IMG-LOGO

বুধবার, ২৯শে মার্চ, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ, ১৫ই চৈত্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

× Education Board Education Board Result Rajshahi Education Board Rajshahi University Ruet Alexa Analytics Best UK VPN Online OCR Time Converter VPN Book What Is My Ip Whois
নিউজ স্ক্রল
পাথরখনি শ্রমিকের ৫২ শিক্ষার্থী সন্তান পেল শিক্ষাবৃত্তির অর্থসাপাহারে উপজেলা আইন শৃংঙ্খলা কমিটির সভানিরপেক্ষ তদন্তের দাবিতে নওগাঁয় মানববন্ধনচারঘাটে সড়কে ঝরলো এসএসসি পরীক্ষার্থীর প্রাণবাঘায় দিস লাইনের সংযোগকে কেন্দ্র করে যুবককে কুপিয়ে জখমতৃণমূলে জনপ্রিয় নেতা ময়নাপোরশায় উপজেলা সমন্বয় সভামহাদেবপুরে সংখ্যালঘু পল্লীতে হামলার অভিযোগমক্কায় বাস উল্টে ২০ ওমরাহ যাত্রী নিহতযশোর আদালত চত্তরে তুলকালাম কাণ্ডযুক্তরাষ্ট্রে স্কুলে গুলি, হামলাকারীসহ নিহত ৭র‌্যাব হেফাজতে ভূমি অফিসের অফিস সহকারীর মৃত্যুরাণীনগরে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে মা-মেয়েকে মারপিটের অভিযোগহাটপাঙ্গাসীতে মহান স্বাধীনতা দিবস উদযাপনরায়গঞ্জে যথাযোগ্য মর্যাদায় মহান স্বাধীনতা উদযাপন
Home >> >> বিকল রাজশাহীর ফায়ার স্টেশনের এম্বুলেন্সগুলো

বিকল রাজশাহীর ফায়ার স্টেশনের এম্বুলেন্সগুলো

ধূমকেতু প্রতিবেদক : শেষ ভরসার স্থল হিসাবে ফায়ার সার্ভিসকে গণনা করা হয়। অন্যান্য সেবামূলক সংস্থার চেয়ে আপদে বিপদে মানুষ ফায়ার সার্ভিসের স্বরণাপণ্য হন বেশি। ফায়ার সার্ভিসকে অনেকটা মাথার ছাতাও বলা হয়। কিন্তু এই শেষ ভরসার স্থল যদি মানুষের কাজে না লাগে তাহলে সেটা বিস্ময়কর ব্যাপার। মনে হবে এই ভরসার স্থলও যদি মানুষের কাছ থেকে দুরে সরে যায় তাহলে মানুষ যাবে কোথায়? এমন প্রশ্ন এখন মানুষের মুখে মুখে। যেকোনো দুর্ঘটনায় ফায়াস সার্ভিসের কর্মীরা তাদের এম্বুলেন্স নিয়ে আগে ঘটনাস্থলে উপস্থিত হন। কিন্তু করোনা ভাইরাসের ওযুহাতে ফায়ার সার্ভিসের সরকারী এ এম্বুলেন্স রোগীদের কাজে লাগছে না। আর এই সমস্যা রয়েছে দীর্ঘদিন ধরে।

ভুক্তভোগিরা বলছেন, এম্বুলেন্সের জন্য ফায়ার সার্ভিস অফিসে যাওয়ার পর ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা জানিয়ে দেন যে, এম্বুলেন্স নষ্ট। গত চার মাস থেকে সদর ও চৌদ্দপায়া স্টেশনের এম্বুলেন্স নষ্ট এমনটাও জানানো হয়। শুধু এই দুই স্টেশনই নয়, বাইরের স্টেশনগুলোর বিরুদ্ধে এমন অভিযোগ। এখন পর্যন্ত চৌদ্দপায় এলাকায় হাতের এম্বুলেন্স থাকার পরও সময় মত না পেয়ে চারজনের মৃত্যু হয়েছে বলেও স্থানীয়দের অভিযোগ। কিন্তু রাজশাহী ফায়ার সার্ভিস কর্তৃপক্ষ বলছেন, কোনো স্টেশনের সরকারী এম্বুলেন্স নষ্ট না। রীতিমত প্রতিদিন এ এম্বুলেন্স বিভিন্ন সেবায় কাজ করছে। আর সাধারণ মানুষ বলছেন, জরুরী প্রয়োজনে রাজশাহীর ফায়ার স্টেশনগুলোর এম্বুলেন্সের সেবা পাওয়া যাচ্ছে না। তবে চৌদ্দপায়া ফায়ার স্টেশনের ইনচার্জ মাসুদ রানা বলছেন উপর মহলের নিষেধাজ্ঞা থাকায় এম্বুলেন্স সেবা বন্ধ আছে।

