীর নির্বাচনী ইশতেহার ঘোষণাফুলবাড়ীতে পর্বশত্রুতার জেরে ২০০টি চারা আমগাছ বিনষ্টতজুমদ্দিনে মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থীর উপর হামলা, আটক ৩নন্দীগ্রামে সিজারের পর প্রসূতি মৃত্যুর অভিযোগনন্দীগ্রামে উন্নয়ন ধারা অব্যাহত রাখতে আনারসে ভোট চাইলেন জিন্নাহহামাসের ফাঁদে বন্দী ইহুদিবাদী সেনারাইংরেজি বলে সমালোচিত, এবার জবাব দিলেন অভিনেত্রী কিয়ারাপ্রধানমন্ত্রীর অনুদানের চেক গেলো কোথায়, চেকের টাকা কার পকেটেমিরসরাইয়ে ২১ মেডিকেল টিম প্রস্তুত

“মা”

মোছাঃ আয়েশা আখতার রোজী : রঞ্জু ৫ম শ্রেনিতে পড়ে। তার একটি ছোট ভাই আছে। নাম সঞ্জু।রঞ্জুর সাথে সারাক্ষণ সঞ্জুর ঝগড়া বিবাদ লেগেই থাকে। তবে ভাব ভালবাসা ও আছে। অনেকদিন বন্ধ থাকার পর স্কুল খুলেছে। ক্লাসে রঞ্জু লক্ষ করল তার খুব ঘনিষ্ঠ বন্ধু দুরন্ত খুব মন মরা হয়ে বসে আছে।

রঞ্জু কাছে গিয়ে জিজ্ঞেস করল কিরে তোর কি হয়েছে? দুরন্ত কাদোকাঁদো গলায় বলল আমার মা কিছু দিন আগে মারা গেছেন।

রঞ্জু বলল এতে আবার এতো মন খারাপ এর কি আছে।মা না থাকলেই তো ভাল।

দুরন্ত বলল, তুই এসব কি বলছিস?রঞ্জু বলল ঠিকই তো বলছি। আমি তো মাঝেমধ্যেই ভাবি বাড়িতে যদি মা আর আমার ছোটো ভাই না থাকতো তাহলে অনেক স্বাধীন ভাবে জীবনযাপন করতে পারতাম, মায়েরা সবসময় বকে। এই যেমন ধর, সকাল সকাল ঘুম থেকে ডেকে তুলে বলে, ঝটপট ব্রাশ করে মুখ হাত ধুয়ে নাস্তা সেরে পড়তে বস। আবার খাবার ক্ষেএেও বিভিন্ন বিধিনিষেধ। বাবাকে যদি বলি আমাকে হোটেল থেকে পরটা কিনে দাও,বাবা সাথে সাথে কিনে দেয়। কিন্তু মা বলে রোজ-রোজ পরোটা খওয়া যাবে না,পেটে গ্যাস করবে। বাবাকে বললেই মোবাইলটা আমাকে দিয়ে দেয় কিন্তু আম্মু বলে, খবরদার মোবাইলে গেইম খেলবে না, চোখের সমস্যা হবে, ব্রেনের ক্ষতি হবে। রাএিবেলা পড়াশুনা করতে করতে প্রচন্ড ঘুম চলে আসে, তাড়াতাড়ি করে শুতে যাবো তারও উপায় নেই। আম্মু বলে ব্রাশ করে অজু করে নাও,আর নামাজ পড়ে ঘুমাতে যাও। এসব নিয়ম-কানুন আর ভালো লাগেনা। দুরন্ত রঞ্জুকে বোঝানোর চেষ্টা করল, সে বললো আমার মা বলতো দাঁত থাকতে মানুষ দাঁতের মর্যাদা বোঝে না।

রঞ্জু বলল, আমার আম্মু বলে মায়েরা কখনো সন্তানের খারাপ চায়না তারা যা করে আর বলে তার সবই সন্তানের ভালোর জন্যই।

