IMG-LOGO

রবিবার, ১৪ই এপ্রিল ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
১লা বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ৪ঠা শাওয়াল ১৪৪৫ হিজরি

× Education Board Education Board Result Rajshahi Education Board Rajshahi University Ruet Alexa Analytics Best UK VPN Online OCR Time Converter VPN Book What Is My Ip Whois
নিউজ স্ক্রল
রাজশাহীতে আরএমপি পুলিশের অভিযানে আটক ১১মোহনপুরে যথাযোগ্য মর্যাদায় বাংলা নববর্ষ উদযাপনপোরশায় বাংলা নববর্ষ উপলক্ষে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রাঈদের তিন দিনে রাজস্ব আয় ১৪ লাখ‘এদেশের সাম্প্রদায়িকতার বিশ্বস্ত ঠিকানা বিএনপি’ঢাবিতে মঙ্গল শোভাযাত্রাইসরায়েলজুড়ে ইরানের নজিরবিহীন হামলারাবির অধ্যাপকবৃন্দ ড. প্রদীপ ও প্রণব কুমারের পিতার শ্রাদ্ধ্যতজুমদ্দিনে প্রাক্তন ছাত্র ফোরামের উপদেষ্টা ও পরিচালনা কমিটি গঠনচাঁপাইনবাবগঞ্জের নয়ালাভাঙ্গায় বিপুল বোমা বিস্ফোরণমান্দায় বিবাদমান সম্পত্তির দখল নিতে জালসার আয়োজনগোদাগাড়ীতে ঢাবির সাবেক ছাত্রনেতা প্রকৌশলী আকাশের মোটরসাইকেল শোভাযাত্রাপত্নীতলায় সাড়ে ৪২ কেজি গাঁজাসহ আটক ২পাত্রের দুলাভাইকে বিয়ে বাড়িতে ‘পিটিয়ে হত্যা’ইসরায়েল থেকে ঢাকায় ফ্লাইট অবতরণ নিয়ে যা জানালো বেবিচক
Home >> রাজশাহী >> বিশেষ নিউজ >> ২০২০ বছরজুড়েই নিত্যপণ্যের বাজার ছিল অস্থির

২০২০ বছরজুড়েই নিত্যপণ্যের বাজার ছিল অস্থির

ধূমকেতু প্রতিবেদক : বছরজুড়েই নিত্যপণ্যের বাজার ছিল হ-য-ব-র-ল। বছর শেষে অবস্থা এমন দাঁড়িয়েছে, ক্রয় ক্ষমতা সাধারণ মানুষের সাধ্যের বাইরে চলে যায়। মধ্য আয়ের মানুষরা এখন সংসার চালাতেই হিমশিম খাচ্ছেন। সরকার বাজার নিয়ন্ত্রণে নানা উদ্যোগ নিলেও ইতিবাচক সুফল পায়নি সাধারণ মানুষ। তেল চাল আর পেঁয়াজে সারা বছরই হাবু ডুবু খায় মানুষ। বাজার মনিটরিং জোরদার করা হলে নিত্য পণ্যের মূল্য হয়তো কিছুটা নিয়ন্ত্রণে থাকতো।

সরকারি হিসাবেই বলা হচ্ছে, সাধারণ মানুষের আয় না বাড়লেও প্রায় সব পণ্যের দাম বেড়েছে। বাজারের তথ্য বলছে, সবচেয়ে বেশি ভুগেছেন সেসব গরিব মানুষ, যারা মোটা চালের ভাত খান। সরকারি বিপণন সংস্থা ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশ (টিসিবি)-এর তথ্য মতে, গত এক বছরে মোটা চালের দাম বেড়েছে ৪৭ দশমিক ৬৯ শতাংশ। এক বছরের ব্যবধানে প্রতি কেজি মোটা চালের দাম বেড়েছে প্রায় ২০ টাকা। টিসিবির তথ্য অনুযায়ী, ২০১৯ সালে যে চাল ৩০ টাকায় পাওয়া যেত, ২০২০ সেই চাল কিনতে হয় ৫০ টাকা দিয়ে। অর্থাৎ ২০২১ সাল শুরু হচ্ছে মোটা চালের কেজিতে ২০ টাকা বাড়ার মধ্য দিয়ে। সরকারি হিসাবে, গত এক বছরে চিকন ও মাঝারি চালের দাম বেড়েছে কেজিতে প্রায় ১১-১৩ টাকা।

