IMG-LOGO

শুক্রবার, ১লা মার্চ ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
১৭ই ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ, ১৯শে শাবান ১৪৪৫ হিজরি

× Education Board Education Board Result Rajshahi Education Board Rajshahi University Ruet Alexa Analytics Best UK VPN Online OCR Time Converter VPN Book What Is My Ip Whois
নিউজ স্ক্রল
মেয়রের সাথে তায়কোয়ানদো এসোসিয়েশনের পদক জয়ীদের সাক্ষাৎফুলবাড়ীতে দ্রুত ব্রীজ মেরামতের দাবি এলাকাবাসীররাজশাহী এডভোকেট’স বার এসোসিয়েশন নির্বাচনে ভোট দিলেন মেয়র লিটনবড়াইগ্রামে রোজার পবিত্রতা রক্ষার্থে জনসচেতনা মূলক প্রচারণামান্দায় বালু দস্যুদের থাবায় নদীগর্ভে ফসলি জমিতানোরে হত্যার ঘটনায় প্রধান আসামিসহ গ্রেপ্তার ৩সয়াবিন তেলের নতুন দাম কার্যকর পহেলা মার্চবলিউড যেখানে শেষ আশ্রয়‘মতপ্রকাশের স্বাধীনতার ‘ছিটেফোঁটাও নেই’’রাজশাহীতে ছেলেকে মারধর ও বাড়িতে হামলা-ভাঙচুরের বিচার চাইলেন বাবা-মাবাজে অঙ্গভঙ্গি করায় এক ম্যাচ নিষিদ্ধ ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো‘দেশ ধ্বংসের মাস্টারপ্ল্যান বাস্তবায়নে তৎপর বিএনপি’সব সঞ্চয় ফিলিস্তিনি শিশুদের জন্য দান করে গেছেন গায়ে আগুন দেওয়া সেই মার্কিন সেনাজনগণের ক্ষমতা জনগণের হাতে ফিরিয়ে দিয়েছে আওয়ামী লীগ১৫৭ বিদেশি বন্দীকে নিজ নিজ দেশে ফেরত পাঠানোর নির্দেশ
Home >> রাজশাহী >> লিড নিউজ >> রাজশাহীতে লোকসানের মুখে ডেভেলপাররা

রাজশাহীতে লোকসানের মুখে ডেভেলপাররা

ধূমকেতু প্রতিবেদক : করোনা ভাইরাসের ধাক্কা সামাল দিয়ে না উঠতেই আবারো বহুতল ভবন নির্মাণ সামগ্রীর দাম বাড়ায় ধাক্কার কবলে পড়েছেন রাজশাহীর ডেভেলপাররা। হঠাৎ করেই রাজশাহীতে নির্মাণ সামগ্রীর দাম বৃদ্ধি পেয়েছে অস্বাভাবিকভাবে। কোনো কারণ ছাড়াই নির্মাণ সামগ্রীর দাম বাড়ানোর কারণে বেকায়দায় পড়েছেন বহুতল ভবন নির্মাণকারী প্রতিষ্ঠান। অনেক ডেভেলপার পণ্যসামগ্রীর দাম বাড়ায় নির্মাণ কাজ পিছিয়েছে। আবার যেসব ডেলেলপাররা কাজ শুরুর চিন্তা করছিলেন তারাও শুরু করতে হিমশিম খাচ্ছেন। কারণ একটি বহুতল ভবন নির্মাণে যে ব্যয় নির্ধারণ করা হয়েছিল এখন সেই কাজ শুরু করতে গিয়ে ব্যয় অতিরিক্ত প্রায় ১৫% থেকে ২০% পর্যন্ত বাড়ছে। যার কারণে ভবন নির্মাণকারী প্রতিষ্ঠান থেকে শুরু করে যারা পাকা বাড়ি করার চিন্তা করেছিলেন তারা কাজ স্থগিত করছেন। নির্মাণ সামগ্রীর দাম বাড়ায় অনেক ডেভেলপার মনে করছেন তারা নির্ধারিত সময়ে ভবন বা ফ্ল্যাট হস্তান্তর করতে পারবেন না। করোনাকালীন সময়ে একবার বড় ধরনের ধাক্কা খেয়েছে ডেভেলাপাররা। কিছু সময় পর হলেও তারা ঘুরে দাঁড়াতে শুরু না করতেই আবার নির্মাণ সামগ্রীর দাম বাড়ায় আরেকটি ধাক্কা সামাল দিতে হচ্ছে। বিশেষ করে নির্মাণ সামগ্রীর দাম বাড়লেও বাড়েনি ফ্লাটের দাম। এতে লোকসানের পরিমাণটা একটু বেশি চিন্তা করছেন ডেভেলপাররা। ব্যবসায়ীরা বলছেন আন্তর্জাতিক বাজারে নির্মাণ সামগ্রীর দাম বেশি তাই রাজশাহীতেও দাম বৃদ্ধি করা হয়েছে।

