IMG-LOGO

বৃহস্পতিবার, ২০শে জুন ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
৬ই আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১৩ই জিলহজ ১৪৪৫ হিজরি

× Education Board Education Board Result Rajshahi Education Board Rajshahi University Ruet Alexa Analytics Best UK VPN Online OCR Time Converter VPN Book What Is My Ip Whois
নিউজ স্ক্রল
মান্দায় কৃতি শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনাগোমস্তাপুরে নদীতে ডুবে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রের মৃত্যুমেয়রের সাথে সাক্ষাৎ করেন শহীদ কামারুজ্জামান ডিগ্রি কলেজের শিক্ষকবৃন্দগোমস্তাপুরে বার্ষিক রক্তদাতা মিলনমেলাপোরশার সড়কে ঝরলো আদিবাসী নারীর প্রাণকর্মমুখী শিক্ষা ও সঠিক কর্মপরিকল্পনা সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়তে পারে : শহীদুজ্জামানরাসিক মেয়রের সাথে জাতীয় শ্রমিক লীগের নেতৃবৃন্দের সাক্ষাৎনাতনির বাড়িতে দাওয়াত খাওয়া হলো না আয়েশারপোরশায় নবনির্বাচিত ভাইস চেয়ারম্যানকে সংবর্ধনাঘাটনগর উচ্চ বিদ্যালয়ের ২০০৭ ব্যাচের মিলনমেলাশুটিং সেটে ফের রক্তাক্ত প্রিয়াঙ্কা‘মোটরসাইকেলের জন্য সবচেয়ে বেশি সড়ক দুর্ঘটনা ঘটছে’৫ লাখ অভিবাসীকে নাগরিকত্ব দেওয়ার ঘোষণা, বেআইনি বলছে ট্রাম্পশিবিরদেশের সমুদ্রবন্দরে ৩ নম্বর সতর্ক সংকেতআজ সুপার এইট লড়াইয়ে দ.আফ্রিকার বিপক্ষে নামছে যুক্তরাষ্ট্র
Home >> নগর-গ্রাম >> বিশেষ নিউজ >> গোমস্তাপুরে ১৫ দিনেই হারিয়ে গেল লাখ টাকার রাস্তা

গোমস্তাপুরে ১৫ দিনেই হারিয়ে গেল লাখ টাকার রাস্তা

ধূমকেতু প্রতিবেদক, (বিশেষ) চাঁপাইনবাবগঞ্জ : কোথাও হাঁটুভর্তি কাদা, কোথাও পানি, আবার কোথাও বালুর ভরাট। দুই ধারে ফসলী জমি দেখে মনে হবে মধ্য দিয়ে ছোট যান চলাচলের মাটির রাস্তা। অথচ এখানে থাকার কথা ছিল দুই স্তরের মজবুত ইটের হেয়ারিং রাস্তা। ১৫ দিন আগে আনুমানিক মাত্র ২০০ মিটার এজিং (ইটের তৈরি) রাস্তার জন্য ব্যয় করা হয়েছে ১০ লক্ষ টাকা।

সোমবার (০৯ আগষ্ট) দুপুরে সরেজমিনে গিয়ে কোন ইটের রাস্তা খুঁজে পাওয়া যায়নি। এমন অদ্ভুত একটি রাস্তার খোঁজ মিলেছে চাঁপাইনবাবগঞ্জের গোমস্তাপুর উপজেলার বিশুক্ষেত্র-গোঙ্গলপুর গ্রামের আশ্রয়ণ প্রকল্প এলাকায়। বিশুক্ষেত্র-গোঙ্গলপাড়া মাঠে ফসলী জমিতে পাশেই চলছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপহারের আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘর নির্মাণ কাজ। অন্য রাস্তার সাথে আশ্রয়ণ প্রকল্প এলাকার সংযোগ স্থাপন ও নির্মাণসমাগ্রী পরিবহনের কাজে ব্যবহারের জন্য রাস্তাটি নির্মাণ করা হয়। গোমস্তাপুর উপজেলা এলজিইডি ১০ লক্ষ টাকা ব্যয় করে রাস্তাটি নির্মাণ করে।

স্থানীয়দের অভিযোগ, নিম্নমানের নির্মাণসামগ্রী ব্যবহার, পর্যাপ্ত পরিমাণে উপকরণ না দেয়া, নিচে ভরাট বালু কম দেয়া, পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থা না রাখার কারনে এমন দশা।

তারা বলছেন, সঠিক পরিকল্পনার অভাব ও কাজে গাফেলতির কারনে ১০ লক্ষ টাকার রাস্তার কোন সুবিধা পাওয়া যাচ্ছে না। বরাদ্দ হলেও তার সঠিক বাস্তবায়ন হয়নি। ৮ ফিট প্রসস্থ বিশিষ্ট রাস্তাটি নামে থাকলেও কোন কাজে আসছে না বলে অভিযোগ এলাকাবাসীর।

আশ্রয়ণ প্রকল্পে কাজ করা এক শ্রমিক নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, রাস্তার কাজ শুরু হওয়া থেকে শেষ পর্যন্ত আমি পাশেই সরকারি ঘর নির্মাণ প্রকল্পে কাজ করছি। আমাদের কাজের এখানে রড, বালু, সিমেন্ট, ইট নিয়ে আসার জন্যই রাস্তাটি করা হয়েছে। কয়েকদিন হলো রাস্তার কাজ শেষ হওয়া। অথচ এখন খুঁজেই পাওয়া যাবে না।