চালের খুচরা ব্যবসায়ি শামসুল জানান, এখানকার চালের বাজার চড়া। প্রতি কেজি আটাশ ৫৮ টাকা, মিনিকেট ৬০ টাকা, স্বর্ণা ৫০ টাকা, কাটারিভোগ ৬০ টাকা, কালোজিরা আতপ ৯০ টাকা, বাসমতি ৬৮ টাকা, নাজিরশাইল ৬৫ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। চালের দাম বেড়ে যাওয়ার জন্য তিনটি কারণ উল্লেখ করেন রাজশাহীর চাল ব্যবসায়ী সমিতির নেতৃবৃন্দ। তারা বলছেন, প্রথমত, ধানের দাম বেড়ে গেছে প্রায় দ্বিগুণ। দ্বিতীয়ত, ২০২০ সালে বন্যা ও অতিবৃষ্টির কারণে উৎপাদন কিছুটা কম হয়েছে। তৃতীয়ত, ধান ব্যবসায়ীদের দৌরাত্ম্য। তাদের মতে, যত্রতত্র ধান ব্যবসায়ী গড়ে ওঠার কারণে প্রতিযোগিতা করে ধান কেনার মতো ঘটনা ঘটেছে। যার ফলে ধানের দাম বেড়েছে। আর ধানের দাম বেড়ে যাওয়ায় চালের দামও বেড়েছে। যদিও মানুষের আয় বাড়েনি। চালের দাম বেড়ে যাওয়ায় বিপদে আছে খেটে খাওয়া মানুষ। নগরীর অটোচালক মামুন বলেন, চালের দাম বেড়ে যাওয়ায় তার সঞ্চয় ভেঙে সংসার চালাতে হচ্ছে। নিত্যপণ্যের মধ্যে সাধারণ মানুষকে সবচেয়ে বেশি ভুগিয়েছে সবজি, চাল, আলু ও পেঁয়াজ। তবে পেঁয়াজ ও সবজির দাম অনেকটাই কমে এলেও চাল, ডাল ও আলুর দাম এখনও ক্রেতাদের নাগালের বাইরে রয়েছে। গত বছরের ২০ টাকা কেজি আলু এবার কিনতে হচ্ছে ৪৫ টাকা কেজি দরে। যদিও দুই-তিন মাস আগেও এই আলু ৪৮ টাকায় কিনতে হয়েছে।

ভাটাপাড়া এলাকার বাসিন্দা আবিদ বলেন, পেঁয়াজ ও সবজির দাম যেভাবে কমেছে। নতুন বছরে সেভাবে চাল ডালসহ অন্যান্য পণ্যের দামও কমা উচিত। এক্ষেত্রে তিনি বাজার মনিটরিংয়ে সরকারের নজরদারি আরও বাড়ানোর পরামর্শ দেন। সরকারি হিসেবে দেখা যাচ্ছে, সব ধরনের তেলের দামও বেড়েছে।

টিসিবি বলছে, এক বছরের ব্যবধানে প্রতি কেজি খোলা সয়াবিনের দাম বেড়েছে ২২ টাকা। এখন বছর আগে যে সয়াবিন ৮৫ টাকায় পাওয়া যেত এখন সেই সয়াবিন কিনতে হচ্ছে ১০৭ টাকা। খোলা পামওয়েলের দামও বেড়েছে কেজিতে ২১ টাকা। এক বছর আগে যে খোলা পামওয়েলের দাম ছিল ৭৪ টাকা, এখন সেই পামের দাম ৯৫ টাকা। এক বছর আগে ৫ লিটারের বোতল বিক্রি হতো ৪৫৫-৫০০ টাকা। এখন সেই একই সয়াবিন বিক্রি হচ্ছে ৫৩০-৫৮০ টাকা। অর্থাৎ প্রতি বোতলে দাম বেড়েছে ১২৫ টাকা। আর ১০০ টাকায় এক লিটার ওজনের বোতলের দাম বেড়ে হয়েছে ১২৫ টাকা। দাম বাড়ার তালিকায় রয়েছে ডালও। সরকারি হিসেবে, এক বছর আগে মশুর ডালের (বড় দানা) দাম ছিল কেজিতে ৫৫ টাকা, এখন সেই ডালের দাম হয়েছে ৬৫-৭০ টাকা। গত এক বছরে মাঝারি মানের ডালের দাম বেড়েছে আরও বেশি। মাঝারি দানার ডালের প্রতি কেজির দাম এখন ৯০ টাকা। এক বছর আগে এই ডালের দাম ছিল ৬৫ টাকা। এক বছর আগে মুগ ডাল প্রতি কেজি বিক্রি হতো ৯০ টাকা। এখন সেই মুগ ডাল বিক্রি হচ্ছে ১৩০ টাকা।

