IMG-LOGO

বৃহস্পতিবার, ২২শে ফেব্রুয়ারি ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
৯ই ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ, ১১ই শাবান ১৪৪৫ হিজরি

× Education Board Education Board Result Rajshahi Education Board Rajshahi University Ruet Alexa Analytics Best UK VPN Online OCR Time Converter VPN Book What Is My Ip Whois
নিউজ স্ক্রল
ধামইরহাটে প্রাথমিক শিক্ষক সমিতির সভাপতি বকুল, সম্পাদক শাহজাহানরাণীনগরে জামে মসজিদের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপনের উদ্বোধনপোরশায় ই’ শ্রমিক আন্দালনের কোরআন খতম ও দোয়াট্রাক-মোটরসাইকেলের সংঘর্ষে নিহত ২প্রিমিয়ার লিগে লুটনকে একহালি গোল দিলো লিভারপুলভেনিজুয়েলায় সোনার খনি ধসে নিহত ২৩রাজশাহী স্কেটিং ক্লাবের ফান র‌্যালিরুয়েটে বিনম্র শ্রদ্ধায় মহান শহীদ দিবস উদযাপনপত্নীতলায় ভাষা শহীদদের প্রতি সর্বস্তরের মানুষের শ্রদ্ধাএনজিও ফেডারেশনের উদ্যোগে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উদযাপনশিমুল মেমোরিয়াল স্কুলে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উদযাপন‘বাংলাকে জাতিসংঘের দাপ্তরিক ভাষা হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করা আমাদের লক্ষ্য’চালের বস্তায় যেসব তথ্য লেখা বাধ্যতামূলকমান্দায় আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উদযাপনধামইরহাটে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উদযাপন
Home >> রাজশাহী >> বিশেষ নিউজ >> লিড নিউজ >> বিলীনের পথে রাজশাহীর যাত্রী ছাউনি

বিলীনের পথে রাজশাহীর যাত্রী ছাউনি

ধূমকেতু প্রতিবেদক : যাত্রী ও পথচারিদের সুবিধার্থে রাজশাহী নগরীর বেশ কিছু মোড়ে যাত্রী ছাউনি নির্মাণ করা হয়েছিল। কিন্তু দিনদিন হারিয়ে যেতে বসেছে এই যাত্রী ছাউনিগুলি। কিছু যাত্রী ছাউনি দখল হয়েছে অনেক আগেই। আর বাকি যেগুলো আছে সেগুলোও বিলীন হওয়ার পথে। নগরীর মধ্যেই এসব যাত্রী ছাউনি দিনদিন দখল ও হারিয়ে গেলেও কর্তৃপক্ষ রক্ষণা-বেক্ষণের কোনো উদ্যোগ নিচ্ছেন না। বলাই যাই খোদ যারা এই যাত্রী ছাউনি রক্ষা করবেন তারাই সেগুলো দখল করে দোকান বানিয়ে বারাদ্দ দিচ্ছেন। আর কিছু প্রভাবশলী ব্যক্তিরা অবশিষ্ঠগুলো দখল করে ব্যবসা করছেন। এতে যাত্রী ছাউনির সুবিধা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন সাধারণ মানুষ।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, নগরীর গুরুত্বপূর্ণ মোড়গুলোতে সরকার যানবাহনের যাত্রীদের নিরাপত্তা ও সুবিধার্থে যাত্রী ছাউনি নির্মাণ করে। রাজশাহী সিটি করপোরেশন এলাকায় ৪৫টি ছাউনি নির্মাণ করা হয়েছিল। এরমধ্যে ২০১৭ সাল পর্যন্ত ১৩টির লিজ দেয় রাসিক। আর বাকিগুলো বেদখল হয়ে গেছে। পথচারীদের ভোগান্তি লাঘবে সিটি করপোরেশন ও বেসরকারি উদ্যোগে ১৯৯৭ ও ২০১১ সালে দু’দফায় টিনসেড ও কংক্রিটের প্রায় অর্ধশতাধিক যাত্রী ছাউনি তৈরি করা হয়। ২০১২ সালে কংক্রিটের যাত্রী ছাউনিগুলোর একাংশ লিজ দেয় সিটি কর্পোরেশন। আর লিজ পাওয়া মালিকেরা দখল করে নেয় যাত্রী ছাউনির পুরোটাই। বসার স্থান বন্ধ করে সেখানে গড়ে তোলা হয়েছে রিক্সা গ্যারেজ, টিভি- ফ্রিজ মেরামতের দোকানসহ ক্লাব ঘর। এতে রোদ-বৃষ্টি-ঝড়ে যাত্রী ও পথচারীরা পড়েন চরম ভোগান্তিতে।

