IMG-LOGO

শনিবার, ৪ঠা ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ, ২১শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

× Education Board Education Board Result Rajshahi Education Board Rajshahi University Ruet Alexa Analytics Best UK VPN Online OCR Time Converter VPN Book What Is My Ip Whois
নিউজ স্ক্রল
মোহনপুরে পুকুরে ডুবে নারীর মৃত্যুতিন দিনেও সন্ধান মেলেনি নিখোঁজ ঈশারপাবনায় বীর মুক্তিযোদ্ধা আজাদকে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় দাফনরাবিতে চিত্রশিল্পী শাহাবুদ্দিন আহমেদকে নিয়ে আলোকচিত্র প্রদর্শনীধামইরহাট ইউনিয়ন ছাত্রলীগের বার্ষিক সম্মেলনগোমস্তাপুরে উপনির্বাচনে বিজয়ী সংসদ সদস্যকে সংবর্ধনা‘দেশ গঠনে সর্বক্ষেত্রে নারীদের চমৎকার উত্থান ঘটেছে’তানোরে আম গাছের ডালে ডালে সোনালী মুকুলের সমারোহ‘তরুণদের ভাবনাগুলোকে কাজে লাগিয়ে স্মার্ট বাংলাদেশ গড়তে চায় সরকার’ঝালকাঠিতে ইজিবাইক দুর্ঘটনায় শিশু শিক্ষার্থী নিহততানোরে দলিল লেখক সমিতির সভাপতি ফায়জুল, সম্পাদক রাব্বানীভূমধ্যসাগরে ১০ অভিবাসন প্রত্যাশীর মৃত্যুনাইজেরিয়ায় ব্যাপক সংঘর্ষে ৪০ জনের প্রাণহানীযান্ত্রিক কৃষিতে এগিয়ে যাচ্ছে গোমস্তাপুররাজশাহী জেলা পুলিশের অভিযানে আটক ১১
Home >> >> রাজশাহী সিটি হাটে সারি সারি গরু-মহিষ, বিপাকে খামারিরা

রাজশাহী সিটি হাটে সারি সারি গরু-মহিষ, বিপাকে খামারিরা

ধূমকেতু প্রতিবেদক : আর একদিন পরই পবিত্র ঈদুল আযহা। দিন ঘনিয়ে আসায় লোকজন এখন ছুটছেন কোরবানির পশুর হাটে। বিক্রি নেই, কিন্তু কোরবানির পশুর হাটে ক্রেতা বিক্রেতাদের দাম দরে মুখর হয়ে উঠছে হাট। সময় কম থাকার কারণে ব্যবসায়ীরা হাঁকছেন গরুর দাম, আর ক্রেতারা খুঁজছেন চাহিদামত কোরবানির পশু। বিশেষ করে এবছর করোনার কারণে অনেক পরে কোরবানির পশুর হাট বসানো হয়েছে। যার কারণে কোরবানির পশু আমদানি হাটে বেশি। যেখানে পুরো এক মাস ধরে কোরবানির হাটে পশু ক্রয়বিক্রয় হয়, সেখানে মাত্র এক সপ্তাহের হাট বসানোর কারণে ক্রেতা বিক্রেতা উভয় বিপাকে পড়েছেন। ক্রেতারা পশু কিনতে অনেকটা দ্বিধাবিভক্তির মধ্যেই সময় পার করছেন। আর বিক্রেতারা পশু বিক্রি করতে পারলেই যেনো তারা স্বস্তির নিশ্বাস ফেলতে পারেন এমনটাই মনে করছেন। এবার কোরবানির পশুর হাটে ক্রেতা বিক্রেতা উভয়ের মধ্যে রয়েছে দূরত্ব। ক্রেতাদের দামে সন্তোষ্ট হচ্ছে না বিক্রেতা। এতে হাটে বেচাবিক্রি একেবারে একেবারে অনেক কম। হাটে গিয়েও কোরবানির পছন্দের গরু কিনতে ঘুরছেন ক্রেতারা। এবার হতাশ রাজশাহীর খামারি ও গরু পালনকারীরা। কারণ বছর ভর গরু পালন করে এখন দামস নেই। নেই ক্রেতাদের চাহিদা। দুই মিলে এবার খামারি ও গরু পালনকারীদের মাথায় হাত পড়েছে। তবে গরুর হাটে স্বাস্থ্যবিধি বা বিধিনিষেধ বলতে কিছু নেই। মাইকে স্বাস্থ্যবিধির কথা বলা হচ্ছে। কিন্তু কে শোনে কার কতা। গাদাগাদি করে, ঠেলাঠেলি করেই রাস্তার ধার ও হাটের মধ্যে ক্রেতারা গরু মহিষ কিনছেন বিক্রেতারা বিক্রিও করছেন। উত্তরাঞ্চের সর্ববৃহৎ পশুর হাট রাজশাহী মহানগরীর সিটি হাট।

