IMG-LOGO

মঙ্গলবার, ১৬ই এপ্রিল ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
৩রা বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ৬ই শাওয়াল ১৪৪৫ হিজরি

× Education Board Education Board Result Rajshahi Education Board Rajshahi University Ruet Alexa Analytics Best UK VPN Online OCR Time Converter VPN Book What Is My Ip Whois
নিউজ স্ক্রল
বদলগাছীতে দিনব্যাপী কৃষি প্রযুক্তি মেলার উদ্ধোধনমান্দায় প্রতিপক্ষের হামলায় আহত যুবকের মৃত্যুপোরশার পূণর্ভবা এখন বালুচরনন্দীগ্রামের বৃন্দাবন পাড়া হরিবাসর পরিদর্শনে এমপিচাইনিজ কুড়ালসহ আটক কিশোরকে ছেড়ে দিল পুলিশচেয়ারম্যান পদে আ.লীগের চার সহ ৬ জনের মনোনয়ন দাখিলচার দিনে রাজস্ব আয় সাড়ে ১৬ লাখঢাকাস্থ নাচোল উপজেলা সমিতির সভাপতিকে সংবর্ধনাসাপাহারে বাংলা নববর্ষ বরনদরিদ্রদের কর্মসংস্থান সৃষ্টির লক্ষ্যে কাজ করছে সরকার : গামামহাদেবপুরে চেয়ারম্যান ৮ ও ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৭ জনের মনোনয়ন দাখিলপাল্টা হামলা চালাতে মরিয়া হয়ে উঠেছে ইসরায়েলসিলেটে বিদ্যুৎকেন্দ্রে আগুনপ্রথম ধাপের ১৫২ উপজেলার মনোনয়ন পত্র জমার শেষদিন আজআফগানিস্তানে ভারী বৃষ্টি-বন্যায় নিহত ৩৩
Home >> রাজশাহী >> শাহী মসজিদের টেরাকোটায় রয়েছে আমের চিত্রাঙ্কন

বাঘায় দেড়শ’ প্রজাতির নামের আম

শাহী মসজিদের টেরাকোটায় রয়েছে আমের চিত্রাঙ্কন

ধূমকেতু প্রতিবেদক, বাঘা : ‘রাজা নেই শাহি নেই, রাজশাহী নাম,হাতি ঘোড়া কিছু নেই আছে শুধু আম’। রাজশাহীর ৯টি উপজেলার মধ্যে সবচেয়ে বেশি আম উৎপন্ন হয় বাঘায়। আমের স্বর্গরাজ্য হিসেবে পরিচিত বাঘার আম দেশের গন্ডি পেরিয়ে বিদেশেও রপ্তানি হচ্ছে। সবকিছুকে ছাড়িয়ে আমের যেমন আছে নামের বাহার, তেমনি রয়েছে ভিন্ন সব স্বাদ-বর্ণ-ঘ্রাণ।

যেমন- বৃন্দাবনী আম রঙে যেমন, খেতেও সুস্বাদু। রসে ভরা, আঁশ নেই, স্বাদে-গন্ধে অতুলনীয়-ক্ষিরের জালি, সন্দেশি, রমু খিরসা, গোপাললাড়ু, নুরু মিঞার গুটিসহ পরিচয়হীন অনেক আম রয়েছে। এইসব আম এলাকায় খুব কম। সব মিলে প্রায় দেড়শ জাতের বাহারি নামের আম উৎপাদন হয় এই উপজেলায়। অনেক আমের নামও শোনেননি উপজেলার বাইরের মানুষ।

