IMG-LOGO

বৃহস্পতিবার, ২৯শে ফেব্রুয়ারি ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
১৬ই ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ, ১৮ই শাবান ১৪৪৫ হিজরি

× Education Board Education Board Result Rajshahi Education Board Rajshahi University Ruet Alexa Analytics Best UK VPN Online OCR Time Converter VPN Book What Is My Ip Whois
নিউজ স্ক্রল
ফুলবাড়ীতে দ্রুত ব্রীজ মেরামতের দাবি এলাকাবাসীররাজশাহী এডভোকেট’স বার এসোসিয়েশন নির্বাচনে ভোট দিলেন মেয়র লিটনবড়াইগ্রামে রোজার পবিত্রতা রক্ষার্থে জনসচেতনা মূলক প্রচারণামান্দায় বালু দস্যুদের থাবায় নদীগর্ভে ফসলি জমিতানোরে হত্যার ঘটনায় প্রধান আসামিসহ গ্রেপ্তার ৩সয়াবিন তেলের নতুন দাম কার্যকর পহেলা মার্চবলিউড যেখানে শেষ আশ্রয়‘মতপ্রকাশের স্বাধীনতার ‘ছিটেফোঁটাও নেই’’রাজশাহীতে ছেলেকে মারধর ও বাড়িতে হামলা-ভাঙচুরের বিচার চাইলেন বাবা-মাবাজে অঙ্গভঙ্গি করায় এক ম্যাচ নিষিদ্ধ ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো‘দেশ ধ্বংসের মাস্টারপ্ল্যান বাস্তবায়নে তৎপর বিএনপি’সব সঞ্চয় ফিলিস্তিনি শিশুদের জন্য দান করে গেছেন গায়ে আগুন দেওয়া সেই মার্কিন সেনাজনগণের ক্ষমতা জনগণের হাতে ফিরিয়ে দিয়েছে আওয়ামী লীগ১৫৭ বিদেশি বন্দীকে নিজ নিজ দেশে ফেরত পাঠানোর নির্দেশআল-আকসায় মুসল্লিদের নামাজ পড়তে দেওয়ার আহ্বান যুক্তরাষ্ট্রের
Home >> রাজশাহী >> বিশেষ নিউজ >> কারিগরের অভাবে হারিয়ে যাচ্ছে রাজশাহীর বেত শিল্প

কারিগরের অভাবে হারিয়ে যাচ্ছে রাজশাহীর বেত শিল্প

ধূমকেতু প্রতিবেদক, জান্নাতুল মাওয়া সিফা : একসময় বেশ জনপ্রিয় ছিলো বেত শিল্প। বিভিন্ন বাসা-বাড়িতে সোফা, বুক সেলফ, টেবিল র‌্যাম্প, বেতের মোড়াসহ বেতের বিভিন্ন জিনিষ দেখা যেত। কিন্তু বর্তমানে পর্যাপ্ত কারিগরের অভাবে বিলুপ্তির পথে শিল্পটি। বর্তমানের ক্রেতার দেখাও মেলে না খুব একটা। আর আধুনিক সভ্যতার প্লাাস্টিক জিনিসের দাপটে হারাতে বসেছে বেতশিল্পের ব্যবহার। শুধু তাই নয় পর্যাপ্ত পারিশ্রমিকের অভাবে তৈরি হচ্ছে না কারিগর। তবুও রাজশাহীর কিছু সংখ্যক কারিগর এটিকেই অর্থ উপার্জনের একমাত্র মাধ্যম হিসেবে আকড়ে রেখেছে।

বর্তমানে রাজশাহী নগরী ঘুড়ে দেখা মিলে মাত্র ২ টি বেতের কারখানা ও ৮টি বেতের আসবাবপত্রের দোকান। জানা যায় মাত্র দুই যুগ আগেও শুধু বেত পট্টিতেই ছিল ১৫ টি দোকান ও ৮টি বেতের আসবাবপত্র তৈরির কারখানা।