জানা গেছে, রোববার সকালের দিকে নগরীর চৌদ্দপায়া এলাকার সাবেক ফায়ার সার্ভিস কর্মী মৃত শেখ মাইনুল ইসলামের স্ত্রী সখিনা বেগম উচ্চ রক্তচাপ জনিত কারণে অসুস্থ্য হয়ে পড়েন। উপায় না পেয়ে তার ছেলেন শেখ শাফি মোহাম্মাদ শাওনের অসুস্থ মাকে হাসপাতালে নিতে এলাকার চৌদ্দপায় ফায়ার সার্ভিস অফিসে ছুটে যান।

ফায়ার সার্ভিস অফিসে গিয়ে শাওন তার মাকে হাসপাতালে নেয়ার জন্য জরুরী ভিত্তিতে এম্বুলেন্স সেবা চান। কিন্তু চৌদ্দপায় ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা শাওনকে জানান, এম্বুলেন্স নষ্ট। বারবার তিনি ফায়ার সার্ভিস কর্মীদের কাছে কাকুতি মিনতি করেন। তারপরও ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা শাওনের মাকে হাসপাতালে নিতে সরকারী এম্বুলেন্স দেয়নি। বারবার ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা শাওনকে একই কথা জানান যে, এম্বুলেন্স নষ্ট। পরে শাওন বাধ্য হয়ে মুমূর্ষু অবস্থায় রাবির এম্বুলেন্সে তার মা সখিনা বেগমকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালেন নেন।

গত দুই মাস আগে চৌদ্দপায়ার শিবলু নামে একজন যুবক তার ভাবি অসুস্থ্য হয়ে পড়ায় কোনো উপায় না পেয়ে এম্বুলেন্সের জন্য চৌদ্দপায়া ফায়ার সার্ভিস স্টেশনে যান। সেখানে কর্মরত কর্মচারিদের কাছে তার ভাবিকে হাসপাতালে নেয়ার জন্য এম্বুলেন্স চান। কিন্তু তাকেও জানানো হয় সরকারী এই এম্বুলেন্স নষ্ট হয়ে পড়ে আছে। সেখানকার ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা শিবলুকে সাফ জানিয়ে দেন যে, অন্য যানবাহনে আপনার ভাবিকে হাসপাতালে নেন, এই এম্বুলেন্স নষ্ট।

শিবলু জানান, প্রতিদিন কেউ না কেউ এই ফায়ার সার্ভিসে আসেন এম্বুলেন্স সেবা পাওয়ার আশায়। কিন্তু জনগণের জন্য এ সেবাটি হলেও খালি হাতে ফিরতে হয় মানুষকে। জরুরী প্রয়োজনে চৌদ্দপায় এলাকার লোকজন এম্বুলেন্স সেবার জন্য গেলেও তারা এম্বুলেন্স পান না। তিনি বলেন, গত চার মাস থেকে এম্বুলেন্স নষ্ট হয়ে আছে এমন ওযুহাত দেখানো হয় বরাবরই।

তিনি আরো জানান, চৌদ্দপায় ফায়ার স্টেশনের ইনচার্জ মাসুদ রানা উপরের নির্দেশে এম্বুলেন্স সেবা বন্ধ রাখা হয়েছে বলেও তাকে জানান।