জানা গেছে, বহুতল ভবন নির্মাণের প্রধান সমাগ্রী রডের দাম বেড়েছে প্রতিটনে ১৪ থেকে ১৫ হাজার টাকা। বেড়েছে টাইলস ও থাইয়ের দাম। দেশি বিদেশী দুই টাইলসের দাম এখন স্কয়ারফিট হিসাবে অতিরিক্ত ৫০ টাকা পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে। বালুরর গাড়ির দাম বাড়ানো হয়েছে ট্রাক প্রতি ১হাজারের বেশি। এক মাত্র সিমেন্ট ছাড়া প্রতিটি পণ্যের দাম বাড়ানো হয়েছে ১০ থেকে ২০%। ইটের দামও বাড়তির মুখে। একটি ভবন বির্মাণ করতে গেলে প্রায় একশরও বেশি সামগ্রী প্রয়োজন হয়। কিন্তু এই বিপুল পরিমাণ সমাগ্রীর দাম বাড়ায় মাথায় হাত পড়েছে ডেভেলপারদের। ছোটখাটো সব পণ্যের দাম বাড়ায় একটি ভবন নির্মাণ করতে এখন ১৫ থেকে ২০% অতিরিক্ত টাকা গুনতে হচ্ছে ডেভেলপারদের। শুধু ডেভেলপারদেরই নয়, যারা পাকা বাড়ি নির্মাণ করছেন তাদেরও এ পরিমাণ অতিরিক্ত টাকা গুনতে হবে। দেখা গেছে, একটি বহুতল ভবন করতে ব্যয় ধরা হয়েছিল ৫ কোটি টাকা। এখন এর সাথে যোগ হচ্ছে ১৫ থেকে ২০% টাকা। তাতে দেখা যাচ্ছে ৫ কোটি টাকা থেকে এখন আরো ২০% যোগ হয়ে এই ব্যয়ের পরিমাণ এসে দাঁড়াচ্ছে ৬ কোটি টাকা। ১০ কোটি টাকার ভবন নির্মাণে ব্যয় হবে অতিরিক্ত আরো দুই কোটি টাকা। যারা ১০তলা বিশিষ্ঠ ভবন নির্মাণ করছেন তাদের লোকসানের পরিমাণ আরো বেশি হচ্ছে। কিন্তু সেই তুলনায় ফ্লাটের দাম বাড়েনি। এমনকি ফ্ল্যাট বিক্রিও আগের চেয়ে অনেক কম। আর এই কম সংখক ক্রেতাদের কাছে বিক্রি করা ফ্লাট নির্মাণ করতে এখন ডেভেলপারদের নাভিশ্বাস উঠছে। এতে নির্ধারিত সময়ে ভবন হস্তান্তর নিয়েও অনিশ্চয়তার মধ্যে পড়েছেন ডেভেলপাররা।

