IMG-LOGO

শুক্রবার, ১লা মার্চ ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
১৭ই ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ, ১৯শে শাবান ১৪৪৫ হিজরি

× Education Board Education Board Result Rajshahi Education Board Rajshahi University Ruet Alexa Analytics Best UK VPN Online OCR Time Converter VPN Book What Is My Ip Whois
নিউজ স্ক্রল
মেয়রের সাথে তায়কোয়ানদো এসোসিয়েশনের পদক জয়ীদের সাক্ষাৎফুলবাড়ীতে দ্রুত ব্রীজ মেরামতের দাবি এলাকাবাসীররাজশাহী এডভোকেট’স বার এসোসিয়েশন নির্বাচনে ভোট দিলেন মেয়র লিটনবড়াইগ্রামে রোজার পবিত্রতা রক্ষার্থে জনসচেতনা মূলক প্রচারণামান্দায় বালু দস্যুদের থাবায় নদীগর্ভে ফসলি জমিতানোরে হত্যার ঘটনায় প্রধান আসামিসহ গ্রেপ্তার ৩সয়াবিন তেলের নতুন দাম কার্যকর পহেলা মার্চবলিউড যেখানে শেষ আশ্রয়‘মতপ্রকাশের স্বাধীনতার ‘ছিটেফোঁটাও নেই’’রাজশাহীতে ছেলেকে মারধর ও বাড়িতে হামলা-ভাঙচুরের বিচার চাইলেন বাবা-মাবাজে অঙ্গভঙ্গি করায় এক ম্যাচ নিষিদ্ধ ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো‘দেশ ধ্বংসের মাস্টারপ্ল্যান বাস্তবায়নে তৎপর বিএনপি’সব সঞ্চয় ফিলিস্তিনি শিশুদের জন্য দান করে গেছেন গায়ে আগুন দেওয়া সেই মার্কিন সেনাজনগণের ক্ষমতা জনগণের হাতে ফিরিয়ে দিয়েছে আওয়ামী লীগ১৫৭ বিদেশি বন্দীকে নিজ নিজ দেশে ফেরত পাঠানোর নির্দেশ
Home >> টপ নিউজ >> রাজশাহী >> লিড নিউজ >> অস্থিতিশীল রাজশাহীর সবজি বাজার

অস্থিতিশীল রাজশাহীর সবজি বাজার

ধূমকেতু প্রতিবেদক : অস্থির হয়ে উঠছে নগরীর কাঁচা বাজারগুলো। দিন গড়ানোর সাথে বাড়ছে সব ধরণের কাঁচা শাকসবজির দাম। আগে আমদানির উপর নির্ভর করে দাম বাড়ানো হলেও এখন আমদানি যাই হোক প্রতিদিন হু হু করে বাড়ছে দাম। ইতোমধ্যে কাঁচা সবজির বাজার একেবারে আকাশ ছোঁয়া। লাগামহীন সবজির বাজারে দুশ্চিন্তা বাড়াচ্ছে খেটে খাওয়া মানুষদের। বিশেষ করে সাধারণ নিম্ন আয়ের মানুষের ক্রয় ক্ষমতার বাইরে চলে যাচ্ছে কাঁচা তরিতরকারি। তবে কৃষি বিভাগ বলছে আগামী ১৫ থেকে ২০দিনের মধ্যে আগাম জাতের শীতকালিন নতুন সবজি বাজারে উঠবে। আর নতুন সবজি বাজারে এলে দামও কমে আসবে। কিন্তু ব্যবসায়ীরা বলছেন, খুব সহজে সবজির দাম কমছে না।

নগরীর সাহেববাজার, নিউমার্কেট কাঁচা বাজার, উপশহর বাজার ও শালবাগান বাজার ঘুরে দেখা গেছে, একেকটা বাজারে সবজির দাম একেক রকম। বাজার ভেদে সবজির দাম ৫ থেকে ১০টা পর্যন্ত তফাৎ রয়েছে। আর নগরীর অলিগলিতে ফেরি করে বিক্রি করা সবজির ধারের কাছে যাওয়া মুশকিল হয়ে পড়ছে। নগরীর সাহেব বাজারে গতকাল মঙ্গলবার সকাল থেকে সবজির তিনবার দাম উঠানামা করেছে। সকালে এক দামে সবজি বিক্রি করা হলেও দুপুরে দাম বেড়ে যায়। আবার বিকেলের পর আবার সকালের দামে সবজি বিক্রি হতে দেখা যায়।

দেখা গেছে, সকালে খুচরা বাজারে আলু ৩৫-৪০, বেগুন ৭০, ঢেড়স ৪০, পটল ৪৮, কাকরুল ৫০, করলা ৬০, চিচিংগা ৪০, পেঁপেঁ ২০-২৫, কচু ৪০, মরিচ ২শ’, চাল কুমড়া প্রকার ভেদে ৪৫-৫০ টাকা প্রতিপিস, তরই ৫০, কাঁচা কলা ২৫ থেকে ৩০টাকা হালি, শাকের মধ্যে পুঁই শাক ২৫ থেকে ৩০টাকা, লাল শাক ৩৫টা, কলমি শাক ৪০টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। গত দ’ুদিন আগেও প্রতিটি সবজির দাম কেজিতে ১০ থেকে ১৫ টাকা কম ছিল। কিন্তু মাত্র তিনদিনের ব্যবধানে নগরীতে প্রতিটি সবজির দাম ১০ থেকে ২০টাকা পর্যন্ত বৃদ্ধি পেয়েছে। আলুর মুজুদ থাকলেও বৃদ্ধি পেয়েছে কেজিতে ৮টাকা। এছাড়াও মরিচ কিনতে গিয়ে নাজেহাল হতে হচ্ছে ক্রেতাদের। গত এক সপ্তাহ আগেই মরিচ ডাবল সেঞ্চুরি পার করেছে। এরপর আর দাম কমেনি। নগরীর বাজারে ২শ’ থেকে ২১০ টাকা কেজিতে কাঁচা মরিচ বিক্রি হচ্ছে।

