IMG-LOGO

রবিবার, ১৪ই এপ্রিল ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
১লা বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ৪ঠা শাওয়াল ১৪৪৫ হিজরি

× Education Board Education Board Result Rajshahi Education Board Rajshahi University Ruet Alexa Analytics Best UK VPN Online OCR Time Converter VPN Book What Is My Ip Whois
নিউজ স্ক্রল
মোহনপুরে যথাযোগ্য মর্যাদায় বাংলা নববর্ষ উদযাপনপোরশায় বাংলা নববর্ষ উপলক্ষে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রাঈদের তিন দিনে রাজস্ব আয় ১৪ লাখ‘এদেশের সাম্প্রদায়িকতার বিশ্বস্ত ঠিকানা বিএনপি’ঢাবিতে মঙ্গল শোভাযাত্রাইসরায়েলজুড়ে ইরানের নজিরবিহীন হামলারাবির অধ্যাপকবৃন্দ ড. প্রদীপ ও প্রণব কুমারের পিতার শ্রাদ্ধ্যতজুমদ্দিনে প্রাক্তন ছাত্র ফোরামের উপদেষ্টা ও পরিচালনা কমিটি গঠনচাঁপাইনবাবগঞ্জের নয়ালাভাঙ্গায় বিপুল বোমা বিস্ফোরণমান্দায় বিবাদমান সম্পত্তির দখল নিতে জালসার আয়োজনগোদাগাড়ীতে ঢাবির সাবেক ছাত্রনেতা প্রকৌশলী আকাশের মোটরসাইকেল শোভাযাত্রাপত্নীতলায় সাড়ে ৪২ কেজি গাঁজাসহ আটক ২পাত্রের দুলাভাইকে বিয়ে বাড়িতে ‘পিটিয়ে হত্যা’ইসরায়েল থেকে ঢাকায় ফ্লাইট অবতরণ নিয়ে যা জানালো বেবিচকইসরাইলের পাশে দাঁড়ালে মধ্যপ্রাচ্যে মার্কিন ঘাঁটি গুঁড়িয়ে দেওয়া হুমকি ইরানের
Home >> কৃষি >> গোদাগাড়ীতে জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে টমেটো

গোদাগাড়ীতে জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে টমেটো

ধূমকেতু প্রতিবেদক, গোদাগাড়ী : দেড় যুগ আগের কথা। তখন রাজশাহীর গোদাগাড়ীতে টমেটো জনপ্রিয়তা পেয়েছে বেশ। ভাগ্য বদলের আশায় অনেকেই নাম লেখান চাষে। সুদিন ফেরাতে টমেটো চাষে নেমেছিলেন ভূমিহীন কৃষক শফিকুল ইসলামও। সময়ের ফেরে অনেকেই লাভবান হয়েছেন। কিন্তু দেড় যুগেও ভাগ্য ফেরেনি শফিকুলের। বছর দুয়েক হলো আর তিনি নিজে টমেটো চাষ করেন না। আগের মতোই এখন তিনি অন্যের টমেটো ক্ষেতের শ্রমিক হিসেবে শ্রম দেন। ভর দুপুরে আরও ছয় কৃষি শ্রমিকের সঙ্গে উপজেলার মহিশালবাড়ি মাঠে কাজ করছিলেন শফিকুল। সেখানেই কথা হয় তার সঙ্গে। তিনি শোনান তার ভাগ্য বিড়ম্বনার কথা।

শফিকুল জানান, তারা আট ভাইবোন। পৈতৃক সম্পত্তি বলতে মোটে আট শতক বসতভিটা। সেখানেই কোনো রকমে মাথা গোঁজার ঠাঁই করে নিয়েছেন। তারও আলাদা সংসার। দুই মেয়ের বিয়ে দিয়েছেন অনেক আগে। স্ত্রী, ছেলে-পুত্রবধূ এবং নাতি নিয়ে তার এখন ৫ জনের সংসার। ছেলে রাজমিস্ত্রি। বাবা-ছেলের আয়েই ঘুরছে সংসারের চাকা।

তিনি জানান, যখন মজুরি ২০ টাকা ছিল, তখন থেকেই তিনি দিন মজুরি করেন। এখন পান সাড়ে ৩০০ টাকা। এক পর্যায়ে ভাবেন অনেকেই তো টমেটো চাষে ভাগ্য পাল্টাচ্ছে, তিনিও করবেন চাষ। অন্যের জমি লিজ নিয়ে চাষাবাদ শুরু করেন। এ বছর সোয়া ২ বিঘা জমিতে আট দিনে প্রথম দফায় ১০০ মণ টমেটো তুলেছেন। প্রথম দিকে দাম পেয়েছেন ১ হাজার ২০০ টাকা মণ। এরপর কমতে কমতে এক পর্যায়ে ১০০ টাকায় নেমেছে। তখন শ্রমিকের খরচই ওঠেনি।