রাজশাহী নগরীর গুরুত্বপুর্ন বাস স্ট্যান্ড, তালাইমারী বাস স্টপ, কোর্ট এলাকা, নগরীর লক্ষীপুর, সিএনবি মোড়, কোর্ট এলাকা সহ বেশ কিছু এলাকায় নির্মাণ করা হয়েছিল যাত্রী ছাউনি। এখন আর সেই যাত্রী ছাউনিগুলো নেই। দীর্ঘদিন আগেই দখল হয়ে গেছে নগরীর শিরোইল বাস স্ট্যান্ড এলাকার যাত্রী ছাউনিটি। একে একে নগরীর সবগুলো যাত্রী ছাউনি দখল হয়ে গেছে। বাকি ছিল নগরীর লক্ষীপুর মোড়ের যাত্রী ছাউনিটি। কিন্তু এই যাত্রী ছাউনিটিরও শেষ রক্ষা হলো না। লক্ষীপুরের এই যাত্রী ছাউনিটি সিটি করপোরেশন থেকে দোকান করার জন্য প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে। ইতিমধ্যে এই যাত্রী ছাউনিটির সামনে সাটার গেট লাগানোর জন্য কাজ করা হয়েছে। দু’এক দিনের মধ্যে সাটার গেট লাগানো হবে। রাসিক সূত্রে জানা গেছে, লক্ষীপুরের যাত্রী ছাউনির সামনের দিকটা অনেক আগেই দোকান হিসাবে ভাড়া দেয়া হয়েছে। বাকি ছিল পেছনের ফাঁকা জায়গাটুকু। শেষ পর্যন্ত এই ফাঁকা জায়গাটুকু দোকান করার জন্য সাটার গেট লাগালো হচ্ছে। ইতিমধ্যে দোকান হিসাবে রাসিক থেকে ভাড়াও দেয়া হয়েছে।

শিক্ষা, চিকিৎসাসহ বিভিন্ন কাজে প্রতিদিন বিভিন্ন জেলা থেকে রাজশাহী নগরীতে হাজারও মানুষ আসেন। সাথে নানান কাজে পথেই কাটে নগরবাসীর দীর্ঘ সময়। দিনদিন নগরীর আয়তন বৃদ্ধি পেলেও মানুষের দাঁড়ানোর জায়গা স্বল্পতা দেখা দিয়েছে। লোকজন দ’ুমিনিট কোথায় নিরাপদে দাঁড়াবে সেই জায়গা হয়ে যাচ্ছে সংকুচিত। আর যাত্রী ছাউনির মত জায়গা দিনদিন হারিয়ে যাওয়ায় চরম ভোগান্তিতে পড়ছেন সাধারণ মানুষ। বৃষ্টি বা ঝড়ে লোকজন আশ্রয় নিতো যাত্রী ছাউনিগুলোতে। কিন্তু এখন যাত্রী ছাউনি না থাকার কারণে ঝুঁকি নিয়েই তাদের রাস্তায় দাড়িয়ে সব কিছুর মোকাবেলা করতে হয়। অথচ সাধারণ মানুষের দিকে দেখার কেউ নাই। পথচারি বা সাধারণ মানুষের কথা চিন্তা করে এসব যাত্রী ছাউনি নির্মাণ করা হলেও এখন প্রভাবশালিদের দখলে।

এদিকে উপজেলা পর্যায়ে যেসব যাত্রী ছাউনি রয়েছে সেগুলো অনেক আগেই দখল হয়ে গেছে। উপজেলা পরিষদের উদ্দ্যোগে ৯০ দশকের দিকে ঢাকা-রাজশাহী মহাসড়কে উপজেলা সদরের ত্রিমোহনী বাসস্ট্যান্ডে একটি যাত্রী ছাউনি নির্মাণ করা হয়। পরে যাত্রী ছাউনিটি উপজেলা পরিষদ বিলুপ্ত ঘোষণা করে ভেঙ্গে ফেলে। উপজেলার সদর থেকে প্রতিদিন শত শত মানুষ দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে আসা যাওয়া করে। যাত্রী ছাউনি না থাকায় তাদের ঝড়বৃষ্টি রোদের মাঝে কষ্ট করে মহাসড়কে যাতায়াত করতে হচ্ছে। এছাড়াও উপজেলা সদরের সরকারী অফিস, বিভিন্ন ব্যাংক, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স, স্কুল কলেজের শিক্ষাথীরাসহ সরকারী বেসরকারী বিভিন্ন অফিসে যাতায়তের জন্য উপজেলা সদরের বাসস্ট্যান্ডে বিভিন্নগণ পরিবহনের জন্য অপেক্ষা করতে হয়। প্রচন্ড তাপদাহে ও ঝড় বৃষ্টিতে বাসস্ট্যান্ডে যাত্রী ছাউনি না থাকায় জনসাধারণসহ শিক্ষার্থীদের পড়তে হয় চরম ভোগান্তিতে। বাধ্য হয়ে তারা স্থানীয় বিভিন্ন মার্কেটে বা দোকানের বারান্দায় অবস্থান করতে হয়। পুঠিয়া ত্রিমোহনী বাসস্ট্যান্ডে সকাল হতে গভীর রাত পর্যন্ত ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে যাত্রীরা আসা যাওয়া করে থাকেন। উপজেলার সদর দিয়ে বাগমারা, তাহেরপুর, চারঘাট, বাঘা ও বাগাতিপারা উপজেলায় প্রবেশ সহজতর হওয়ায় এসব উপজেলার মানুষেরা পুঠিয়া উপজেলা যাতায়াত করে থাকেন। এসব উপজেলার মানুষেরা দেশের বিভিন্ন এলাকা হতে গভীর রাতে পুঠিয়া বাসসট্যান্ডে যাত্রাবিরতী করে থাকেন। গণপরিবহ না পেয়ে বাধ্য হয়ে যাত্রীদের সারারাত সকাল হওয়ার অপেক্ষায় বসে থাকতে হয়। এখন যাত্রী ছাউনি না থাকার কারণে লোকজনদের রাস্তায় দাঁড়িয়ে অপেক্ষা করতে হয় গাড়ির জন্য।