নগরীর চৌদ্দপায় এলাকার পরিবহন সুপার ভাইজার খলিলুর রহমান জানান, এরআগে সময় মত এম্বুলেন্স না পাওয়ায় চৌদ্দপায় এলাকার চারজন মারা গেছে। এরমধ্যে গত ১৫দিন আগে এম্বুলেন্স না পেয়ে সময় মত হাসপাতালে নিতে না পেরে চৌদ্দপায় এলাকার নাজিম ড্রাইভারে স্ত্রী মারা যান। এছাড়াও ওই এলাকার সময়মত এম্বুলেন্স না পেয়ে হার্টের আরো তিনজন রোগী মারা গেছে বলেও জানান।

এদিকে শুধু চৌদ্দপায়ার ফায়ার স্টেশনেই নয়, খোদ সদর ফায়ার স্টেশনের এম্বুলেন্স সেবাও পাচ্ছে না মানুষ। করোনার ওযুহাতে ফায়ার সার্ভিসের এম্বুলেন্স ব্যবহার করা হচ্ছে না। এতে ফায়ার সার্ভিসের এম্বুলেন্স সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে সাধারণ মানুষ। তবে ফায়ার সার্ভিসের একটি সূত্র বলছে, রাজশাহীর কোনো ফায়ার সার্ভিস স্টেশনের এম্বুলেন্স নষ্ট হয়ে নেই। অজ্ঞাত কারণেই স্টেশনের কর্তা ব্যক্তিরা এ সেবা প্রায় বন্ধ রেখেছেন। এর কারণ অনেকটাই অজ্ঞত।

বিষয়টি নিয়ে কথা বলা হয় রাজশাহী সদর ফায়ার সার্ভিসের ভারপ্রাপ্ত উপ-পরিচালক আব্দুর রশিদের সাথে। তিনি এম্বুলেন্স নষ্ট না দাবি করে জানান, করোনার কারণে কিছুদিন ফায়ার সার্ভিসের এম্বুলেন্স সেবা বন্ধ ছিল। কিন্তু এখন আর নেই।

তিনি বলেন, রাজশাহীর কোনো স্টেশনের এম্বুলেন্স নষ্ট হয়ে নেই। সবগুলো এম্বুলেন্স সচল রয়েছে। তিনি বলেন, সরকারী নিয়ম অনুযায়ী শুধু মাত্র করোনার উপসর্গ আছে এমন ব্যক্তিদের আপাতত বহন করা হচ্ছে না। এছাড়া সব ধরনের রোগির সেবা দেয়া হচ্ছে।

চৌদ্দপায়ার ফায়ার স্টেশনের এম্বুলেন্স নষ্ট হওয়ার বিষয়ে তিনি জানান, ওই স্টেশনের এম্বুলেন্সও নষ্ট নয়। কারণ প্রতিদিন যে, এম্বুলেন্স চলছে তার রেকর্ড আমাদের কাছে আছে। তবে বিষয়টি খোঁজ নিয়ে দেখবেন বলেও জানান তিনি।

ধূমকেতু নিউজের ইউটিউব চ্যানেল এ সাবস্ক্রাইব করুন

প্রিয় পাঠকবৃন্দ, স্বভাবতই আপনি নানা ঘটনার সাক্ষী। শেয়ার করুন আমাদের। যেকোনো ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের ইমেলে পাঠিয়ে দিন এই ঠিকানায়। নিউজ পাঠানোর ই-মেইল : dhumkatunews20@gmail.com. অথবা ইনবক্স করুন আমাদের @dhumkatunews20 ফেসবুক পেজে । ঘটনার স্থান, দিন, সময় উল্লেখ করার জন্য অনুরোধ করা হলো। আপনার নাম, ফোন নম্বর অবশ্যই আমাদের শেয়ার করুন। আপনার পাঠানো খবর বিবেচিত হলে তা অবশ্যই প্রকাশ করা হবে ধূমকেতু নিউজ ডটকম অনলাইন পোর্টালে। সত্য ও বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ নিয়ে আমরা আছি আপনাদের পাশে। আমাদের ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করার জন্য অনুরোধ করা হলো Dhumkatu news