জানা গেছে, রাজশাহীতে ২০১১সালের পর রাজশাহী নগরীতে মাথা উচু করে দাঁড়াতে শুরু করে বহুতল ভবন। মাত্র ১০বছরের ব্যাবধানে রাজশাহীতে মাথা উচু করে এখন দাঁড়িয়ে আছে শতাধিক বহুতল ভবন। আর এই উন্নয়ন হয়েছে শুধু মাত্র ডেভেলপারদের কারণে। প্রতিনিয়ত রাজশাহী নগরীতে বহুতল ভবন নির্মাণ হচ্ছে। বাড়ছে শহরের সুন্দর্য। মান সম্মত ও আধুনিক বহুতল ভবন নির্মাণের প্রনেতা হিসাবে রাজশাহীর ডেভেলপারদের প্রধান ভুকিমা রয়েছে। বিশেষ করে সরকারী বিধি মোতাবেক ভবন নির্মাণে দৃষ্ঠান্ত স্থাপন করেছে রিয়েল এস্টেট এন্ড ডেভেলপার্স এসোসিয়েশনের রেডা) সদস্যরা। মুল ধারার ডেভেলপারদের মধ্যে রেডার সদস্যদের ভবন এই শহরে মানসস্পন্ন হিসাবে পরিচিতি। রাজশাহী মহানগরীতে আধুনিক ভবন নির্মাণে বড় ধরনের সাফল্য রয়েছে রেডাভুক্ত সদস্যদের। কিন্তু গত ২০২০সালের মার্চ মাস থেকে বিশ্বব্যাপী করোনা ভাইরাসের হানায় স্থবির হয়ে যায় সব কিছুই। বাংলাদেশে এই করোনা ভাইরাসের প্রভাব পড়ে প্রতিটি ক্ষেত্রেই। বিশেষ করে করোনা ভাইরাসের সময় রাজশাহীর ডেভেলপারদের কাজকর্ম একেবারে বন্ধ হয়ে যায়। ব্যাপক লোকসানের মুখে পড়ে এই খাত। করোনা ভাইরাসের সময় অন্যান্য খাতে যে লোকসান গুনতে হয়েছে তার চেয়ে বেশি লোকসান গুনতে হয়েছে ডেভেলপারদের। তাদের লোকসানের পরিমাণ শতকোটির চেয়ে কম নয়। এমনকি অন্যান্য খাতে সরকার বিভিন্ন ধরনের সুযোগ সুবিধা ভুর্তকি দিলেও ডেভেলপার সেক্টরে কোনো বহুতল ভবন নির্মাণকারী প্রতিষ্ঠান ব্যাংক ঋণ পাননি। এমনকি রেডার সদস্যভুক্ত প্রতিষ্ঠান নিরলসভাবে কাজ করে গেলেও তারা সরকারী কোনো ধরনের সুযোগ সুবিধা পাননি। প্রতিবন্ধকতার মধ্যে গত প্রায় দুমাস আগে থেকে ডেভেলপাররা আবারো ঘুরে দাঁড়ানোর স্বপ্ন দেখতে শুরু করে। শুরু করেন পুরাতনের পাশাপাশি নতুন নতুন প্রজেক্টের কাজ। কিন্তু শুরু হতে, না হতেই যেনো শেষ। হঠাৎ করে বাড়ানো হয়েছে বহুতল ভবন নির্মাণ সামগ্রীর দাম।

রাজশাহী রিয়েল এস্টেট এন্ড ডেভেলপার্স এসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক ও আল আকসা প্রাইভেট কোম্পানী লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মিজানুর রহমান কাজী বলেন, করোনাকালীন সময় প্রায় সব খাতেই সরকার অনুদান দিয়েছে, সুযোগ সুবিধা দেয়া হয়েছে। কিন্তু কর্মসংস্থান থেকে শুরু করে সরকারকে সর্বোচ্চ রাজস্বদাতা রেডাভুক্ত সদস্যরা কোনো ধরনের সুযোগ সুবিধা পাননি। তারপরও তারা ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টা করছেন। কিন্তু কোনো কারণ ছাড়াই নির্মাণ সামগ্রীর দাম বাড়ানোর কারণে চরম বেকায়দায় পড়েছেন ডেভেলপাররা। এক ধাক্কা কাটিয়ে না উঠতেই আবারো ধাক্কার কবলে ডেভেলপাররা। তিনি বলেন, একটি ভবন নির্মাণ শুরুর আগে ও পরে ফ্লাট বিক্রি হয়ে যায়। এখন নির্মাণ সামগ্রীর দাম বেড়েছে। কিন্তু ফ্লাটের দাম বাড়েনি। সব দিক হিসাব করে ফ্লাটের মূল্য নির্ধারণ করা ছিল ও বিক্রি করা হয়েছে। কিন্তু এখন নির্মাণ সামগ্রীর দাম বাড়ায় ডেভেলপারদের বিক্রি করা ফ্লাট নির্মাণ শেষে লোকসানের হিসাব গুনতে হবে। এতে চরম বেকায়দায় রয়েছে ডেবেলপাররা।