প্রতিবছর এ হাটে বিভিন্ন জেলা উপজেলা থেকে আমদানি হয় বিভিন্ন ধরনের গরু-মহিষ। আর এই গরু মহিষ কিনতে রাজধানী ঢাকাসহ বিভিন্ন জেলা থেকে আসে ব্যবসায়ীরা। এবারো তার ব্যতিক্রম হয়নি। অল্প সময়ে হাট বসলেও বিভিন্ন রকমের গরু মহিষ সিটি হাটে উঠেছে। তোলা হয়েছে খামার থেকে বিভিন্ন সাইজের গরু। বিভিন্ন সাইজের সারি সারি গরু মহিষ শোভা পাচ্ছে এবার হাটে। কিন্তু অল্প সময়ের জন্য হাট বসানোর কারণে নেই ক্রেতা। বাইরে তকেও আসেনি বড় বড় ব্যবসায়ী। দু’একজন বড় ব্যবসায়ী সিটি হাটে এলেও তারা শঙ্কার মধ্যে পড়ে গরু মহিষ কিনছেন না। কিনলেও তারা স্বল্প সংখক গরু মহিষ কিনে ঢাকাসহ বিভিন্ন জেলায় নিয়ে যাচ্ছে। বিশেষ করে গ্রাম পর্যায়ের হাট থেকে ব্যবসায়ী ও খামারিদের প্রধান টার্গেট সিটিহাট। খামারিরা এবার অনেকটা লাভের আসায় অধিক বেশি টাকা খরচ করে খামারে গরু পালন করেছেন। কিন্তু এখন সেই গরু খামার থেকে নামানোর জন্য প্রতিদিন রাজশাহীর সিটি হাটসহ বিভিন্ন হাটে দৌড়ঝাঁপ করছেন। অনেকেই সিটিহাট শুরুর দিন থেকে খামার থেকে গরু এসে হাটেই দিন রাত পার করছেন। শুধু একটু লাভের আসায়।

সিটিহাট ঘুরে দেখা গেছে, সারি সারি লাইন করে বেধে রাখা হয়েছে বিভিন্ন ধরনের গরু। শুধু সারিবদ্ধ গরুই হাটে চোখে পড়ছে। কিন্তু ত্রেতাদের দেখা নেই। যে পরিমান গরু এবার হাটে উঠছে তার একাংশ ক্রেতা নেই। ক্রেতারা হাটে যাচ্ছেন, গরু দেখলেন, ঘুরছেন। কিন্তু গরু কিনছেন না। কারণ করোনার কারণে এবার মানুষের কোরবানির জন্য বরাদ্দ কম। তাই কোরবানি দিতে হবে এই মনে করে হাটে অল্প দামের গরু মহিষ খুজছেন। যদিও এবার হাতে ৫০হাজার থেকে শুরু করে ৫ লাখ পর্যন্ত দামের গরু হাটে উঠেছে। এছাড়াও সাইজের গরু ৬০ থেকে ৭০ হাজারের মধ্যেও আছে। বিশেষ করে ৬০ থেকে ৭০ টাকা দামের গরু হাটে এবার অধিক বেশি। প্রতিবছর এই দামের গরুরর চাহিদা থাকে বেশি। তবে এবার ৫০ থেকে ৬০ হাজার টাকা দামের গরুর চাহিদা বেশি লক্ষ্য করা যাচ্ছে। আর এমন দামের গরুর লাইনে কেবল ক্রেতাদের ঘুরতে দেখা যায়। তবে সময় না থাকার জন্য বর্তমান গরু কেনাবেচা এখন একটু বেশি হচ্ছে। হাটে ঢুকে ক্রেতারা গরু না কিনে বের হচ্ছেন না। দাম যাই হোক বা বরাদ্দ যেটাই হোক একবার একজন ক্রেতা হাটের মধ্যে প্রবেশ করলে তিনি গরু বা মহিষ কিনে তার পর বের হচ্ছেন। কারণ সিটি হাটে একবার প্রবেশ করার পর সেখান থেকে বেরিয়ে আসতে চাইলে সন্ধ্যা পার হয়ে যাবে। যার কারণে আর ঘোরাঘুরি না করে কোরবানির পশু নিয়েই হাটের বাইরে বের হতে দেখা যায় ক্রেতাদের।