নগরীর নিউমার্কেট এলাকার সবজি ব্যবসায়ী আলমগীর হোসেন জানান, প্রতিদিন সবজির দাম বাড়ছে। বেশি দামে পাইকারী বাজারে থেকে কিনতে হচ্ছে সবজি। তাই বেশি দামে বিক্রি করতে হচ্ছে। তিনি বলেন, আলুর মজুদ রয়েছে তারপরও গত তিনদিন থেকে আগের দামে আলু পাওয়া যাচ্ছে। এক লাফে আলু কেজিতে দাম বেড়েছে ৫ থেকে ৭টাকা পর্যন্ত। এছাড়াও বাইরে থেকে যে সবজি নগরীতে ঢুকছে তা দিয়ে চাহিদা পুরণ হচ্ছে না। যার কারণে সবজির বাজার দিন দিন বাড়ছেই।

সাহেব বাজারের কাঁচা সবজির আড়ৎদার আবুল হোসেন জানান, আগে ভোর রাতেই নগরীর যা চাহিদা সেই সবজি চলে আসতো। কিন্তু এখন চাহিদার অর্ধেক সবজিও পাওয়া যাচ্ছে না। সকাল ১০টা পর্যন্ত বিভিন্ন যানবাহনে করে নগরীতে সবজি আনতে হচ্ছে। কারণ গ্রামাঞ্চলে এক তৃতীয়াংশ সবজির ক্ষেত বন্যার পানিতে নষ্ট হয়ে গেছে। সারা গ্রাম ঘুরে এক জায়গায় দুই মন সবজি পাওয়া মুশকিল হয়ে যাচ্ছে। বিভিন্ন জায়গায় ঘুরে ঘুরে কিনতে হচ্ছে সবজি। যার কারণে যানবাহন ব্যয় বেশি হচ্ছে। ওই সবজি নগরীতে এনে অতিরিক্ত দামে বিক্রি করতে হচ্ছে।

তিনি বলেন, সকালে এক দাম থাকছে আবার দুপুরে হঠাৎ করেই সবজির চাহিদা বাড়ায় দাম বৃদ্ধি পাচ্ছে। আবার বিকেলের দিকে দাম সকলের অবস্থানে ফিরে যাচ্ছে। নতুন সবজি না উঠা পর্যন্ত নগরীতে সবজির দাম কমছে না। একই সাথে মরিচের দাম সহসাই কমছে না বলেও তিনি মন্তব্য করেন।

সবজি কিনতে আসা নগরীর হেতেমখাঁ এলাকার বাবু জানান, ৫ সদস্যের সংসারে প্রতিদিন প্রায় ১০০টাকার সবজি লাগে। কিন্তু এখন ২শ’ টাকার সবজি দিয়েও সংসার চলছে না। আয় কমে গেছে, কিন্তু নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের সাথে শাকসবজির দাম বেড়ে যাওয়ায় পরিবার চালাতে হিমশিম খেতে হচ্ছে বলেও জানান তিনি। সবজি কিনতে আসা এখন অনেকেই জানান, দাম বৃদ্ধি পাওয়ায় দিনে যে সবজি ১ কেজি লাগে সেটি এখন অর্ধেকে নামিয়ে এনেও চালাতে পারছি না। এভাবে দাম বাড়তে থাকলে আগামীতে আলু ভর্তা, ডাল ভাত ছাড়া উপায় থাকবে না।

রাজশাহীর কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক শামছুল হক জানান, রাজশাহীর যেসব এলাকায় সবজি উৎপাদন হয় সেসব এলাকা এবার বন্যায় তোলিয়ে গেছে। এতে নষ্ট হয়ে গেছে সবজি ক্ষেত। রাজশাহীতে সবজির উৎপাদন একেবারে নিচে নেমে এসেছে। এবার বন্যায় ৫৬ হেক্টর জমির সবজির ক্ষেত পুরোটা নষ্ট হয়ে গেছে।

তিনি জানান, আগামী ১৫ থেকে ২০দিনের মধ্যে আগাম জাতের সিম, ফুল কপি, বাধা কপি বাজারে উঠতে শুরু করবে। উঁচু জমিতে আগাম জাতের এসব সবজি চাষ করা হয়েছে। এসব সবজি উঠতে শুরু করলে বর্তমান এ দাম আর থাকবে না।

ধূমকেতু নিউজের ইউটিউব চ্যানেল এ সাবস্ক্রাইব করুন

প্রিয় পাঠকবৃন্দ, স্বভাবতই আপনি নানা ঘটনার সাক্ষী। শেয়ার করুন আমাদের। যেকোনো ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের ইমেলে পাঠিয়ে দিন এই ঠিকানায়। নিউজ পাঠানোর ই-মেইল : dhumkatunews20@gmail.com. অথবা ইনবক্স করুন আমাদের @dhumkatunews20 ফেসবুক পেজে । ঘটনার স্থান, দিন, সময় উল্লেখ করার জন্য অনুরোধ করা হলো। আপনার নাম, ফোন নম্বর অবশ্যই আমাদের শেয়ার করুন। আপনার পাঠানো খবর বিবেচিত হলে তা অবশ্যই প্রকাশ করা হবে ধূমকেতু নিউজ ডটকম অনলাইন পোর্টালে। সত্য ও বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ নিয়ে আমরা আছি আপনাদের পাশে। আমাদের ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করার জন্য অনুরোধ করা হলো Dhumkatu news