তিনি আরও বলেন, নিজের চোখে দেখা কাজ এটা। নিশ্চিত করে বলতে পারি কাজ ভালো হয়নি। কারন যারা ইঞ্জিনিয়ার তারা কি জানে না, যে রাস্তাটি কেন কি কাজে ব্যবহার করা হবে? তাহলে সেভাবে রাস্তা করতে হতো। শুনলাম এইটুকু রাস্তায় নাকি ১০ লক্ষ টাকা খরচ হয়েছে। এটা কিভাবে সম্ভব! নিচে ঠিকমতো বালু ভরাট করা হয়নি। যতটুকু দরকার, তার থেকে কম পরিমাণে বালু দিয়েই ইট বিছানো হয়েছে।

রাস্তা সংলগ্ন জমিতে ধান চাষাবাদ করেন কৃষক কাউসার আলী। তিনি বলেন, টিভিতে দেখেছি, সরকারি ঘরগুলো ভেঙ্গে পড়ছে। মনে হয়, রাস্তাও সেভাবেই তৈরি হয়েছে। কাঁচা মাটিতেই ভরাট না দিয়ে রাস্তা করার কারনে এমনটা হয়েছে৷ এখানকার আবাদি মাটিগুলো একটু অন্যরকম। এখানে মাটি খুড়ে রাস্তা করাটা সবচেয়ে বোকামি। মাটির উপরেই বালু ভরাট করে ইটের রাস্তা করলে এমন অবস্থা হতো না।

স্থানীয় বাসিন্দা আব্দুর রহমান জানান, এঁটেল মাটির উপর মাটি খুঁড়ে কোনদিন রাস্তা হয়? তাও আবার নিচে বালু ভরাট কম। এভাবে রাস্তা টিকবে না। ট্রাক ও ট্রাক্টর নিয়ে আসার জন্য ১০ লক্ষ টাকা দিয়ে রাস্তা তৈরি করলে ১৫ দিনেই স্বপ্ন ভঙ্গ। এখন ইট, রড, সিমেন্ট, বালু নিয়ে ট্রাক ও ট্রাক্টরগুলো আসতেই পারছে না। রাস্তা না থাকলে আসবে কেমন করে। যে ইটগুলো বিছিয়েছিলো, তা মাটিতে দেবে গেছে।

গোমস্তাপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জামাল উদ্দীন জামাল মন্ডল বলেন, আমি রাস্তা তৈরির সময়েই বলেছিলাম, আগে ইট দিয়ে রাস্তা ঘিরতে হবে। তা না হলে পাশের ফসলী জমির পানি ও বৃষ্টির পানি এসে রাস্তা নষ্ট হবে। রাস্তা নির্মাণের পরে তা-ই হয়েছে। বৃষ্টির পানি এসে রাস্তা দেবে গেছে। পরে আমি নিজ খরচে রাস্তার পাশ দিয়ে পানি নামার জন্য ড্রেন নির্মাণ করেছি।

গোমস্তাপুর উপজেলা এলজিইডি’র প্রকৌশলী নূরুল আফসার মোহাম্মদ সুলতানুল ইমাম বলেন, পুরাতন মাটির রাস্তার উপর পুনরায় ইটের রাস্তা নির্মাণ করলে কোন সমস্যা হয় না। কিন্তু এক্ষেত্রে ধানের জমির উপর দিয়ে রাস্তাটি করা হয়েছে। নরম, কাঁদা মাটিতে রাস্তা করার কারণে গাড়ি চলতে গিয়ে দেবে গেছে। সকল নিয়ম মেনে রাস্তাটি নির্মাণ করা হয়েছে। এই মূহুর্তে নতুন করে রাস্তাটি নির্মাণের পরিকল্পনা নেই বলে জানান তিনি।

উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মো. হাবিবুর রহমান জানান, আশ্রয়ণ প্রকল্পের সাথে সংযোগ ও নির্মাণ সামগ্রী নিয়ে যেতেই রাস্তাটি নির্মাণ করা হয়েছে। তবে এটি এলজিইডি নির্মাণ করেছে। এবিষয়ে কোন মন্তব্য করতে পারবো না।

গোমস্তাপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব হুমায়ন রেজা বলেন, কাঁদামাটি ও অতিরিক্ত বৃষ্টির কারনে রাস্তাটির এমন দশা হয়েছে। অতি জরুরি ভিক্তিতে রাস্তাটি নির্মাণ করা হয়েছিলো। কিন্তু রাস্তা নির্মাণের আগে ও পরে প্রচুর বৃষ্টিপাত হওয়ায় দেবে গেছে।

ধূমকেতু নিউজের ইউটিউব চ্যানেল এ সাবস্ক্রাইব করুন

প্রিয় পাঠকবৃন্দ, স্বভাবতই আপনি নানা ঘটনার সাক্ষী। শেয়ার করুন আমাদের। যেকোনো ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের ইমেলে পাঠিয়ে দিন এই ঠিকানায়। নিউজ পাঠানোর ই-মেইল : dhumkatunews20@gmail.com. অথবা ইনবক্স করুন আমাদের @dhumkatunews20 ফেসবুক পেজে । ঘটনার স্থান, দিন, সময় উল্লেখ করার জন্য অনুরোধ করা হলো। আপনার নাম, ফোন নম্বর অবশ্যই আমাদের শেয়ার করুন। আপনার পাঠানো খবর বিবেচিত হলে তা অবশ্যই প্রকাশ করা হবে ধূমকেতু নিউজ ডটকম অনলাইন পোর্টালে। সত্য ও বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ নিয়ে আমরা আছি আপনাদের পাশে। আমাদের ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করার জন্য অনুরোধ করা হলো Dhumkatu news

June 2024
M T W T F S S
 12
3456789
10111213141516
17181920212223
24252627282930