IMG-LOGO

শনিবার, ২৮শে জানুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ, ১৪ই মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

× Education Board Education Board Result Rajshahi Education Board Rajshahi University Ruet Alexa Analytics Best UK VPN Online OCR Time Converter VPN Book What Is My Ip Whois
নিউজ স্ক্রল
দুর্নীতিগ্রস্থ বিচারকদের ছেটে ফেলা হবে : প্রধান বিচারপতিব্র্যাকের আলু বীজ কিনে হতাশায় কৃষকরা, পায়নি ক্ষতিপূরণতানোরে নিম্মমানের ড্রেন নির্মাণ, রাস্তা সংস্কারের নামে হরিলুটজনসভায় ৫-৭ লাখ মানুষের জনসমাগম হবে : লিটনচাঁপাইনবাবগঞ্জ-২ আসনে উপনির্বাচন, নাচোলে নৌকার জনসভাঅপরাধীরা পুলিশের চেয়ে এক ধাপ এগিয়ে থাকতে চায়ইউক্রেনে যুক্তরাষ্ট্রের ট্যাংক পাঠানোর ঘোষণায় যা বললেন কিমের বোনবায়ুদূষণে টানা আট দিন শীর্ষে ঢাকারাজশাহী জেলা পুলিশের অভিযানে আটক ৪মহাদেবপুরে ২০০ অসহায় মানুষের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণরাজশাহীতে আরএমপি পুলিশের অভিযানে আটক ২৭ভারতে ২৪ ঘন্টায় তিন বিমান বিধ্বস্তলালপুরে বোমা কালামকে কুপিয়ে হত্যাঝালকাঠিতে কাভার্ডভ্যান চাপায় দুই মোটরসাইকেল আরোহীর মৃত্যুমোহনপুরে গলায় ফাঁস দিয়ে যুবকের আত্মহত্যা
Home >> >> রাজশাহীতে সর্বাত্মক লকডাউন, তৎপর প্রশাসন

রাজশাহীতে সর্বাত্মক লকডাউন, তৎপর প্রশাসন

ধূমকেতু প্রতিবেদক : রাজশাহীতে বেড়ে গেছে করোনা আক্রান্ত রোগী সংখ্যা। সেই সঙ্গে বেড়েছে মৃত্যুর সংখ্যা। আর তাই মহানগরীতে কঠোর লকডাউন দেয় প্রশাসন। শুক্রবার বিকাল ৫টা থেকে শুরু হয় এ কঠোর লকডাউন।

লকডাউন কার্যকরের পর বিকেলে মহানগর পুলিশ কমিশনার আবু কালাম সিদ্দিক নিজেই পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করেন। তিনি নগরীর সাহেব বাজার জিরো পয়েন্টসহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ করেন। মহানগর পুলিশের বিভিন্ন জোনের উপ-কমিশনার, অতিরিক্ত উপ-কমিশনার এবং সহকারী কমিশনারসহ সংশ্লিষ্ট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তারা এসময় উপস্থিত ছিলেন।

এদিকে, প্রথম দিন বিশেষ লকডাউন কার্যকরের পর পুরো মহানগর এলাকায় সুনশান নিরবতা নেমে এসেছে। মহানগরীর তিনটি প্রবেশ মুখ এরই মধ্যে বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টে চেকপোস্ট স্থাপন করেছে পুলিশ। পুলিশের পাশাপাশি প্রথম দিন র‌্যাব সদস্যরাও বিভিন্ন সড়কে টহল দিচ্ছেন। এর পাশাপাশি মাঠে রয়েছে রাজশাহী জেলা প্রশাসনের ভ্রাম্যমাণ আদালতও। আর উপজেলা পর্যায়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তারা লকডাউন পরিস্থিতি মনিটরিং করছেন। সার্বিক পরিস্থিতি দেখভাল করছেন রাজশাহী জেলা প্রশাসক মো. আব্দুল জলিল।

আর মহানগর এলাকায় ঘোষিত সর্বাত্মক লকডাউনের বিধিনিষেধ বাস্তবায়নে কঠোর অবস্থানসহ প্রচার-প্রচারণা চালিয়েছে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী। শুক্রবার সকাল থেকেই মহানগর এলাকার জনগণকে কঠোর এই লডকাউন (শুক্রবার বিকেল ৫ টা থেকে ১৭ জুন মধ্যরাত পর্যন্ত) বাস্তবায়নে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীকে সহযোগীতা করার জন্য অনুরোধ জানানো হয়।