সরকারি হিসেবে, গত এক বছরে দাম বেড়েছে গরু ও খাসির গোস্তের দাম বেড়েছে প্রায় শতাংশের মতো। ব্রয়লার মুরগির দাম বেড়েছে ২ শতাংশ। গুড়া দুধের দাম বেড়েছে ৬ শতাংশের মতো। দাম বাড়া প্রসঙ্গে রাজশাহী কনজ্যুমার এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ক্যাব) এর সূত্র মতে, গেল বছর জুড়েই নিত্যপণ্যের বাজারে অস্থিরতা বিরাজ করেছে। করোনার কারণে সাধারণ মানুষের আয় কমেছে। কিন্তু জিনিসপত্রের দাম বেড়ে যাওয়ার কারণে মানুষের খরচ ঠিকই বেড়েছে। অতি লোভী মুনাফাখোর ব্যবসায়ীদের কারণে আলুও পেঁয়াজের মূল্য অস্বাভাবিকভাবে যায়। কারণ চাহিদার তুলনায় আমদানি কম হওয়া। বাজারের তথ্য বলছে, সারা বছরজুড়ে চাল, ডাল ও তেলের দাম বাড়লেও কিছুটা স্বস্তি দিয়েছে আটা ময়দা। এই দুটি পণ্যের দাম বাড়েনি বরং বেশ খানিকটা কমেছে। টিসিবির হিসেবে, গত এক বছরে খোলা ময়দার দাম কেজিতে কমেছে ৩-৫ টাকা। এক বছর আগে যে ময়দা ৩৭-৪০ টাকা কেজি কিনতে হয়েছে। এখন সেই ময়দার দাম ৩৪-৩৫ টাকা কেজি। এক বছরের ব্যবধানে প্যাকেট ময়দা, প্যাকেট আটা ও খোলা আটার দাম কমেছে কেজিতে ১-২ টাকা।

এক বছরের ব্যবধানে দাম কমার তালিকায় রয়েছে পেঁয়াজও। ২০১৯ সালে এই সময়ে দেশি পেঁয়াজের দাম ছিল প্রতি কেজি ১০০ টাকা। এখন সেই দেশি পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৫০ টাকা। বাজারের তথ্য মতে, আমদানি করা পেঁয়াজের ক্ষেত্রেও একই অবস্থা। অর্থাৎ এক বছর আগে আমদানি করা পেঁয়াজের প্রতি কেজির দাম ছিল ১১০ টাকা। এখন সেই পেঁয়াজ পাওয়া যাচ্ছে ২৫ টাকায়। এছাড়া ফার্মের ডিমের দাম কমেছে ৬ শতাংশের মতো। এক মাস আগে লাল ডিমের দাম ছিল ৩৪ টাকা এখন তার দাম ৩০ টাকা। টিসিবির, হিসেবে, হলুদ ছাড়া বাকি সব মসলার দামই কমেছে। এক বছরের ব্যবধানে হলুদের দাম ২৯ শতাংশ বাড়লেও রসুনের দাম কমেছে কেজিতে ৩৮ শতাংশ, শুকনো মরিচের দাম কমেছে ৬ শতাংশ, ধনে ও তেজপাতার দাম কমেছে ২১ শতাংশ, এলাচের দাম কমেছে ১৬ শতাংশ, লবঙ্গের দাম কমেছে ১৭ শতাংশ, দারুচিনির দাম কমেছে ১১ শতাংশ, জিরার দাম কমেছে ১২ শতাংশ, আদার দাম কমেছে ৪৮ শতাংশের মত। ভোক্তাদের অভিযোগ সরকার যদি বাজার মনিটরিং ব্যবস্থা আরও জোরদার করতে পারতো তাহলে হ-য-ব-র-ল অবস্থা তৈরি হতো না। সারা বছর ধরেই কোন যুক্তি কারণ ছাড়াই বেড়েছে প্রায় সব ধরনের পণ্যের দাম। কিছু পণ্যের দাম কমলেও এখনও অনেক পন্যের দাম বৃদ্ধি অব্যাহত রয়েছে। এ নিয়ে সরকারের মধ্যে অস্বস্তি থাকলেও সিন্ডিকেটের কারণে সাধারণ ক্রেতারা অনেকটাই অসহায়।

ধূমকেতু নিউজের ইউটিউব চ্যানেল এ সাবস্ক্রাইব করুন

প্রিয় পাঠকবৃন্দ, স্বভাবতই আপনি নানা ঘটনার সাক্ষী। শেয়ার করুন আমাদের। যেকোনো ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের ইমেলে পাঠিয়ে দিন এই ঠিকানায়। নিউজ পাঠানোর ই-মেইল : dhumkatunews20@gmail.com. অথবা ইনবক্স করুন আমাদের @dhumkatunews20 ফেসবুক পেজে । ঘটনার স্থান, দিন, সময় উল্লেখ করার জন্য অনুরোধ করা হলো। আপনার নাম, ফোন নম্বর অবশ্যই আমাদের শেয়ার করুন। আপনার পাঠানো খবর বিবেচিত হলে তা অবশ্যই প্রকাশ করা হবে ধূমকেতু নিউজ ডটকম অনলাইন পোর্টালে। সত্য ও বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ নিয়ে আমরা আছি আপনাদের পাশে। আমাদের ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করার জন্য অনুরোধ করা হলো Dhumkatu news