সূর্যডিম বা মিয়াজাকি হলো জাপানিজ আম। বিশ্ববাজারে এটি ‘রেড ম্যাংগো’ নামে পরিচিত। ‘কিং অব চাকাপাত’। থাইল্যান্ডের একটি স্থানের নামে আমের এমন নামকরণ। কলার মতো দেখতে, তাই নাম ‘ম্যাংগো ব্যানানা’। হাতির দুই পায়ের মতো ছড়িয়ে পড়া ‘ম্যাট্রোস তোতা’, আপেলসদৃশ ‘আপেল ম্যাংগো’। এসব আমও এখন চাষ হচ্ছে বাঘা উপজেলায়। জাতীয়ভাবে পরিচিত আমের মধ্যে রয়েছে-ন্যাংড়া, গোপালভোগ, ফজলি, ক্ষিরসাপাত, হিমসাগর, মোহনভোগ, লক্ষণভোগ (লখনা), আশ্বিনা, আড়াজাম, মিসরিভোগ, চৌষা, কাঁচামিঠা ইত্যাদি।

আমচাষিদের সঙ্গে কথা বলে বিভিন্ন জাতের আরও বাহারি নামের আমের পরিচিতি পাওয়া যায়। বাউসা মিঞাপাড়া গ্রামের মাসুদ রানার বাগানের কেজি ওজনের বালিশগুটি, বাজুবাঘা গ্রামের আব্দুর রাজ্জাকের রমু খেরসাসহ উপজেলার বিভিন্ন গ্রামে উৎপাদিত- জগৎমোহিনী, বারি আম-৪, বারি আম-১১, আম্রুপালি, মল্লিকা, হাড়িভাঙ্গা, বোম্বাই, কার্টিমন (বারোমাসি), গৌড়মতি ছাড়াও আরো কিছু মজার মজার নামের আম আছে।

যেমন- বৌভূলানো, ছাতু ভিজালী, ঝিনুক, কাঁকড়ি, পাগাড়ে, ইঁদুরচাটা, বাবুইঝুকি, মধু চুষকা, অনামিকা, কৈদি, ধইসি, গোল্লা, জালিবাস, ঠুটি, ভুরই, খালসি, জামাইভোগ, নাজির ভোগ, দুধ সাগর, আনার কলি, আনারসী, দুধভরা, দুধ কোমর, বাতাসী, ফনিয়া, জহুরা, লাখে এক, খাজা গুটি, চিনিখোরা, চুঙ্গাভোগ, বিবি, চাপড়া, ডুকসা, হাতিম, কৃষাণভোগ, কাদুমা, বেলি, দুধসর, চেংসাই, ডকমাই, ভাদরী, নাকাবাসী, সুমাসি, দিংলি, হাতিঝোলা, কোদালকাটি, সিন্দুরটোকা, জাওনি, স্বপ্নবিভর, বৈশাখী, কালুয়া, বিশ্বনাথ, বাঘাশাহি, বঙ্গবাসী, আষাঢ়ি, বাতাসী, ধমিয়া, মোহনঠাকুর, মেথা, ফকিন্নী, মিছরিছানা, সালাম ভোগ, মধু খালসি, পেঁপে গুটি, পেপসি গুটি, সুগন্ধি গুটি, আবদুল্লাহ ফজলি, কালিভোগ, মধুমতী, চরুষা, চমন বাহার, সেঁদুরি, কালিভোগ, নাকফজলি, সুরমা ফজলি, জাইন্ট খিরসাপাত, চোষা, নন্দাফ্রাম, বড়গুটি, ছোটগুটি, বোম্বাই, ইত্যাদি।

অতীতকালের ত্রিফলা, কিষান ভোগ, সূর্যপরি, চালকি, কালিভোগ, রাণী পছন্দ, কালুয়া, ধলুয়া, রাজভোগ, বগা ইত্যাদি জাতের আম এখন বিলুপ্ত প্রায়। এসবের মাঝে বিষাদের কিছু আমের নামও শোনা যায়। যেমন- খাটাশি, বিলি পাদুড়ি ইত্যাদি। দেখতে অত্যন্ত বড় হলেও স্বাদে টক হাওয়াই এটাকে খাটাশি ও বিলি পাদুড়ি বলা হয়।