নগরীর লক্ষীপুর ছাত্রী ছাউনিতে বিশ্রাম নেয়া আমানুল্লাহ নামের এক ব্যক্তি জানান, নগরীতে আসার পর বসার কোনো জায়গা পাওয়া যায় না। এতে মানুষ একটু বসার জন্য যাত্রী ছাউনিতে যান। কিন্তু নগরীর ছাত্রী ছাউনিগুলো অধিকাংশ দখল হয়ে আছে। যে দুএকটি অবশিষ্ঠ আছে সেগুলো সিটি করপোরেশন থেকে দোকান হিসাবে বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। হয়তো এভাবেই এক এক করে হারিয়ে যারা মানুষের বসার জায়গা। তিনি যাত্রী ছাউনিগুলো রক্ষনাবেক্ষনের দাবি জানান। নগরীর শিরোইল বাস স্ট্যান্ড এলাকা রাস্তায় দাড়িয়ে থাকা নওগাঁর জাহেদুল ইসলাম জানান, তার ঢাকা যাওয়া বাস ছাড়বে দুই ঘন্টা পর। কাউন্টারে জায়গা নেই বসার। যাত্রী ছাউনিতে বসার জন্য এসে তিনি দেখতে পান সেখানে দোকান করা রয়েছে। যার কারণে ব্যাগপত্র নিয়ে তিনি রাস্তায় দাড়িয়ে আছেন।

বিষয়টি নিয়ে কথা বলা হয়, রাজশাহী সিটি করপোরেশনের সচিব আবু হায়াত মোহাম্মদ রহমাতুল্লাহ’র সাথে। তিনি বলেন, কিছু যাত্রী ছাউনি রাস্তা প্রশস্তকরণের জন্য ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে। আর যেসব যাত্রী ছাউনি ভাঙ্গা হবে না সেগুলো দোকান আকারে বরাদ্দ দেয়া হচ্ছে। লক্ষীপুর যাত্রী ছাউনিটি বরাদ্দ দেয়ার জন্য নোটিশ করা হয়েছে। ইতিমধ্যে দুটি আবেদন জমা পড়েছে। দুএকদিনের মধ্যে সর্বোচ্চ ভাড়া দাতাকে দোকান হিসাবে ওই যাত্রী ছাউনিটি বরাদ্দ দেয়া হবে। তবে দখল হয়ে আছে এমন যাত্রী ছাউনির ব্যবাপারে তিনি কিছু জানেন না বলে জানান।

ধূমকেতু নিউজের ইউটিউব চ্যানেল এ সাবস্ক্রাইব করুন

প্রিয় পাঠকবৃন্দ, স্বভাবতই আপনি নানা ঘটনার সাক্ষী। শেয়ার করুন আমাদের। যেকোনো ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের ইমেলে পাঠিয়ে দিন এই ঠিকানায়। নিউজ পাঠানোর ই-মেইল : dhumkatunews20@gmail.com. অথবা ইনবক্স করুন আমাদের @dhumkatunews20 ফেসবুক পেজে । ঘটনার স্থান, দিন, সময় উল্লেখ করার জন্য অনুরোধ করা হলো। আপনার নাম, ফোন নম্বর অবশ্যই আমাদের শেয়ার করুন। আপনার পাঠানো খবর বিবেচিত হলে তা অবশ্যই প্রকাশ করা হবে ধূমকেতু নিউজ ডটকম অনলাইন পোর্টালে। সত্য ও বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ নিয়ে আমরা আছি আপনাদের পাশে। আমাদের ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করার জন্য অনুরোধ করা হলো Dhumkatu news