IMG-LOGO

বৃহস্পতিবার, ২২শে ফেব্রুয়ারি ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
৯ই ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ, ১১ই শাবান ১৪৪৫ হিজরি

× Education Board Education Board Result Rajshahi Education Board Rajshahi University Ruet Alexa Analytics Best UK VPN Online OCR Time Converter VPN Book What Is My Ip Whois
নিউজ স্ক্রল
ধামইরহাটে প্রাথমিক শিক্ষক সমিতির সভাপতি বকুল, সম্পাদক শাহজাহানরাণীনগরে জামে মসজিদের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপনের উদ্বোধনপোরশায় ই’ শ্রমিক আন্দালনের কোরআন খতম ও দোয়াট্রাক-মোটরসাইকেলের সংঘর্ষে নিহত ২প্রিমিয়ার লিগে লুটনকে একহালি গোল দিলো লিভারপুলভেনিজুয়েলায় সোনার খনি ধসে নিহত ২৩রাজশাহী স্কেটিং ক্লাবের ফান র‌্যালিরুয়েটে বিনম্র শ্রদ্ধায় মহান শহীদ দিবস উদযাপনপত্নীতলায় ভাষা শহীদদের প্রতি সর্বস্তরের মানুষের শ্রদ্ধাএনজিও ফেডারেশনের উদ্যোগে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উদযাপনশিমুল মেমোরিয়াল স্কুলে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উদযাপন‘বাংলাকে জাতিসংঘের দাপ্তরিক ভাষা হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করা আমাদের লক্ষ্য’চালের বস্তায় যেসব তথ্য লেখা বাধ্যতামূলকমান্দায় আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উদযাপনধামইরহাটে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উদযাপন
Home >> নগর-গ্রাম >> বিশেষ নিউজ >> লিড নিউজ >> রাজশাহীতে স্বাস্থ্যবিধির আওতায় চলছে না গণপরিবহন

রাজশাহীতে স্বাস্থ্যবিধির আওতায় চলছে না গণপরিবহন

ধূমকেতু প্রতিবেদক : রাজশাহীর সবখানেই রাস্তায় নেমেছে সব ধরনের গণপরিবহন। সারাদেশের ন্যায় রাজশাহীতেও যাত্রীদের মাথার উপর থেকে বর্ধিত ভাড়ার চাপ কমেছে। তাই বাসে বেড়েছে যাত্রী। কিন্তু এই করোনাকালীন সময়ে বাড়েনি বাসেন নিয়ম কানুন, বাড়েনি সচেতনতা। একেবারে স্বাভাবিক সময়ের মতই রাস্তায় চলছে গণপরিবহন। বাসে গাদাগাদি করে তোলা হচ্ছে যাত্রী। বাসস্ট্যান্ডে গাদাগাদি করে যাত্রী উঠানোর পর রাস্তায় বিভিন্ন মোড়, বাজারেও তোলা হচ্ছে যাত্রী। নির্দিষ্ট বাস স্ট্যান্ড পৌঁছানোর আগ পর্যন্ত যেনো বাসের যাত্রী কমছেই না। স্বাস্থ্য সুরক্ষা নিয়ে বাস চালক, মালিক বা যাত্রীদের কোনো মাথা ব্যাথাই নেই। নেই কোনো উদ্বেগ। মুখে মাস্ক নেই, নেই স্বাস্থ্য সুরক্ষার কোনো কিছু। বাসের চালক হেল্পারের মুখেও মাস্ক ব্যবহার করতে দেখা যাচ্ছে না। যাত্রীদের প্রায় ৮০ ভাগের মুখে নেই মাস্ক। কিন্তু জেলা প্রশাসনের পক্ষে বাস মালিক সমিতির নেতৃবৃন্দের সাথে স্বাস্থ্য সুরক্ষার বিষয়টি আলোচনা করা হলেও তা উপেক্ষিত। কোনো কাজেই আসছে না জেলা প্রশাসন ও বাস ইউনিয়নের নেতাদের আলোচনার বিষয়টি।

জানা গেছে, রাজশাহীতে করোনা পরিস্থিতি এতোটুকুও হেরফের হয়নি। প্রতিদিন রাজশাহীসহ বিভাগে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত যেমন বাড়ছে, তেমনি বাড়ছে মৃত্যু। কিন্তু মানুষের মাঝে কমে গেছে সচেতনতা। আগের চেয়ে বর্তমান রাজশাহীতে করোনা পরিস্থিতির বিষয়টি ভয়াবহ অবস্থা বিরাজ করছে। মাঝখানে করোনা আক্রান্ত ও মৃত্যুর হার কমলেও বর্তমান পরিস্থিতি একেবারে অস্বাভাবিক বলাই যায়। আগে মানুষ সচেতন ছিল, যার ফলে আক্রান্ত ও মৃত্যুর হার কম ছিল। কিন্তু বর্তমান মানুষের মাঝে সচেতনতা কমে যাওয়ায় মৃত্যুর সাথে আক্রান্তের হার বেড়ে গেছে। গণপরিবহণ করোনা পরিস্থিতি ভয়বহ করে তুলতে পারে এমনটাও মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা। তবে শঙ্কা প্রকাশ করা হলেও কার্যকরি কোনো পদক্ষেপ নিতে দেখা যাচ্ছে না সংশ্লিষ্টদের।