নিজেদের স্মরণীয় করে রাখতে গাছ লাগানোর পর অনেকে নিজেদের নামে আমের নামকরণ করতেন। বাজুবাঘার আব্দুল হালিম জানান, তার দাদার বাবা সৈয়দ হোসেন মিঞার লাগানো বিভিন্ন জাতের আমের নাম শুনেছেন। কলমি লতা জাতের গাছটি লতার মতো বিস্তৃত হওয়ায় এটাকে কলমি লতা বলা হয়। দেলসাদের লাগানো গাছটির আম দেলসাদ নামেই পরিচিত। সিঁদুরি নামের আমটি মকছেদ মিঞার সিঁদুরি নামে পরিচিত।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের, বাঘা উপজেলা কার্যালয়ের কর্মকতা, কৃষিবিদ শফিউল্লাহ্ সুলতান বলেন, ১৫২৩-১৫২৪ খিস্টাব্দে (হিজরি-৯৩০) সুলতানি আমলে নির্মিত রাজশাহীর বাঘা শাহী মসজিদের টেরাকোটায় আমের চিত্রাঙ্কন রয়েছে। তা দেখে বোঝা যায়, প্রাচীনকাল থেকেই রাজশাহীর বাঘায় আমের খ্যাতি ছিল।

তিনি জানান, বাণিজ্যিক জাতের আমের মধ্যে নামকরণের কিছু ইতিহাস লোকমুখে প্রচলিত আছে। যেমনÑ বিহারে এক ল্যাংড়া ফকিরের বাড়ি থেকে উন্নতমানের যে আম গাছের চারা সংগ্রহ করা হয়েছিল। তাই ল্যাংড়া নামে পরিচিতি লাভ করে। খিরসার মতো সুস্বাদু হওয়ায় এই জাতের আমের নাম হয়েছে খিরসাপাত।

ফজলি আম ‘ফকিরভোগ’ বলে পরিচিত ছিল। ফজলি বিবি নামে এক বৃদ্ধার বাড়ি থেকে প্রথম এই জাতটি সংগৃহীত হয়েছিল। ভারতের মালদহ জেলার কালেক্টর রাজভেনশ (র‌্যাভেন) ‘ফজলি’ নামকরণ করেন। যা মাহবুব সিদ্দিকীর আম বিষয়ক একটি বইয়ে উল্লেখ আছে। সবচেয়ে নামি জাতটি আশ্বিন মাস পর্যন্ত গাছে থাকতে পারে বলে আশ্বিনা নাম দেওয়া হয়েছে। উপজেলায় ৮ হাজার ৫‘শ ৭০ হেক্টর জমিতে আম বাগান রয়েছে বলে জানান এই কৃষি অফিসার।

ধূমকেতু নিউজের ইউটিউব চ্যানেল এ সাবস্ক্রাইব করুন

প্রিয় পাঠকবৃন্দ, স্বভাবতই আপনি নানা ঘটনার সাক্ষী। শেয়ার করুন আমাদের। যেকোনো ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের ইমেলে পাঠিয়ে দিন এই ঠিকানায়। নিউজ পাঠানোর ই-মেইল : dhumkatunews20@gmail.com. অথবা ইনবক্স করুন আমাদের @dhumkatunews20 ফেসবুক পেজে । ঘটনার স্থান, দিন, সময় উল্লেখ করার জন্য অনুরোধ করা হলো। আপনার নাম, ফোন নম্বর অবশ্যই আমাদের শেয়ার করুন। আপনার পাঠানো খবর বিবেচিত হলে তা অবশ্যই প্রকাশ করা হবে ধূমকেতু নিউজ ডটকম অনলাইন পোর্টালে। সত্য ও বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ নিয়ে আমরা আছি আপনাদের পাশে। আমাদের ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করার জন্য অনুরোধ করা হলো Dhumkatu news