টমেটো চাষে ‘কপাল’ লাগে উল্লেখ করে শফিকুল বলেন, কেউ বিঘায় ৫০ হাজার এমনকি লাখ টাকা লাভ করছেন। কিন্তু তিনি ১৬-১৭ বছর চাষ করে বিঘায় ৪০ হাজার টাকার টমেটো পেয়েছেন। সর্বোচ্চ পেয়েছেন ৬০ হাজার টাকার। আর চারা রোপণ থেকে শেষ পর্যন্ত বিঘায় খরচ অন্তত ৩০ হাজার টাকা। খরচ বাদ দিয়ে বিঘায় ৮ থেকে ১২ হাজার টাকা টেকে।খাটাখাটনিই বৃথা। সেইসঙ্গে শুধু শুধু ফসল নিয়ে টেনশন। ভেবে-চিন্তে দুই বছর ধরে তিনি আর নিজে টমেটো চাষ করেন না। অন্যের জমিতে শ্রমিক হিসেবে কাজ করেন।

মাঠের পর মাঠ টমেটো ক্ষেত। দুপুর গড়িয়েছে অনেক আগেই। খেত থেকে ঘরের পথে পা বাড়িয়েছেন কৃষি শ্রমিকরা। তখনও ছেলেকে সঙ্গে নিয়ে নিড়ানি দিচ্ছিলেন টমেটো চাষি সাইদুর রহমান। তিনি উপজেলার বারুইপাড়া এলাকার বাসিন্দা। এলাকায় সার ও বীজের দোকান রয়েছে তার। এ বছর এক বিঘা জমি লিজ নিয়ে টমেটো চাষ করেছেন তিনি। পাঁচ বছর ধরে টমেটো চাষ করেন। তবে তার গল্পটা একটু ভিন্ন।

তিনি বলেন, গাছ একেবারেই উজাড় না হলে টমেটোতে লোকসান হওয়ার কথা নয়। মৌসুমে এক বিঘায় ২০ থেকে ৪০ হাজার টাকা আয় হয় তার। এই ৫ বছরে টমেটো চাষে তার লোকসান হয়নি। এই চাষি বলেন, মৌসুমের শুরুতে প্রতি মণের দাম পাওয়া যায় ২ হাজার থেকে আড়াই হাজার টাকা। এই দাম নির্ভর করে বাজারে আমদানির ওপরে। তারা কাচা টমেটো তুলে বিক্রি করে দেন। প্রথম দিকে বাজারে আমদানি কম থাকে। ফলে ওই সময় যার ক্ষেতে যত বেশি টমেটো উঠে তিনি ততই লাভবান হন। তবে রোগবালাই ও খারাপ আবহাওয়া হলে ক্ষতির শঙ্কা থাকে। এখন দেশে টমেটোর রাজধানী হয়ে উঠেছে গোদাগাড়ী।

তিনি আরও বলেন, শীতকালীন আগাম ও উন্নত জাতের টমেটো চাষ হয় এই উপজেলায়। মৌসুমে অন্তত কয়েক কোটি টাকার বাণিজ্য হয় টমেটোর। শুরুর দিকে ভালো দাম পেলেও শেষের দিকে দাম মেলে না। শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত দাম নিয়ন্ত্রণ করে সিন্ডিকেট। ফলে মার খান চাষি। জানা গেছে, চলতি ২০২১-২০২২ রবি মৌসুমে রাজশাহী জেলায় টমেটো চাষের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ৩ হাজার ৬০০ হেক্টর। এ থেকে ৬৬ হাজার টন টমেটো উৎপাদনের আশা করছে কৃষি দফতর। সোমবার (১৫ নভেম্বর) পর্যন্ত জেলায় ৩ হাজার ৫১৭ হেক্টর টমেটো চাষ হয়েছে। এর মধ্যে গোদাগাড়ীতেই চাষ হয়েছে ২ হাজার ৯৬০ হেক্টর।