এছাড়া লকডাউন বাস্তবায়নে প্রশাসনকে শুক্রবার সকাল থেকে চলমান বিধিনিষেধ জোরদার করার পাশাপাশি নানা ধরনের পদক্ষেপ নিতে দেখা গেছে। এরই অংশ হিসেবে লকডাউন সম্পর্কে অবহিত করতে মাইকিং করে সবাইকে জানানোসহ বিধিনিষেধ না মানলে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে বলেও সতর্ক করা হয়। এদিকে সর্বাত্মক এই লকডাউ বাস্তবায়নে সার্বিক সহযোগিতা করার সিটি কর্পোরেশন এলাকার বাসিন্দাদের প্রতি আহŸান জানিয়েছেন মহানগর পুলিশ কমিশনার আবু কালাম সিদ্দিক। সপ্তাহব্যাপী সর্বাত্মক লকডাউন শুরুর প্রাক্কালে শুক্রবার বিকাল ৫টায় মহানগরীর প্রাণকেন্দ্র সাহেব বাজার জিরো পয়েন্টে লকডাউন বাস্তবায়ন কর্মসূচি সম্পর্কে আলাপকালে তিনি এই আহŸান জানান।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, গত বৃহস্পতিবার রাতে কঠোর লকডাউন বাস্তবায়নে প্রজ্ঞাপন জারি করেন রাজশাহীর জেলা প্রশাসক ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আব্দুল জলিল। প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে- আজ শুক্রবার বিকেল ৫টা থেকে ১৭ জুন রাত ১২টা পর্যন্ত রাজশাহী সিটি করপোরেশন এলাকার সব ধরনের ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান, শপিং মল, বিপণিবিতান, দোকান, রেস্তোরাঁ বন্ধ থাকবে। তবে ওষুধ, কাঁচাবাজার, চিকিৎসাসেবা, মৃতদেহ দাফন ও সৎকারের সঙ্গে জড়িত প্রতিষ্ঠান এই লকডাউনের আওতাবহির্ভূত থাকবে।

প্রজ্ঞাপনে আরও উল্লেখ করা হয়- এই বিধিনিষেধ চলাকালে বাস, ট্রেনসহ কোনো ধরনের যানবাহন মহানগরে প্রবেশ করতে পারবে না এবং মহানগর থেকে বের হতে পারবে না। তবে আমসহ কৃষিপণ্য, খাদ্যসামগ্রী পরিবহন, রোগী পরিবহনকারী অ্যাম্বুলেন্স ও জরুরি সেবাদানকারী পরিবহন এই নিষেধাজ্ঞার আওতামুক্ত থাকবে।

প্রজ্ঞাপনে জনসমাবেশ হয় এমন যেকোনো ধরনের জমায়েত নিষিদ্ধ করা হয়েছে। এতে এ বিষয়ে বলা হয়েছে, বিবাহোত্তর অনুষ্ঠান, জন্মদিন, পিকনিক পার্টি, রাজনৈতিক ও ধর্মীয় আচার-অনুষ্ঠানসহ সব ধরনের জমায়েত বন্ধ থাকবে। এ ছাড়া সব ধরনের পর্যটনস্থল, রিসোর্ট, কমিউনিটি সেন্টার ও বিনোদন কেন্দ্র বন্ধ থাকবে। এসব বিধিনিষেধ অমান্যকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এদিকে মহানগরে লকডাউন ঘোষণার পর রাত থেকেই মহানগর পুলিশের পক্ষ থেকে মাইকে ব্যাপকভাবে প্রচারণা চালানো হয়। মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার গোলাম রুহুল কুদ্দুস বলেন, রাত থেকেই লকডাউনের বিষয়ে বিধিনিষেধগুলো মানুষের মাঝে ছড়িয়ে দিতে পুলিশ মাইকিং করা হয়। নগরে এই সাত দিন কী করা যাবে আর কী করা যাবে না, সে বিষয়ে মানুষকে বার্তা দেওয়া হয়েছে। শুক্রবার সকাল থেকে বিকাল পর্যন্ত এই প্রচারণা আরও ব্যাপকভাবে চালানো হয়।

তিনি আরও বলেন, মহানগর পুলিশের ১২ থানার পাশাপাশি লকডাউন বাস্তবায়নে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হবে। মহানগর পুলিশের সঙ্গে রেঞ্জ রিজার্ভ ফোর্সও কাজ করবে। এ ছাড়া জেলা প্রশাসনের কাছে আনসার সদস্য চেয়ে আবেদন করা হয়েছে। লকডাউন চলাকালে বিধিনিষেধ অনুযায়ী মহানগরের সব প্রবেশপথে পুলিশ শক্তভাবে অবস্থান নেবে। কোনোভাবেই নগরে কাউকে প্রবেশ করতে দেওয়া হবে না এবং নগর থেকেও বাইরে বের হওয়া যাবে না।

