IMG-LOGO

বৃহস্পতিবার, ৮ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ২৩শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

× Education Board Education Board Result Rajshahi Education Board Rajshahi University Ruet Alexa Analytics Best UK VPN Online OCR Time Converter VPN Book What Is My Ip Whois
নিউজ স্ক্রল
শ্যুটিংয়ের কারণে চট্টগ্রাম যাননি কোহলিআপিল বিভাগে নতুন তিন বিচারপতিবিশ্বকাপের ব্রাজিল-আর্জেন্টিনার খেলার দিন ঝড়-বৃষ্টির শঙ্কাইসরাইলি হামলায় ৩ ফিলিস্তিনি নিহতযুক্তরাষ্ট্রে গেলেন ২৪ রো‌হিঙ্গা শরণার্থী‘লন্ডন থেকে ফরমায়েশ আসে, ফখরুল চাকরি রক্ষায় তা করেন’নিয়ামতপুরে বেড়েছে সরিষার আবাদ, বাড়তি আয় মধু সংগ্রহ‘অনেক মার খেয়েছি, আর নয়’তিন ট্রিপে চলছে রাবির বাসগুলোরাবির উর্দু বিভাগের ফল বিপর্যয়, তদন্ত কমিটি গঠনচাঁপাইনবাবগঞ্জে প্রতারক চক্রের মূলহোতা ও ম্যানেজারসহ আটক ৬একাদশ শ্রেণিতে ভর্তির আবেদন শুরু সিলেটে যাত্রীবাহী বাস থেকে ১০৫ রাউন্ড গুলি উদ্ধারবঙ্গোপসাগরে ঘূর্ণিঝড় ‘মানদৌস’ইউক্রেন যুদ্ধে নতুন বার্তা পুতিনের
Home >> >> চাঁপাইনবাবগঞ্জে অল্প বৃষ্টিতেই স্কুলে জলাবদ্ধতা, দূর্ভোগে শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা

চাঁপাইনবাবগঞ্জে অল্প বৃষ্টিতেই স্কুলে জলাবদ্ধতা, দূর্ভোগে শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা

ধূমকেতু প্রতিবেদক, চাঁপাইনবাবগঞ্জ : মাত্র কয়েক মিনিট বৃষ্টি হলেই স্কুলের পুরো মাঠ ও আঙিনায় তৈরি হয় জলাবদ্ধতা। এতে চরম দূর্ভোগ পোহাতে হয় শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের। পুরো গ্রামের পানি এসে জমা হয় স্কুলে, তৈরি হয় জলাবদ্ধতা। এমন দূর্ভোগে রয়েছেন চাঁপাইনবাবগঞ্জের গোমস্তাপুর উপজেলার চৌডালা ইউনিয়নের হাউসনগর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা। ইউনিয়ন পরিষদের অপরিকল্পিতভাবে সরকারি জমিতে থাকা ডোবা ভর্তির কারনে বিদ্যালয়ে জলাবদ্ধতা তৈরি হচ্ছে দাবি শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও স্থানীয়দের।

বিদ্যালয়টির শিক্ষক-শিক্ষার্থী, অভিভাবক ও স্থানীয় বাসিন্দা সূত্রে জানা যায়, পুরো হাউসনগর গ্রামের বৃষ্টির পানি স্কুলের পাশে থাকা একটি সরকারি ডোবাতে এসে জমতো। কিন্তু কয়েকমাস আগে মহানন্দা নদী ড্রেজিং প্রকল্প বাস্তবায়নের সময় নদীর বালু দিয়ে ডোবার গর্ত পূরণ করা হয়। ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানের মাধ্যমে এই কাজটি বাস্তবায়ন হয়। ফলে গর্ত পূরণ হয়ে গেলে গ্রামের সকল বৃষ্টির পানি স্কুলের মাঠ ও বারান্দায় এসে জমে।

দীর্ঘ দেড় বছর পর গত ১২ সেপ্টেম্বর সারাদেশে স্কুল খোলা হলেও হাউসনগর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে কোন ক্লাস হয়নি। দুইদিন পর পানি কমে গেলে চালু হয় স্কুলের পাঠদান কার্যক্রম। কয়েকদিন আগে পঞ্চম শ্রেণীর এক ছাত্র স্কুলে আসার পথে পানিতে পড়ে গিয়ে বই-খাতা সবকিছু ভিজে নষ্ট হয়।

বিদ্যালয়টির শিক্ষক ও স্থানীয়রা বলছেন, গ্রামের পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থা না করেই ডোবা ভরাট করার কারণে এমন পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে। এতে স্কুলের পাশের কয়েকটি বাড়িও জলাবদ্ধতা তৈরি হয়।

বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক মুক্তারা খাতুন বলেন, স্কুল বন্ধের সময়ে অনেকের মুখে শুনেছি আমাদের স্কুল পানিতে ডুবে আছে। স্কুলে এসে দেখি ঘটনা সত্য। অথচ প্রাণঘাতী করোনা সংক্রমণের কারনে স্কুল বন্ধের আগে পরিস্থিতি এমন ছিল না। হাজারো বৃষ্টি হলেও স্কুলের মাঠে বা বারান্দায় পানি জমতো না। অপরিকল্পিতভাবে গর্ত ভরাট করার কারনে এমনটা হয়েছে।

হাউসনগর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৫ম শ্রেণীর ছাত্র শিমুল রানা জানান, দীর্ঘদিন পর স্কুল খোলা হলে এসে দেখি হাঁটু পরিমাণ পানিতে ডুবে আছে আমাদের স্কুল। চারিদিকে শুধু পানি আর পানি। ক্লাসে যেতে হলে হাঁটু সমান পানি পেরুতে হবে। স্কুল খোলার দ্বিতীয় দিনে আমার সাথে পড়ে এক বন্ধু স্কুলে আসার পথে মাঠে পানিতে পড়ে যায়। এসময় তার পোষাক ও বইপত্র সব ভিজে নষ্ট হয়ে গেছে।

চতুর্থ শ্রেণীর ছাত্রী ইসমোতারা খাতুনের মন খারাপ মাঠে খেলতে না পাওয়ায়। সে জানায়, গত এক সপ্তাহে বৃষ্টি হয়নি, তাই স্কুলের মাঠ বা বারান্দায় পানি জমে নেই। কিন্তু পুরো মাঠজুড়ে জমে থাকা পানির কারনে পিচ্ছিল হয়ে আছে। আমরা যাতে খেলতে গিয়ে পড়ে না যায়, তাই স্যারেরা খেলতে মানা করেছে।

বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রেজাউল করিম বলেন, বৃষ্টি তো দূরের কথা, ভারী বর্ষনেও গত ৩ দশক ধরে এই স্কুলে কোনদিন জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়নি। অথচ এখন কয়েক মিনিট বৃষ্টি হলেই গ্রামের সমস্ত পানি এসে জমা হয় স্কুলের মাঠ ও আঙিনায়। এতে স্কুলের পাঠদানও ব্যাহত হচ্ছে। ইউপি চেয়ারম্যান ও স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা সঠিকভাবে পরিকল্পনা না করার কারনে বর্তমানে এমন দূর্ভোগে পড়তে হয়েছে আমাদের।

চৌডালা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শাহ আলম জানান, স্কুলের পাশে থাকা একটি ডোবা ভর্তি করার কারনে স্কুলে জলাবদ্ধতা হচ্ছে। ডোবাটি সরকারি রাস্তা হওয়ার নদী ড্রেজিংয়ের বালু পেয়ে ইউনিয়ন পরিষদের পক্ষ থেকে ভরাট করা হয়েছে। স্কুলের জলাবদ্ধতা দূর করতে প্রয়োজনে স্কুলের মাঠেও ভরাট করে উঁচু করে দেয়া হবে, যাতে পানি আসতে না পারে।

গোমস্তাপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মিজানুর রহমান বলেন, হাউসনগর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের জলাবদ্ধতা নিয়ে আমার কাছে অভিযোগ করা হয়েছিল। পরে সংশ্লিষ্টদের সাথে কথা বলে পরবর্তী সময়ে এডিবি’র বরাদ্দ আসলেই পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থা করার সিধান্ত নেয়া হয়েছে।

দ্রুত সময়ের মধ্যে ড্রেন নির্মাণ করে গ্রামের সকল বৃষ্টির পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থা করার দাবি বিদ্যালয়টির শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের। হাউসনগর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রথম থেকে পঞ্চম শ্রেণী পর্যন্ত ২৪৪ জন শিক্ষার্থী ও ৬ জন শিক্ষক রয়েছে।

ধূমকেতু নিউজের ইউটিউব চ্যানেল এ সাবস্ক্রাইব করুন

প্রিয় পাঠকবৃন্দ, স্বভাবতই আপনি নানা ঘটনার সাক্ষী। শেয়ার করুন আমাদের। যেকোনো ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের ইমেলে পাঠিয়ে দিন এই ঠিকানায়। নিউজ পাঠানোর ই-মেইল : dhumkatunews20@gmail.com. অথবা ইনবক্স করুন আমাদের @dhumkatunews20 ফেসবুক পেজে । ঘটনার স্থান, দিন, সময় উল্লেখ করার জন্য অনুরোধ করা হলো। আপনার নাম, ফোন নম্বর অবশ্যই আমাদের শেয়ার করুন। আপনার পাঠানো খবর বিবেচিত হলে তা অবশ্যই প্রকাশ করা হবে ধূমকেতু নিউজ ডটকম অনলাইন পোর্টালে। সত্য ও বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ নিয়ে আমরা আছি আপনাদের পাশে। আমাদের ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করার জন্য অনুরোধ করা হলো Dhumkatu news