কয়েক দশক আগে রাজশাহীসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে পাঠানো হতো এই বেতের আসবাবপত্র। বেত থেকে তৈরি শিশুদের দোলনা, খাট, সোফা, বসার টুল, র্যাগ, ফুলদানি, টেবিল, চেয়ার, রকিং চেয়ার, ফুলের ডালি সহ আরও বিভিন্ন আসবাবপত্র শহরের সর্বত্র ছিল নান্দনিক ব্যবহার্য জিনিস।

মানিক (৪৫) নামের এক কারিগর জানায়, তিনি ত্রিশ বছর ধরে এই পেশার সাথে যুক্ত। তবে বিগত দশবছরে আর নতুন কোনো কারিগর তৈরি হয়নি বলেও জানান তিনি।

এদিকে নগরীর বন্ধগেট এলাকার বেত দোকানের কর্মরত আসাদ (৩৯) নামক একজন কারিগর ধূমকেতু নিউজকে জানায়, ত্রেতার সংখ্যাও খুব একটা নেই। একসময় মানুষের প্রধান ব্যবহার্য জিনিসপত্র ছিল বেতের তৈরি আসবাবপত্র। বর্তমানে আধুনিকতার ছোঁয়ায় মানুষ সৌখিনতার বসে ঘর সাজাতে বেতের দু’একটা জিনিস কিনে। তবে সেখানেও চলে দামাদামি।

তিনি আরও বলেন, ক্রেতারা মনে করেন বেতের আসবাবপত্রের দাম মানেই তা অতি সস্তা দামের হবে। কিন্তু মানুষের এ ধারণা ভুল বলেও জানান ঐ কারিগর।

একসময় সংসার চালানোর জন্য পুরুষের পাশাপাশি নারীরাও করতেন একাজ। তবে এখন নারীরাও আর একাজে আগ্রহী নন বলে জানান বেতের ব্যবসায়ী।

এদিকে মনসুর (৫২) নামের এক কারিগর জানান নগরীতে বেত আমদানি করতে হয় চড়া দামে। ফলে ক্রমশ বাড়ছে বেতের পণ্যের দাম। আবার দিনদিন বেত ও দুর্লভ হয়ে যাচ্ছে। ফলে বেত শিল্প টিকিয়ে রাখার আর কোনো আশা দেখছেন না বলে জানান এই কারিগর।

অপরদিকে সংশ্লিষ্টরা মনে করছেন, বেতশিল্পকে টিকিয়ে রাখতে দ্রুত সরকারের হস্তক্ষেপ প্রয়োজন। বেত স্বল্প মূল্যে আমদামি করে বেত কে গ্রাহকদের কাছে সহজলভ্য করা ও প্রশিক্ষণের মাধ্যমে বেত শিল্পের নতুন কারিগরও তৈরি করতে হবে। এছাড়া হয়তো আর এক দশকও বেত শিল্প টিকিয়ে রাখা যাবে কিনা তা নিয়ে সংশয় প্রকাশ করেছেন তারা।

ধূমকেতু নিউজের ইউটিউব চ্যানেল এ সাবস্ক্রাইব করুন

প্রিয় পাঠকবৃন্দ, স্বভাবতই আপনি নানা ঘটনার সাক্ষী। শেয়ার করুন আমাদের। যেকোনো ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের ইমেলে পাঠিয়ে দিন এই ঠিকানায়। নিউজ পাঠানোর ই-মেইল : dhumkatunews20@gmail.com. অথবা ইনবক্স করুন আমাদের @dhumkatunews20 ফেসবুক পেজে । ঘটনার স্থান, দিন, সময় উল্লেখ করার জন্য অনুরোধ করা হলো। আপনার নাম, ফোন নম্বর অবশ্যই আমাদের শেয়ার করুন। আপনার পাঠানো খবর বিবেচিত হলে তা অবশ্যই প্রকাশ করা হবে ধূমকেতু নিউজ ডটকম অনলাইন পোর্টালে। সত্য ও বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ নিয়ে আমরা আছি আপনাদের পাশে। আমাদের ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করার জন্য অনুরোধ করা হলো Dhumkatu news