এদিকে লকডাউন বাস্তবায়নে জেলা প্রশাসনের চারটি ভ্রাম্যমাণ আদালত কাজ করবেন বলে জানিয়েছেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মুহাম্মদ শরিফুল হক। তিনি বলেন, আগে প্রতিদিন দুটি করে ভ্রাম্যমাণ আদালত কাজ করতেন। আজ শুক্রবার বিকেল থেকে চারটি করে ভ্রাম্যমাণ আদালত কাজ করবেন।

এর আগে বৃহস্পতিবার জেলা সার্কিট হাউসে রাত ৯টা থেকে রাত পৌনে ১০টা পর্যন্ত রাজশাহীর করোনা পরিস্থিতি নিয়ে এক জরুরি সভা শেষে রাজশাহীতে ‘সর্বাত্মক লকডাউন’ দেওয়ার ঘোষণা দেন বিভাগীয় কমিশনার হুমায়ুন কবীর।

রাজশাহী জেলা প্রশাসক আব্দুল জলিল জানান, লকডাউনের সময় সব ধরনের ব্যবসায়িক দোকানপাট ও যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকবে। চাঁপাইনবাবগঞ্জ, নাটোর ও নওগাঁসহ আশপাশের অন্য কোনো আন্তঃজেলা থেকে যানবাহন প্রবেশ করতে পারবে না। রাজশাহী থেকেও কোনো যানবাহন বাইরের জেলায়ও যেতে পারবে না। এছাড়া রাজশাহী থেকে ঢাকাসহ সব দূর পাল্লার রুটের বাস ও অন্যান্য যানবাহন এবং যাত্রীবাহী সব আন্তঃনগর ও মেইল ট্রেন চলাচল বন্ধ থাকবে। তবে রাজশাহীর আম পরিবহনকারী ‘ম্যাংগো স্পেশাল’ এবং পণ্যবাহী ট্রেন আগের মতোই চলবে। এছাড়া রোগী, খাদ্য, ওষুধ ও পণ্যবাহী পরিবহনসহ অন্য জরুরি সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠান এবং জরুরি ওষুধ সরবরাহকারী পরিবহন ইত্যাদি ক্ষেত্রে এ বিশেষ নিষেধাজ্ঞা প্রযোজ্য হবে না।

রাজশাহী বিভাগীয় কমিশনার ড. হুমায়ুন কবীর বলেন, রাজশাহীতে ফের সংক্রমণের হার বেড়েছে। তাই পাশের ভারত সীমান্ত জেলা চাঁপাইনবাবগঞ্জের পর এবার রাজশাহী জেলায়ও বিশেষ লকডাউন জারি করা হলো। আর করোনায় মৃত্যু ও সংক্রমণ বিবেচনায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

পরে জেলা প্রশাসক আব্দুল জলিল এ বিশেষ লকডাউনের ঘোষণা দেন। তিনি বলেন, রাজশাহীতে প্রথমে সন্ধ্যা ৭টা থেকে পরদিন সকাল পর্যন্ত বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়। তারপর গত ২ জুন আরও দুই ঘণ্টা এগিয়ে বিকেল ৫টা থেকেই বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়। এই ক’দিন আমরা পর্যবেক্ষণ করছিলাম। কোথাও করোনার নিম্নমুখী সংক্রমণ, কোথাও ঊর্ধ্বমুখী। কিন্তু ঊর্ধ্বমুখী সংক্রমণই বেশি। তাই শুক্রবার বিকেল ৫টা থেকে ১৭ জুন মধ্যরাত পর্যন্ত রাজশাহীতে বিশেষ লকডাউন থাকবে।

ধূমকেতু নিউজের ইউটিউব চ্যানেল এ সাবস্ক্রাইব করুন

প্রিয় পাঠকবৃন্দ, স্বভাবতই আপনি নানা ঘটনার সাক্ষী। শেয়ার করুন আমাদের। যেকোনো ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের ইমেলে পাঠিয়ে দিন এই ঠিকানায়। নিউজ পাঠানোর ই-মেইল : dhumkatunews20@gmail.com. অথবা ইনবক্স করুন আমাদের @dhumkatunews20 ফেসবুক পেজে । ঘটনার স্থান, দিন, সময় উল্লেখ করার জন্য অনুরোধ করা হলো। আপনার নাম, ফোন নম্বর অবশ্যই আমাদের শেয়ার করুন। আপনার পাঠানো খবর বিবেচিত হলে তা অবশ্যই প্রকাশ করা হবে ধূমকেতু নিউজ ডটকম অনলাইন পোর্টালে। সত্য ও বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ নিয়ে আমরা আছি আপনাদের পাশে। আমাদের ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করার জন্য অনুরোধ করা হলো Dhumkatu news