পারফেক্ট লিভিং প্রোপাটিজের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এসএম সিহাব পারভেজ জানান, করোনার পর আবারো কাজ শুরু করা হয়েছিল। কিন্তু বর্তমান নির্মাণ সামগ্রীর যে দাম তাতে ভবন নির্মাণ বন্ধ রাখতে হবে। কারণ একটি ভবন নির্মাণের যাবতীয় খরচ কত হবে তা আগেই নির্ধারণ করা হয়। কিন্তু হঠাৎ করে নির্মাণ সামগ্রীর দাম বেড়ে যাওয়ায় ব্যয় বাড়ছে অতিরিক্ত ১৫ থেকে ২০%। কিন্তু এই অতিরিক্ত টাকা তো উঠবে না বা ফ্ল্যাট ক্রেতারা দিবে না। নিজের থেকেই এই টাকা ব্যয় করে ভবনের নির্মাণ কাজ শেষ করতে হবে। এতে মোটা অংকের টাকা লোকসান হবে বলেও জানান তিনি।

রাজশাহী রিয়েল এস্টেট এন্ড ডেভেলপার্স এসোসিয়েশনের সভাপতি ও রহমান ডেভেলপার্সের ব্যবস্থাপনা পরিচালক তৌফিকুর রহমান লাভলু বলেন, রেডাভুক্ত সদস্যরা সরকারকে প্রতিবছর কোটি কোটি টাকা রাজস্ব দিচ্ছে। কিন্তু করোনাকালীন সময় তারা কোনো ধরনের সুযোগ সুবিধা পায়নি। সবে মাত্র ডেভেলপাররা কাজ শুরু করেছে। এরই মধ্যে হঠাৎ করে নির্মাণ সমাগ্রীর দাম বেড়ে গেছে। অতিরিক্ত যে টাকা ব্যয় হবে সেই টাকা আসবে কোথা থেকে। এখন ডেভেলপাররা কি করবে এ নিয়ে চিন্তায় পড়ে আছেন। ডেভেলপাররা কাজ করবে না কাজ বন্ধ করে দিবে এ নিয়েও চিন্তিত। তিনি বলেন বিষয়টি সরকারের দেখা প্রয়োজন। নইলে এই সেক্টরটি বিপুল পরিমাণ ক্ষতির মুখে পড়বে।

ধূমকেতু নিউজের ইউটিউব চ্যানেল এ সাবস্ক্রাইব করুন

প্রিয় পাঠকবৃন্দ, স্বভাবতই আপনি নানা ঘটনার সাক্ষী। শেয়ার করুন আমাদের। যেকোনো ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের ইমেলে পাঠিয়ে দিন এই ঠিকানায়। নিউজ পাঠানোর ই-মেইল : dhumkatunews20@gmail.com. অথবা ইনবক্স করুন আমাদের @dhumkatunews20 ফেসবুক পেজে । ঘটনার স্থান, দিন, সময় উল্লেখ করার জন্য অনুরোধ করা হলো। আপনার নাম, ফোন নম্বর অবশ্যই আমাদের শেয়ার করুন। আপনার পাঠানো খবর বিবেচিত হলে তা অবশ্যই প্রকাশ করা হবে ধূমকেতু নিউজ ডটকম অনলাইন পোর্টালে। সত্য ও বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ নিয়ে আমরা আছি আপনাদের পাশে। আমাদের ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করার জন্য অনুরোধ করা হলো Dhumkatu news