একদিন বাড়িতে রঞ্জু ও সঞ্জুর মধ্যে খুব ঝগড়া হল। মা এসে দুজনকে ভীষণ মার দিলেন। রঞ্জু মন খারাপ করে বাড়ির পাশের বাগানে গিয়ে বসে আছে। এমন সময় একটি পরী এসে বললো তোমার কি হয়েছে? আমরা পরীরা ছোট শিশুদের মন খারাপ দেখতে পারিনা তুমি বলো কি পেলে তুমি খুশি হবে? রঞ্জু পরীকে সব কথা খুলে বলল আর পরী কে বলল তুমি যদি আমার মা ও ছোট ভাইকে তোমাদের রাজ্যে নিয়ে যাও তাহলে আমি খুশি হব।

পরী বলল, এটা কোন ব্যাপারই না। তুমি বাড়িতে ফিরে যাও। রঞ্জু বাড়িতে ফিরে দেখল তার মা-ও সঞ্জু বাসায় নেই। সে খুব খুশি হলো এবং নিজেকে স্বাধীন ও মুক্ত আকাশের পাখির মত মনে করলো। পরের দিন সকালে আর কেউ তাকে ঘুম থেকে ডাকলো না, অনেক দেরিতে সে ঘুম থেকে উঠল, ব্রাশ না করে কোন রকম মুখ ধুয়ে বাবা পরোটা এনে রেখে অফিসে গেছে সেটা সে খেলো, পড়াশোনা না করে সারাদিন টিভি দেখলো বাবা আবারো হোটেল থেকে তৈলাক্ত এবং মুখরোচক খাবার নিয়ে আসলো সেগুলো সে খুব মজা করে খেলো। বাবার মোবাইল নিয়ে অনেকক্ষণ গেম খেললো। তারপর রাত্রে ব্রাশ না করেই বিছানায় এলিয়ে পড়ল। এভাবে খুব আনন্দের সাথে কয়েকটা দিন কাটানোর পর রঞ্জুর পেটের সমস্যা, বুক জ্বালাপোড়া করা শুরু হলো। অতিরিক্ত মোবাইল টিপাটিপির কারণে প্রায় সময় মাথাব্যথা করা শুরু হলো। তাকে স্কুলে গিয়ে ঝিম মেরে বসে থাকতে হচ্ছে আর পড়া না পারার জন্য স্যারদের কাছে বকা খেতে হচ্ছে। বন্ধুরা তাঁর এই অবস্থার জন্য কেউ তার সাথে ভালোভাবে মিশে না। সে আবার একদিন বাড়ির পাশের সেই বাগানটাতে মনমরা হয়ে বসে ছিল। পরী এসে জিজ্ঞেস করল তোমার আবার কি হয়েছে এখন তো তোমার আনন্দে থাকার কথা রঞ্জু কেঁদে উঠলো বললো পরী তুমি আমার মা আর ভাই কে ফিরিয়ে দাও।

পরী বলল, ঠিক আছে তুমি বাড়ি ফিরে যাও। বাড়িতে গিয়ে মা ও ভাইকে ফিরে পেয়ে সে অনেক খুশি হল এবং নিজের ভুল বুঝতে পারলো। ছোট ভাইকে সে এখন খুব ভালোবাসে আর ঝগড়া করেনা, মায়ের সব কথা শুনে চলে।

লেখক : মোছাঃ আয়েশা আখতার রোজী, রাজশাহী।

ধূমকেতু নিউজের ইউটিউব চ্যানেল এ সাবস্ক্রাইব করুন

প্রিয় পাঠকবৃন্দ, স্বভাবতই আপনি নানা ঘটনার সাক্ষী। শেয়ার করুন আমাদের। যেকোনো ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের ইমেলে পাঠিয়ে দিন এই ঠিকানায়। নিউজ পাঠানোর ই-মেইল : dhumkatunews20@gmail.com. অথবা ইনবক্স করুন আমাদের @dhumkatunews20 ফেসবুক পেজে । ঘটনার স্থান, দিন, সময় উল্লেখ করার জন্য অনুরোধ করা হলো। আপনার নাম, ফোন নম্বর অবশ্যই আমাদের শেয়ার করুন। আপনার পাঠানো খবর বিবেচিত হলে তা অবশ্যই প্রকাশ করা হবে ধূমকেতু নিউজ ডটকম অনলাইন পোর্টালে। সত্য ও বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ নিয়ে আমরা আছি আপনাদের পাশে। আমাদের ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করার জন্য অনুরোধ করা হলো Dhumkatu news