জেলা কৃষি দফতরের দেওয়া তথ্য বিশ্লেষণে দেখা গেছে, গত পাঁচ বছরের মধ্যে জেলায় সবচেয়ে বেশি টমেটো চাষ হয়েছে ২০২০-২১ মৌসুমে ৩ হাজার ৬৬০ হেক্টর। এ সময় উৎপাদন হয়েছে ৮২ হাজার ২১ টন টমেটো। সেইবার কেবল গোদাগাড়ী উপজেলায় ২ হাজার ৫০ হেক্টরে টমেটো উৎপাদন হয়েছে ৬৬ হাজার ৩৭৫ টন। এই কয় বছরের মধ্যে ২০১৯-২০ মৌসুমে সর্বনিম্ন ২ হাজার ৯২৫ হেক্টর টমেটো চাষ হয়েছে জেলায়। সেই বছর টমেটো ফলেছে ৬৬ হাজার ৩২৬ টন। ওই বছর গোদাগাড়ীর ২ হাজার ১৫০ জমিতে টমেটো পাওয়া গেছে ৪৮ হাজার ৩৭৫ টন। অন্যদিকে এই পাঁচ বছরের মধ্যে টমেটো উৎপাদন হয়েছে ২০১৮-১৯ মৌসুমে। সেই বছর জেলার ৩ হাজার ৩৭৯ হেক্টর জমিতে টমেটো ফলেছে ৭৪ হাজার ৩১৯ টন। এর মধ্যে গোদাগাড়ীতে ২ হাজার ৬৫০ হেক্টর জমিতে ৫৮ হাজার ৫৯৫ টন টমেটো উৎপাদন হয়। এছাড়া ২০১৫-১৬ মৌসুমে ৩ হাজার ২৬৬ হেক্টরে ৭৪ হাজার ১১৮ টন, ২০১৬-১৭ মৌসুমে ৩ হাজার ১৪০ হেক্টরে ৬৬ হাজার ৫৩৩টন এবং ২০১৭-১৮ মৌসুমে ৩ হাজার ২৭৪ হেক্টরে ৭০ হাজার ৬২৪টন টমেটো ফলেছে রাজশাহী জেলায়। এই তিন বছরে গোদাগাড়ীতে যথাক্রমে ২ হাজার ৫৬০ হেক্টরে ৬১ হাজার ৪৪০ টন, ২ হাজার ৪২০ হেক্টরে ৫৩ হাজার ২৪০ টন এবং ২ হাজার ৬৩০ হেক্টরে ৫৭ হাজার ৮৬০ টন টমেটো উৎপাদন হয়।

রাজশাহী জেলা কৃষি স¤প্রসারণ অধিদফতরের উপপরিচালক কেজে এম আব্দুল আউয়াল জানান, আউশ ধান কেটে নেওয়ার পর গোদাগাড়ীতে টমেটো চাষ হয়। এটা মূলত বর্ষাকালীন টমেটো। প্রায় ৩৬ জাতের টমেটো চাষ হয় এই এলাকায়। এর একটিও আমাদের দেশীয় নয়, সবগুলো হাইব্রিড। অন্য যেকোনো মাঠ ফসলের তুলনায় টমেটো চাষ অত্যন্ত লাভজনক। বিঘায় প্রায় ৭০ মণ টমেটো উৎপাদন হয়। কম করে প্রতি মণ ১ হাজার টাকা করে হলেও ৭০ হাজার টাকা হয়। যা ধান কিংবা অন্য ফসল চাষে আয় করা সম্ভব নয়।

তিনি আরও বলেন, এক কথায় টমেটো অর্থকরী ফসল। আগাম উঠায় চাষিরা বাজারে ভালো দাম পান। চাহিদা বাড়ায় প্রতি বছরই চাষের পরিধি বাড়ছে। লাভের আশায় টমেটো পরিপক্ক হওয়ার আগেই চাষিরা সংগ্রহ করে বাজারজাত করেন। পরিপক্ক ও নিরাপদ টমেটো কিভাবে উৎপাদন করা যায় আমরা সেই চেষ্টা করছি। আধুনিক চাষের কলাকৌশল নিয়ে সবসময় মাঠ পর্যায়ের কৃষি কর্মকর্তারা কৃষকদের পাশে আছেন।

ধূমকেতু নিউজের ইউটিউব চ্যানেল এ সাবস্ক্রাইব করুন

প্রিয় পাঠকবৃন্দ, স্বভাবতই আপনি নানা ঘটনার সাক্ষী। শেয়ার করুন আমাদের। যেকোনো ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের ইমেলে পাঠিয়ে দিন এই ঠিকানায়। নিউজ পাঠানোর ই-মেইল : dhumkatunews20@gmail.com. অথবা ইনবক্স করুন আমাদের @dhumkatunews20 ফেসবুক পেজে । ঘটনার স্থান, দিন, সময় উল্লেখ করার জন্য অনুরোধ করা হলো। আপনার নাম, ফোন নম্বর অবশ্যই আমাদের শেয়ার করুন। আপনার পাঠানো খবর বিবেচিত হলে তা অবশ্যই প্রকাশ করা হবে ধূমকেতু নিউজ ডটকম অনলাইন পোর্টালে। সত্য ও বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ নিয়ে আমরা আছি আপনাদের পাশে। আমাদের ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করার জন্য অনুরোধ করা হলো Dhumkatu news