IMG-LOGO

বুধবার, ২৯শে মে ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
১৫ই জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ২০শে জিলকদ ১৪৪৫ হিজরি

× Education Board Education Board Result Rajshahi Education Board Rajshahi University Ruet Alexa Analytics Best UK VPN Online OCR Time Converter VPN Book What Is My Ip Whois
নিউজ স্ক্রল
মোহনপুরে ৬ষ্ঠ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ত্রি-মূখী লড়াইবাগমারায় ঘূর্ণিঝড় রেমালের প্রভাবে কৃষকের ব্যাপক ক্ষতিশৈলগাছী ইউনিয়ন পরিষদের উন্মুক্ত বাজেট ঘোষণারাজশাহীতে প্রথম ধাপের নির্বাচিত উপজেলা চেয়ারম্যানদের শপথ গ্রহণরাজশাহীতে ৬৬৫১৩ শিশুকে ভিটামিন এ ক্যাপসুল খাওয়ানো হবেনারীর ভূমিকার পক্ষে শক্ত অবস্থান সানিয়া মির্জারনাচোলে দুদকের বিতর্ক প্রতিযোগিতা ও পুরস্কার বিতরণফুলবাড়ীতে উম্মুক্ত লটারীর মাধ্যমে কৃষক নির্বাচন‘তদন্তের স্বার্থে সব বলা যাচ্ছে না’পাল্টা ২০ কোটি টাকা ক্ষতিপূরণ চেয়ে আইনি নোটিশ পাঠালেন চিত্রনায়িকা মিষ্টি‘বেনজিরকে গ্রেফতারে আইনী কোন বাধা নেই’১৪৩৩৭ কোটি টাকার ১১ প্রকল্প একনেকে অনুমোদনইসরায়েলি সেনাদের সঙ্গে গোলাগুলিতে মিসরীয় ১ সেনা নিহতএমপি আজিমের বিষয়ে গোয়েন্দা পুলিশের নতুন তথ্যচার লিগে সর্বাধিক গোল, বিশ্বরেকর্ড রোনালদোর
Home >> রাজশাহী >> তানোরে প্রচন্ড শীতে জবুথবু জনজীবন

তানোরে প্রচন্ড শীতে জবুথবু জনজীবন

ধূমকেতু প্রতিবেদক, তানোর : প্রচুর ঠান্ডা শরীর কোনভাবে সহ্য করতে পারছেনা। পানিতে নামতেই পারিনি। জাল ফেলতে পারিনি। গত শনিবার দুপুরের পর বিলে জাল ছিল, মাছ ধরতে যায়, নৌকা থেকে পানিতে নামামাত্র ঠান্ডা সহ্য করতে পারিনি। রোববার আরো ঠান্ডা। বিলে নামতেই পারিনি, জানিনা কয়দিন এমন অবস্থা চলবে। 

সোমবার (৯ জানুয়ারী) বিকেলের দিকে তানোর পৌর সদর শীতলী পাড়া গ্রামের মৎস্যজীবি আব্দুল মজিদ পরিচিত নাম বিশু কথাগুলো কষ্টে বের করেন। 

আরেক মৎস্যজীবী একই পাড়ার আজিজুর জানান, মাছ না মারতে পারলে সংসার চলে না। রোববার সারাদিন রাত একই রকম ঠান্ডা সেই সাথে ঝড়ের মত বাতাস, কোন ভাবেই বিলে যাওয়া যাচ্ছে না। অবশ্য সোমবার দুপুরের পরে সূর্যের আলো দেখা গেলেও বাতাসের কারনে তাপমাত্রা একেবারেই নেই। এতে করে দরিদ্র অসহায় দীন মজুর ও ছিন্নমুল জনগোষ্ঠী চরম বেকায়দায় পড়েছে।

জানা গেছে, ঘনকুয়াশা ও দমকা হাওয়ার দাপটে কনকনে হাড়কাঁপানো শীত পড়ছে উত্তরের জনপদ রাজশাহীর তানোরে। মৌসুমের প্রথম দফার মৃদু শৈত্যপ্রবাহ এখন নেই। তবে রাত ও দিনের তাপমাত্রার পারদ প্রায় একই থাকছে। সর্বনিম্ন ও সর্বোচ্চ তাপমাত্রার পারদে তেমন একটা ব্যবধান না থাকায় দিনেও কনকনে শীত অনুভব হচ্ছে। এতে বিপর্যস্ত উপজেলার স্বাভাবিক জনজীবন।