দেখা গেছে, নির্দিষ্ট সিট ছাড়াও বাসে গাদাগাদি করে তোলা হচ্ছে যাত্রী। সিট তো দুরের কথা, বাসের ভেতরে এতোটুকু জায়গা অবশিষ্ট থাকছে না। সম্পুর্ন সিট পুর্ণ করে বাসের ভেতরের ফাঁকা জায়গাতেও যাত্রীদের তোলা হচ্ছে। এতোটাই গাদাগাদি করে যাত্রী তোলা হচ্ছে যে নিশ্বাস ফেলানোও দায় হয়ে পড়ছে। এখন প্রশ্ন হলো, গণপরিবহনে কোথায় সামাজিক দূরত্ব, কোথায় স্বাস্থ্য সুরক্ষা। বাসের চালকরা বলছেন, স্বাস্থ্য সুরক্ষার বিষয়টি সর্বোচ্চ গুরুত্ব দেয়া হচ্ছে। কিন্তু সেই গুরুত্বটা কোথায় তার কোনো উত্তর নেই তাদের কাছে। শুধু বাসেই নয়, থ্রি-হুইলার, সিএনজির অবস্থাও একই। সিএনজির তিনজনের সিটে যাত্রী নেয়া হচ্ছে চারজন। সামনে থাকছে একজন। থ্রি-হুইলারের পেছনে চারজন ও সামনে চারজনের সিট থাকলেও পেছনে ৬জন, সামনে ৬জন করে যাত্রী বহন করা হচ্ছে। এসব ছোট যানবাহনেও নেই স্বাস্থ্য সুরক্ষার বালাই, নেই সচেতনতা।

রাজশাহী শিরোইল বাসস্ট্যান্ডের কয়েকজন চালকের সাথে বিষয়টি নিয়ে কথা হয়। তারা জানান, গণপরিবহনে স্বাস্থ্য সুরক্ষা রক্ষা করা সম্ভব না। কারণ দীর্ঘ সময় বাস বন্ধ থাকার জন্য লোকসানের মুখে পড়ে আছে পরিবহন সেক্টর। যার কারণে মালিক পক্ষ থেকে লোকসান পুষিয়ে নেয়ার বিষয়টি জোর দেয়া হচ্ছে। যার কারণে বাসে অতিরিক্ত যাত্রী তোলা হচ্ছে। আফজাল নামের এক চালক বলেন, স্বাস্থ্য সুরক্ষার বিষয়টি এক মাত্র যাত্রীরাই রক্ষা করতে পারেন। তা না হলে চালকদের কিছু করার নেই।

নাটোর থেকে রাজশাহীতে আসা নাদিম হায়দার নামে এক যাত্রী বলেন, বাসে ৫০টি সিট ছিল। সম্পুর্ন পুর্ণ হওয়ার পর যাত্রী তোলা হয় ফাঁকা জায়গার জন্য। মাঝে মাঝে যাত্রী নামছে, সেখানেই আবার যাত্রী উঠানো হচ্ছে। দুরদূরান্ত থেকে যেসব যাত্রী বাসে বিভিন্নস্থানে যাচ্ছে তাদের মধ্যে কিছুটা সচেতনতা দেখা যাচ্ছে। তাছাড়া রাস্তায় যেসব যাত্রী বাসে উঠছে তাদের মাঝে কোনো সচেতনতা থাকছে না। এমনকি মুখে মাস্ক পর্যন্ত তারা ব্যবহার করছেন না। এতে করোনার এই মহামারিতে ঝুঁকি বাড়ছে।

এব্যাপারে রাজশাহী জেলা প্রশাসক আব্দুল জলিল জানান, ১ সেপ্টেম্বরের আগে রাজশাহীর বাস মালিক সমিতির নেতৃবৃন্দদের নিয়ে বৈঠক করা হয়েছিল। তারা স্বাস্থ্য সুরক্ষার বিষয়টি প্রধান্য দিবে এমন প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল। কিন্তু হচ্ছে তার উল্টোটা। তিনি বলেন, রাজশাহী জেলা প্রশাসনের দুটি মোবাইল কোর্ট চলমান রয়েছে। সামনের সপ্তাহে আরো দুটি বাড়ানো হবে। যেদুটি মোবাইল কোর্ট বাড়ানো হবে সেটি মূলত যানবাহনে স্বাস্থ্য সুরক্ষার বিষয়টি দেখভাল করার জন্য। তিনি আরো বলেন, সবাই সচেতন না হলে রাজশাহীকে রক্ষা করা সম্ভব না। আমাদের যে যার অবস্থান থেকে নিজেদের রক্ষা করতে হবে বলেও জানান তিনি।

ধূমকেতু নিউজের ইউটিউব চ্যানেল এ সাবস্ক্রাইব করুন

প্রিয় পাঠকবৃন্দ, স্বভাবতই আপনি নানা ঘটনার সাক্ষী। শেয়ার করুন আমাদের। যেকোনো ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের ইমেলে পাঠিয়ে দিন এই ঠিকানায়। নিউজ পাঠানোর ই-মেইল : dhumkatunews20@gmail.com. অথবা ইনবক্স করুন আমাদের @dhumkatunews20 ফেসবুক পেজে । ঘটনার স্থান, দিন, সময় উল্লেখ করার জন্য অনুরোধ করা হলো। আপনার নাম, ফোন নম্বর অবশ্যই আমাদের শেয়ার করুন। আপনার পাঠানো খবর বিবেচিত হলে তা অবশ্যই প্রকাশ করা হবে ধূমকেতু নিউজ ডটকম অনলাইন পোর্টালে। সত্য ও বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ নিয়ে আমরা আছি আপনাদের পাশে। আমাদের ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করার জন্য অনুরোধ করা হলো Dhumkatu news