রাজশাহী বিভাগের প্রাণিসম্পদ দপ্তদের দেয়া তথ্য মতে, এবার রাজশাহীতে ২৪ লাখ গবাদিপশু কোরবানির জন্য প্রস্তুত করা হয়। যা এবার ঈদে বিক্রি হওয়ার কথা রয়েছে। এরমধ্যে বেশিরভাগ গরুই খামরিদের। বিভাগীয় হিসাবে এবার ১৮টি খামারে গরু মহিষ রয়েছে ১ লাখ ৫১ হাজার। ছাগলসহ অন্যান্য গবাদিপশু পালন করা হয়েছে মোট ২৩ লাখ ৯২ হাজার ৪১৯টি। যার মধ্যে গরু ৯ লাখ ৮৪ হাজার ৯১৫টি (ষাঁড় ৬ লাখ ২৩ হাজার ৫২১ টি, বলদ ১ লাখ ৮২ হাজার ৬৫৮ টি, গাভী ১ লাখ ৭৮ হাজার ৭৩৬ টি), মহিষ ৩৫ হাজার ৭৫৬টি, ছাগল ১১ লাখ ৬২ হাজার ৩৩৪ টি এবং ভেড়া পালন করা হয়েছে ২ লাখ ৭ হাজার ৬৩টি। গত বছর খামারে উৎপাদিত গবাদী পশুর সংখ্যা ১৭ লাখ ৫৬ হাজার ৫৯৮টি। এই হিসেবে গত বছরের তুলনায় এবছর ৬ লাখ ৩৫ হাজার ৮২১ টি বেশি গবাদিপশু উৎপাদিত হয়েছে। গেল বছর এই বিভাগে কুরবানি দেয়া হয়েছে ১৬ লাখ ৬৪ হাজার গবাদিপশু। রাজশাহী জেলার ১৪ হাজার ১৯৯টি খামারে মোট গবাদিপশু রয়েছে ৩ লাখ ৮২ হাজার ১১৪টি। গত বছরে এই সংখ্যা ছিল ৩ লাখ ৬৯ হাজার। রাজশাহী জেলার ৯টি উপজেলা মধ্যে মোহনপুরে সবচাইতে বেশি গবাদিপশু পালিত হয়েছে, সংখ্যায় যা ৫৭ হাজার ১১১ টি। এর পরের অবস্থানে রয়েছে পাব, সেখানে পালিত হয়েছে ৪৩ হাজার ৮৬০টি।

ব্যবসায়ী ও খামারিরা বলছেন, এবার এক তৃতীয়াংশ গরু মহিষ বিক্রি হবে। বাকি গরু মহিষ এবার কোরবানিতে কিত্রি হবে না। খারারিরা বলছেন, তারা এমনিতেই গরু পালন করে এবার লোকসানের মুখে আছেন। আর যদি খামারের অর্ধেক গরুও বিক্রি না হয় আরো বড় বিপর্যয়ের মুখে পড়বেন তারা। মোহনপুরের খামারি সোহজরাব হোসেন জানান, তার খামারে এবার ৫০টি গরু রয়েছে। তার মধ্যে ২০টি গরু সিটি হাটে তোলা হয়েছে। কিন্তু ২০টি গরুর মধ্যে গতকাল সোমবার পর্যন্ত ১০টিও বিক্রি হয়নি। বাকি গরুগুলো নিয়ে তিনি মহাবিপাকে পড়েছেন বলেও জানান তিনি। এমন কথা জানান আরো বেশ কয়েকজন খামারি।

ধূমকেতু নিউজের ইউটিউব চ্যানেল এ সাবস্ক্রাইব করুন

প্রিয় পাঠকবৃন্দ, স্বভাবতই আপনি নানা ঘটনার সাক্ষী। শেয়ার করুন আমাদের। যেকোনো ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের ইমেলে পাঠিয়ে দিন এই ঠিকানায়। নিউজ পাঠানোর ই-মেইল : dhumkatunews20@gmail.com. অথবা ইনবক্স করুন আমাদের @dhumkatunews20 ফেসবুক পেজে । ঘটনার স্থান, দিন, সময় উল্লেখ করার জন্য অনুরোধ করা হলো। আপনার নাম, ফোন নম্বর অবশ্যই আমাদের শেয়ার করুন। আপনার পাঠানো খবর বিবেচিত হলে তা অবশ্যই প্রকাশ করা হবে ধূমকেতু নিউজ ডটকম অনলাইন পোর্টালে। সত্য ও বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ নিয়ে আমরা আছি আপনাদের পাশে। আমাদের ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করার জন্য অনুরোধ করা হলো Dhumkatu news

February 2023
M T W T F S S
 12345
6789101112
13141516171819
20212223242526
2728