রোববার ভোরে রাজশাহীতে সর্বনিম্ন তামপাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ১৩.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস। আর সর্বোচ্চ তামপাত্রা ১৫.৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস। দুপুর পর্যন্ত সূর্যের দেখা মেলেনি। ঘন কুয়াশায় ঢাকা ছিল পুরো পাড়া-মহল্লা। আর সারা রাত ও দিনজুড়ে দমকা বাতাসের দাপট চলমান রয়েছে। বাতাসের কারণেই শীতের অনুভূতি হাড় পর্যন্ত গিয়ে ঠেকছে। এতে ঘরের বাইরে হাড়কাঁপানো শীতের প্রকোপে জনজীবনে একধরনের স্থবিরতা লক্ষ্য করা গেছে। এ কয় দিন ঘরের বাইরে মানুষের চলাচল তুলনামূলক অনেক কম ছিল। তবে শ্রমিক ভ্যান অটো চালকরা বাধ্য হয়ে বের হলেও লোকজন না থাকার কারণে তেমন ভাড়া মারতে পারছেন না। যাকে বলে একান্তই প্রয়োজন ছাড়া কেউ বের হয়নি। এ ছাড়া যারা বাইরে বের হয়েছেন তারা মোটা গরম কাপড় শরীরে মুড়িয়ে নিয়েছেন।

সন্ধ্যার পর থেকে দিনের একটি অংশ ঘন কুয়াশার দাপট থাকায় যান চলাচলে অস্থরিবতা দেখা যাচ্ছে। দূরপাল্লার যানবাহনগুলোও গতি কমিয়ে দিনের বেলাতেও হেটলাইট জ্বালিয়ে চলাচল করেছে। এ ছাড়া খেটে খাওয়া নিম্নআয়ের মানুষদের চরম দুর্ভোগের মধ্যে পড়তে হয়েছে।

অটো ভ্যান নিয়ে বের হয়েছিলেন ওহাব । তিনি বলেন, গত তিনদিন শীত বেশি লাগছে। রাতে অতিরিক্ত শীতের কারণে তিনি সন্ধ্যা ৭টার মধ্যে বাসায় চলে যান। দিনের বেলাতেই মূলত তিনি গাড়ি চালান। কিন্তু দুপুর পর্যন্ত সূর্যের দেখা না মেলায় তেমন ভাড়া হয়নি। মাথায় কিস্তির বোঝা আছে। তাই এক-দুজন যাত্রী নিয়েই কনকনে ঠাণ্ডার মধ্যে ভাড়া মারছেন তিনি।

কৃষি শৃমিক মোস্তফা বলেন, উপজেলা জুড়ে আলুর পরিচর্যা চলছে। সকালে জমিতে যেতে হচ্ছে। শীত থেকে বাচতে একাধিক মোটা কাপড় পরেও রক্ষা হচ্ছেনা। গরমের সময় যেমন ঘেমে শরীর ভিজে যায়, ঠিক একই ভাবে কুয়াসা ও বাতাসের কারনে জামা কাপড় ভিজে যাচ্ছে। তবে সোববার দুপুরের পর থেকে সূর্যের আলোর দেখা মিলেছে। কিন্তু বাতাসের কারনে ঠান্ডা কমেনি। 

আবহাওয়া সংশ্লিষ্টরা বলছেন, ঠাণ্ডা বাতাসের কারণে দিনের বেলা সর্বোচ্চ তাপমাত্রাও কারও গায়ে লাগছে না। হিমেল হাওয়ার দাপটেই কাঁপছে উত্তর জনপদের মানুষ। জানুয়ারির দ্বিতীয় সপ্তাহে আবারও শৈত্যপ্রবাহের ইঙ্গিত দিচ্ছেন আবহওয়া দপ্তর। 

এদিকে গত সোমবার সর্বনিম্ন তাপমাত্রার ছিল ১২ ডিগ্রি  সেলসিয়াস। সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ২৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস। 

রাজশাহী আবহাওয়া পর্যবেক্ষণাগারের জ্যেষ্ঠ পর্যবেক্ষক লতিফা হেলেন জানান, জানুয়ারির প্রথম দফায় মৃদু শৈত্যপ্রবাহ কেটেছে। জানুয়ারির প্রথম দিকে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ১৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস। যেটা তুলনামূলক বেশি। সোমবার ১৩ এর ঘরে থাকলেও শীতের অনুভূতি বাতাস ও ঘন কুয়াশার কারণে বেশি। সামনে তাপমাত্রা আরও নিচে নামবে বলেও জানান তিনি।

ধূমকেতু নিউজের ইউটিউব চ্যানেল এ সাবস্ক্রাইব করুন

প্রিয় পাঠকবৃন্দ, স্বভাবতই আপনি নানা ঘটনার সাক্ষী। শেয়ার করুন আমাদের। যেকোনো ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের ইমেলে পাঠিয়ে দিন এই ঠিকানায়। নিউজ পাঠানোর ই-মেইল : dhumkatunews20@gmail.com. অথবা ইনবক্স করুন আমাদের @dhumkatunews20 ফেসবুক পেজে । ঘটনার স্থান, দিন, সময় উল্লেখ করার জন্য অনুরোধ করা হলো। আপনার নাম, ফোন নম্বর অবশ্যই আমাদের শেয়ার করুন। আপনার পাঠানো খবর বিবেচিত হলে তা অবশ্যই প্রকাশ করা হবে ধূমকেতু নিউজ ডটকম অনলাইন পোর্টালে। সত্য ও বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ নিয়ে আমরা আছি আপনাদের পাশে। আমাদের ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করার জন্য অনুরোধ করা হলো Dhumkatu news